• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন |

ডোমারের বোড়াগাড়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বেহাল দশা

Picture from nilphamari 15-05-15-1,liliসিসি নিউজ: নীলফামারীর ডোমার উপজেলার বোড়াগাড়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়টিতে বেহাল দশা বিরাজ করছে। সরকারের সংশি¬ষ্ট কতৃপক্ষের যৎ সামান্য সহায়তা ছাড়া কোন কিছুই প্রতিষ্ঠানটির ভাগ্য জোটেনি। এলাকাবাসী ও সুধীজনের সহযোগীতা এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সাহায্য সহায়তা ও ত্যাগ তিতিক্ষার কারনে আজও শিক্ষার আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে এলাকার নারী শিক্ষা প্রসারে একমাত্র অগ্রনী ভুমিকা পালন করছে অত্র প্রতিষ্ঠানটি।
জানা যায়, জেলার ডোমার উপজেলার অদুরে বোড়াগাড়ী বাজারের সন্নিকটে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সের নিকটে সামান্য ডাঙ্গা ও বেশীরভাগই খাল মিলিয়ে এক একর জমির উপর এলাকার বিদ্যোৎসাহী ব্যাক্তিগনের উদ্দ্যোগে ওই এলাকায় নারী শিক্ষা প্রসারের জন্য ১৯৯৮ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে জেলা পরিষদের যৎসামান্য বরাদ্দ ব্যাতীত অদ্যাবদি প্রতিষ্ঠানটি সরকারের কোন প্রকারের সহায়তা পায়নি। অথচ সকল পাবলিক পরীক্ষায় বিদ্যালয়টির সাফল্য রয়েছে ঈর্ষনীয়। এলাকাবাসীর সচেতনতা বৃদ্ধির পাশপাশি এমনি নানা কারনে দিন বদলের সাথে সাথে বাড়তে থাকে বিদ্যালয়ের ছাত্রী সংখ্যা। যা বর্তমানে ৬০০ ছাড়িয়ে গেছে। এসব শিক্ষার্থীদের ১৪ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা ও ৪ জন কর্মচারী রয়েছে। এ অবস্থায় পাঠদানের জন্য প্রয়োজন পরে নুতন নুতন শ্রেনী কক্ষের। বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও এলাকাবাসীর সহায়তায় বিদ্যালয়ের অবশিষ্ট ডাঙ্গা জমিতে আধাপাকা শ্রেনী কক্ষ নির্মান করা হয়। যা অর্থের অভাবে এখনো শেষ করতে পারেনি বিদ্যালয় কতৃপক্ষ। ডোমার-চিলাহাটি ব্যাস্ততম সড়কের পার্শে¦ অবস্থিত হওয়ার পরেও কোন বাউন্ডারি দেয়াল না থাকায় নিরাপত্তা ঝুকিতে রয়েছে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। বিদ্যালয়ের ডাঙ্গা জমিতে শ্রেনী কক্ষ নির্মানের ফলে সংকুচিত হয়ে পড়ে খেলার মাঠ। এক পর্যায়ে তাও শেষ হয়ে যায়। এর ফলে খেলাধুলা তো দুরের কথা শরীরচর্চা ক্লাশের জন্য জমায়েতের জায়গা সংকুলান হচ্ছে না। এ অবস্থায় প্রয়োজন পড়ে বিদ্যালয়ের বাকী জমির উপর খালটি ভরাটের। সরকারী বরাদ্দ ব্যাতীত যা বিদ্যালয় কতৃপক্ষের পক্ষে ভরাট করা সাধ্যাতীত। এ অবস্থায় বিদ্যাণয়ের কোমলমতি ছাত্রীদের মেধা ও মননের বিকাশের স্বার্থে খেলার মাঠ তৈরী ও নুতন ভবন নির্মান করার জন্য বিদ্যালয়ের খালটি ভরাট করা প্রয়োজন। এ জন্য বিদ্যালয় কতৃপক্ষ সংশি¬ষ্ট কতৃপক্ষের সহায়তা কামনা করছেন। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের কর্মরত প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম তাদের সীমাবদ্ধতার কথা স্বীকার করে জানান, এলাকায় নারী শিক্ষা প্রসারের জন্য বিদ্যালয়ের মাঠ তৈরী ও শ্রেনী কক্ষের জন্য নুতন ভবন তৈরীর জন্য সরকারের যথাযথ কতৃপক্ষের নিকট আবেদন করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ