• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৪৪ অপরাহ্ন |

নীলফামারীর চার ছিটমহলে প্রশাসনের নজরদারী

unnamed5সিসি ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণার পর নীলফামারীর চার ছিটমহল বাসীদের খোঁজ খবর নিতে শুরু করেছে প্রশাসন। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখাসহ কোন প্রকার অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে মনিটরিং করছে পুলিশ প্রশাসন।

ইতোমধ্যে কয়েক দফায় জেলা প্রশাসক, জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মারুফ হাসান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম, ডিমলা থানার ওসি রুহুল আমীন, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানগণ ছিটমহল এলাকা পরিদর্শন করে বাসিন্দাদের সাথে কথা বার্তা বলেছেন।

ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের অভ্যন্তরে ভারতীয় ২৮নং বড় খানকি ছিটমহলের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন জানান, আসলে আমরা যারা ছিটমহলে বসবাস করতেন তারা মানুষ হিসেবে পরিচিত ছিলো না। কোন সুযোগ সুবিধা পাওয়াতো দুরের কথা অপরাধ কর্মকান্ড ঘটলেও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগীতা পেতাম না। থানায় অভিযোগ দিলেও তারা আসতো ছিটমহল হওয়ার কারণে। তিনি বলেন, সাঁপের ছোবল থেকে রক্ষা পেতে আমার যেন গর্তে বাস করতাম।

একই ছিটমহলের সভাপতি যদুনাথ রায় বলেন, দীর্ঘ ৬৮বছরের অনিশ্চয়তা আজ আমাদের নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখিয়েছে। আমরা যে কতটা উচ্ছসিত তা বলে প্রকাশ করতে পারবো না। তিনি জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণার পর আমাদের খোঁজখবর নিতে প্রশাসনের লোকজন এসেছিলেন। আমাদের পরামর্শ দিয়ে গেছেন যাতে কোন ঘটনা ঘটলে জানানো হয়। আমরা আনন্দিত।

টেপাখড়ি বাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম শাহিন বলেন, ছিটমহলে বসবাস কারীদের প্রত্যক্ষভাবে সহযোগীতা করতে না পারলেও পরোক্ষভাবে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সহযোগীতা করা হয়েছে। তিনি বলেন, এখন থেকে ছিট বলতে আর কিছু রইলো না। তারা আমার ইউনিয়ন পরিষদের নাগরিক।
ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) রুহুল আমীন জানান, সরকারী ভাবে ছিটমহল বাসীদের জরিপ কার্যক্রমের কোন নির্দেশনা আসেনি। কেউ যাতে প্রলোভন দেখিয়ে অবৈধ সুবিধা আদায় করতে না পারে সেজন্য ছিটমহল বাসীদের বলা হয়েছে যাতে আমাদের জানানো হয়। তিনি জানান, আদম শুমারী ও জমির পরিমাপ নির্ণয়ের জরিপ কার্যক্রম সরকারী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত ছিট এলাকাগুলোতে চালাতে দেয়া হবে না।

এদিকে গত সোমবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ছিটমহল বাসীরা যেন কোন রকম সমস্যার সম্মুখীন না হন সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা পর কাজ শুরু করেছে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মারুফ হাসান বলেন, ছিটমহল বাসীদের খোঁজ খবর রাখতে ইতোমধ্যে পুলিশ প্রশাসন কাজ শুরু করেছে। এলাকাগুলো পরিদর্শন করে সেখানে যাতে কোন রকম আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি না হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার চার ছিটমহল বড় খানকিবাড়ি খারিজা, তালুক বড়খানকি খারিজা, গীতালদহ ও জিগাবাড়ি ছিটমহলে ৯৩একর জমির উপর ১১৯টি পরিবার বসবাস করছে। চার ছিটমহলের ৪৯৬জনসংখ্যার মধ্যে ২৫৮জন পুুরুষ এবং ২৪৮জন মহিলা রয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ