• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন |

গ্রেফতারের আগেই আমি আত্মসমর্পণ করেছি : সালাহ উদ্দিন

Salauddin1431647451সিসি ডেস্ক: গ্রেফতার হওয়ার আগে নিজেই ভারতের উত্তরপূর্বে অবস্থিত মেঘালয় রাজ্যের পুলিশের কাছে ইচ্ছাকৃতভাবে আত্মসমর্পণ করেছেন বলে দাবি করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও প্রাক্তন মন্ত্রী সালাহ উদ্দিন আহমেদ।

শিলং মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সালাহ উদ্দিন আহমেদ বৃহস্পতিবার তার সঙ্গে দেখা করতে আসা স্বজনদের এ কথা জানিয়েছেন।  সালাহ উদ্দিন আহমেদের সঙ্গে দেখা করতে তার যে তিনজন স্বজন গত সোমবার শিলংয়ে পৌঁছেছেন আইয়ুব আলী তাদের মধ্যে একজন।

আইয়ুব আলী নামের এক সালাহ উদ্দিন আহমেদের এক স্বজন বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘সালাহ উদ্দিন আহমেদ আমাদেরকে জানিয়েছেন যে, স্থানীয় লোকজনকে জায়গা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে তিনি জেনেছেন যে তিনি শিলংয়ে আছেন।  এরপর তিনি স্বেচ্ছায় পুলিশ স্টেশন যান এবং সেখানকার পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে নিজের পরিচয় ও নাগরিকত্ব সম্পর্কে বলেন। ’

তিনি সাংবাদিকদের আরো বলেন, ‘সালাহ উদ্দিন আহমেদ এটিও জানিয়েছেন যে, তাকে গত ১০ মার্চ উত্তরা থেকে অপহরণ করার পর অপহরণকারীরা চোখ বেঁধে ফেলে এবং একটির পর একটি যান পরিবর্তন করে তাকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।  তবে তিনি জানেন না, কীভাবে তিনি শিলংয়ে এলেন। ’

এদিকে ভারতে আটক বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের ওপর কড়া নজরদারি আরোপের জন্য ইন্টারপোলের জারি করা ‘রেড অ্যালার্ট’ পেয়েছে মেঘালয় রাজ্য পুলিশ।  ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো (সিবিআই) থেকে নির্দেশনা পাওয়ার পরই এ ব্যাপারে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে রাজ্য পুলিশ।

সালাহ উদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশে একাধিক মামলা রয়েছে, তাই তাকে গ্রেফতার করে দেশে ফেরত পাঠাতে মঙ্গলবার ইন্টারপোলের ঢাকা ইউনিট থেকে রেড নোটিশ পাঠানো হয়। ভ্রমণের বৈধ কাগজপত্র ছাড়া বিদেশে অনুপ্রবেশের দায়ে সোমবার সালাহ উদ্দিনকে আটক করে মেঘালয় পুলিশ।

প্রথম তাকে শিলংয়ের মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও পরে জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।  কড়া নিরাপত্তা মধ্যে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।  চিকিৎসা শেষে তাকে আদালতে তোলা হবে বলে রাজ্য পুলিশ থেকে জানানো হয়েছে।

মেঘালয় পুলিশের ডিজিপি রাজীব মেহতা বুধবার শিলং টাইমসকে জানান, সালাহ উদ্দিনের গ্রেফতারের বিষয়ে ইন্টারপোলের জারি করা নোটিশ আমরা সিবিআই থেকে পেয়েছি।  সংস্থার বাংলাদেশ শাখা ওই রেড নোটিশ ভারতের শাখায় পাঠায়।

ডিজিপি মেহতা বলেন, ‘এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সিবিআইয়ের কাছ থেকে আরো নির্দেশনার অপেক্ষা করছি। এ ব্যাপারে আমরা দ্রুত পদক্ষেপ নেব।’

সিবিআই সদস্যরা সালাহ উদ্দিনকে জেরা করবেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে মেহতা বলেন, ‘সিবিআই থেকে এ রকম কোনো তথ্য আসেনি। তবে যেহেতেু তিনি আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছেন, তাই হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরই তাকে আদালতে তোলা হবে।’

এদিকে রাজ্যের পুলিশ-প্রধান জানান, ইন্টারপোলের রেড অ্যালার্ট পাওয়ার পর রাজ্য পুলিশ সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়েছে।  সালাহ উদ্দিনকে এখন পুরোপুরি পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

রাজ্য পুলিশ জানায়, সালাহ উদ্দিনকে যখন গ্রেফতার করা হয়, তখন তার কাছে কিছু ওষুধ ছিল। তাকে অপহরণ করা হয়েছিল বলে সালাহ উদ্দিন দাবি করলেও, রাজ্য পুলিশ এখন তদন্ত করে দেখছে, কীভাবে তিনি বাংলাদেশ থেকে মেঘালয়ে অনুপ্রবেশ করলেন।

বুধবার হাসপাতালে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে সালাহ উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশে তাকে অপহরণ করা হয়েছিল। কিন্তু তিনি কীভাবে ভারতে এলেন, সে বিষয়ে কোনো তথ্য দিতে পারেননি।

সালাহ উদ্দিনের পরিবার ১০ মার্চ থেকে তাকে নিখোঁজ ঘোষণা করে।

তথ্যসূত্র : মেঘালয় টাইমস।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ