• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৯:০০ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে জিংক সমৃদ্ধ বোরো ধানের আবাদ

Nilphamari Pic-01সিসি নিউজ: আমনের পর এবার জিংস সমৃদ্ধ বোরো ধান চাষ করেছে নীলফামারীর কৃষকরা। জিংকসমৃদ্ধ এই ব্রি ধান চাষ বাড়াতে বৃহস্পতিবার দুপুরে সদরের উপজেলার কুন্দপুকুর ইউনিয়নের ধরের পাড়া গ্রামে কৃষক-কৃষাণিদের নিয়ে মাঠ দিবসের আয়োজন করা হয়।
হারভেস্টপ্লাস বাংলাদেশের সহযোগীতায় ও উন্নয়ন সংস্থা আরডিআরএস নীলফামারী আয়োজিত মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি ছিলেন নীলফামারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক গোলাম মোহাম্মদ ইদ্রিস।
সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান আলী চৌধুরীর সভাপতিত্বে সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কেরামত আলী, হারভেস্ট বাংলাদেশের কৃষি গবেষণা ও উন্নয়ন গবেষণা কর্মকর্তা রুহুল আমীন মন্ডল, আরডিআরএস বাংলাদেশ নীলফামারী ইউনিটের কর্মসূচি সমন্বয়কারী খ.ম রাশেদুল আরেফিন ছাড়াও ওই এলাকার কৃষক-কৃষাণিরা উপস্থিত ছিলেন।
আরডিআরএস বাংলাদেশ নীলফামারী ইউনিটের কর্মসূচি সমন্বয়কারী খ.ম রাশেদুল আরেফিন জানান, হারভেস্ট প্লাস’র সহযোগীতায় জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষাবাদ সম্প্রসারণে নীলফামারীতে কাজ করছে আরডিআরএস বাংলাদেশ।
হারভেস্ট বাংলাদেশের উদ্ভাবিত জিংক সমৃদ্ধ আমন জাতের ব্রীধান-৬২ এর চাষ নীলফামারীতে ২০১৩ সালে শুরু হলেও এবার প্রথম বোরো মৌসুমে নীলফামারী জেলার ৫০ বিঘা জমিতে পরীক্ষামুলক ভাবে জিংকসমৃদ্ধ ব্রি-ধান-৬৪ জাতের এ ধানের চাষ করেন ৫০ জন কৃষক। স্বল্প সময়ে বেশি মুনাফা হওয়ায় এই ধানের চাষাবাদ আরো ব্যাপক ভাবে গোটা জেলায় চাষাবাদ করার জন্য প্রতিটি কৃষককে আহবান করা হয়েছে।
হারভেস্ট বাংলাদেশের কৃষি গবেষণা ও উন্নয়ন গবেষণা কর্মকর্তা রুহুল আমীন মন্ডল জানান, র্দীঘ গবেষনায় উদ্ভাবিত  বোরো ব্রি ধান-৬৪ জাতের জিংক সমৃদ্ধ ধান উচ্চ ফলনসীল ধান।
এই ধানের চারা কৃষকরা জমিতে রোপন করে  ১৪৫ থেকে ১৫০ দিনের মধ্যে কর্তন করতে পারবেন। বিঘা প্রতি এই ধানের ফলন ২৩ মণ হওয়া কৃষকরা বেশ লাভবান হবেন। এবার রংপুর বিভাগের চার জেলায় দুই শ’ বিঘা জমিতে এই ধানের চাষাবাদ হয়েছে। এর মধ্যে নীলফামারী জেলায় ৫০ বিঘা, গাইবান্ধায় ৫০ বিঘা, দিনাজপুরে ৫০ বিঘা ও রংপুর জেলায় ৫০ বিঘা জমিতে কৃষকরা চাষাবাদ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ