• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন |

রাজউকের প্রাক্তন প্রধান প্রকৌশলীর দুর্নীতির ফিরিস্তি

Emdat1431760115সিসি ডেস্ক: রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) প্রাক্তন প্রধান প্রকৌশলী এমদাদুল ইসলাম। প্লট বরাদ্দ থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রকল্পের অর্থ আত্মসাত এবং ঠিকাদারি কাজসহ নানা সেক্টরে নিজের প্রভাব খাটিয়ে অনিয়ম-দুর্নীতিতে মেতে ছিলেন তিনি। এমনকি মন্ত্রী-এমপি ও প্রভাবশালী রাজনীতিকদের নাম ভাঙিয়ে বছরের পর বছর অনিয়ম চালিয়ে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

এমন সুনির্দিষ্ট অভিযোগের সত্যতা অনুসন্ধানে সম্প্রতি মাঠে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক)। অভিযোগ অনুসন্ধানে দুদকের এক উপপরিচালককে নিয়োগও দেওয়া হয়েছে। দুদকের একটি সূত্র বিষয়টি রাইজিংবিডিকে নিশ্চিত করেছে।

দুদকে প্রেরিত অভিযোগ অনুসারে রাজউকের সদ্য প্রাক্তন প্রধান প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে প্লট জালিয়াতির মাধ্যমে রাজধানীতে অসংখ্য প্লটের মালিক হওয়া, বিভিন্ন প্রকল্প থেকে মোটা অঙ্গের টাকা হাতিয়ে নেওয়া ও অনিয়মতান্ত্রিক উপায়ে প্রধান প্রকৌশলী পদে যোগদানসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য অভিযোগগুলো হলো-

প্লট জালিয়াতি : প্রধান প্রকৌশলী এমদাদুল ইসলাম তার নিজের স্ত্রী সামিনা ইসলামের নামে ১০ কাঠার প্লট বরাদ্দ নেন ২০০৩ সালে। উত্তরার সেক্টর ১১, রোড ২০৪-এর ৩০ নাম্বার প্লট বরাদ্দ পাওয়ার পর ১০ কাঠা আয়তনের প্লট বাবদ সমুদয় অর্থ পরিশোধ করেন। ২০১৩ সালের ৮ মে জমি দখলের সময় ওই প্লটের আয়তন হয়েছে ১২ কাঠা ২ ছটাক ১১ বর্গফুট।

তার স্ত্রীর প্লট সংক্রান্ত নথি পর্যালোচনায় দেখা যায়, বর্ধিত জমি চেয়ারম্যানের অনুমোদনক্রমে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ২০১৩ সালের ১১ আগস্ট সামিনা ইসলামের কাছ থেকে ১২ লাখ ৮৪ হাজার ১৬৭ টাকা আদায় সাপেক্ষে এ বরাদ্দের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। একই মাসে বর্ধিত জমিসহ সামিনা ইসলামকে প্লটের দখল দেওয়া হয়েছে।

ওই বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর এমদাদের স্ত্রী প্লটের লিজ দলিল করার জন্য রাজউকের উপ-পরিচালক (এস্টেট-৩) বরাবর একটি আবেদন করেন। ওই আবেদনের ভিত্তিতে সামিনা ইসলামের স্বামী এমদাদের নামে কোনো প্লট আছে কিনা তা যাচাইয়ের জন্য এমআইএস শাখায় পাঠানো হয়। ২৯ সেপ্টেম্বর এমএসআই শাখা তাদের মতামতে জানায়, বরাদ্দ গ্রহীতা সামিনা ইসলাম স্বামী মো. এমদাদুল ইসলামের নামে আজ পর্যন্ত এন্ট্রিকৃত তথ্যের মধ্যে একাধিক এন্ট্রি পাওয়া যায়নি। বরাদ্দ গ্রহীতার স্বামী এমদাদুল ইসলামের নামেও কোন এন্ট্রি পাওয়া যায়নি।

দুদকের অভিযোগ সূত্রে আরো জানা যায়, এমআইএস শাখায় প্রভাব খাটিয়ে ওই মতামত লেখাতে বাধ্য করেছেন প্লট গ্রহীতার স্বামী ও রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী। অথচ বরাদ্দ গ্রহীতা (এমদাদ) স্বামীর নামে নিকুঞ্জ (দক্ষিণ)-এ একটি ৩ কাঠা আয়তনের প্লট রয়েছে। রাজউকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংরক্ষিত কোটা থেকে প্লটটি পেয়েছিলেন তিনি। এ ছাড়া উত্তরা ১১ ও ১৪ নম্বর সেক্টরে নামে-বেনামে পরিবারের অন্য সদস্যদের নামেও একাধিক প্লট রয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, সেক্টর ১১ রোড ২বি প্লট ৮বি-এর মালিক সাইদা হামিদ। এ প্লটের মালিক সম্পর্কে এমদাদের নিকটাত্মীয়। অদৃশ্য ইশারায় পার্ক কেটে এ প্লটটি সৃষ্টি করা হয়েছিল।

ওদিকে রাজউকের প্লট বরাদ্দের নিয়ম অনুযায়ী স্বামী ও স্ত্রী উভয়ে প্লট বরাদ্দ পেতে পারেন না। প্লট বরাদ্দ পেলেও যে কোনো একটি প্লট সমর্পণ করতে হয়। রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী অদ্যাবধি তা করেননি।

প্রধান প্রকৌশলীর স্ত্রী সামিনা ইসলামও লিজ দলিল রেজিস্ট্রির সময় অসত্য হলফনামা দাখিল করেছেন। ২০১৪ সালের ৮ সেপ্টেম্বর দাখিল করা হলফনামায় তিনি বলেছেন, এই মর্মে ঘোষণা ও অঙ্গীকার করছি যে, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পে আমার নামে কোড নং- ২৩৫৩৭ এর মাধ্যমে বরাদ্দকৃত ১১ নং সেক্টরের ২০৪ নং রাস্তার ০৩০ নং প্লট ব্যতীত রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের আওতাধীন এলাকায় (পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পসহ) কোথাও আমার নিজ নামে বা আমার স্বামীর নামে বা পোষ্যগণের নামে কোনো আবাসিক জমি বা বাড়ি পূর্বতন ডিআইটি বর্তমানে রাজউক অথবা কোনো সরকারি বা আধাসরকারি সংস্থা কর্তৃক এই হলফনামা প্রদানের তারিখ পর্যন্ত বরাদ্দ অথবা লিজ প্রদান করা হয়নি।

বিভিন্ন প্রকল্প থেকে মোটা অঙ্গের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ: রাজউকের গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলো থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ প্রকৌশলী এমদাদুল ইসলামের বিরুদ্ধে। পছন্দের ব্যক্তিদের নানা পদে বসিয়ে প্রকল্পগুলো থেকে বিপুল অর্থ কমিশন নিয়েছেন। রাজউক নির্মাণাধীন ৩টি আবাসিক প্রকল্প- পূর্বাচল নতুন শহর, উত্তরা তৃতীয় পর্ব ও ঝিলমিল আবাসিক প্রকল্প থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এই প্রকৌশলী।

এ তিন প্রকল্পের প্রথম ব্যয় নির্ধারণ ছিল ৫ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা। কারসাজির মাধ্যমে এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৪৫৭ কোটি টাকায়। এই বাড়তি টাকার বড় একটি অংশ এমদাদ হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ ছাড়া উত্তরা তৃতীয় প্রকল্পের পিডি হয়ে এমদাদ নির্মাণাধীন ফ্ল্যাটের দাম নির্ধারণ করেছেন আকাশছোঁয়া। ৪৫ লাখ টাকার ফ্ল্যাটের দাম ধরা হয়েছে ৭২ লাখ টাকায়। এমদাদের এ ধরনের স্বেচ্ছাচারিতার কারণেই শেষ পর্যন্ত মধ্যবিত্তদের জন্য নির্মিতব্য এই ফ্ল্যাট প্রকল্পের কাজ ভেস্তে যায়।

জেল খাটা এমদাদুল ইসলাম: সরকারের ১৭টি বাড়ি রাজউকের মাধ্যমে বিক্রি করার ক্ষেত্রে ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে ২০০৭ সালের ২৯ মার্চ বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে দুদক মামলা দায়ের করেছিল। মামলায় প্রাক্তন গণপূর্ত মন্ত্রী মির্জা আব্বাসসহ ১২ জনকে আসামি করা হয়। পরস্পরের যোগসাজশে, প্রভাব খাটিয়ে ব্যক্তিগতভাবে লাভবান হওয়ার জন্য এসব বাড়ি বিক্রির মাধ্যমে রাষ্ট্রের ১২৭ কোটি ৬৪ লাখ ১৯ হাজার ৫৯ টাকা ক্ষতি করা হয়েছে বলে মামলায় অভিযোগ আনা হয়। পরবর্তীতে এ মামলার চার্জশিটে যারা বাড়ি ক্রয় করেন তাদেরও অভিযুক্ত করা হয়। ফলে দেড় বছরের বেশি সময় এ মামলার এজাহারভুক্ত আসামি কাজী রিয়াজুল মনির, মোহাম্মদ আলী, এসএম জাফর উল্লাহ, গোলাম নবী, মীর মোশারফ হোসেন, শহীদ আলম, ইকবাল উদ্দিন আহম্মেদ, হুমায়ুন খান, আবদুস সাদেক, জিয়া উদ্দিন আহম্মেদ এবং এমদাদুল ইসলাম জেল খেটেছেন। পরে তারা জামিনে মুক্তি পান। বর্তমানে এ মামলার আসামিরা মামলা বাতিলের দাবিতে হাইকোর্টে আবেদন ও রিট মামলা দায়ের করেন। এর মধ্যে এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত মির্জা আব্বাসের বাতিল আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে দিলেও পরবর্তীতে আপিল বিভাগ স্থগিতাদেশ খারিজ করে দেন। ফলে মামলা সচল হয়ে যায়। কিন্তু সহ-অভিযুক্তদের মামলা স্থগিত থাকার কারণে আদালতে এ মামলার বিচার কার্যক্রম এখনো শুরু হয়নি। বর্তমানে মামলাটি আদালতে অনেকটা ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে।

অনিয়মতান্ত্রিক উপায়ে প্রধান প্রকৌশলী পদে নতুন যোগদান: আদালতের আদেশকে পুঁজি করে প্রধান প্রকৌশলী পদে নতুন করে রাজউকে যোগদান করেছিলেন এমদাদ। অথচ পরিত্যক্ত বাড়ির মামলায় চার্জশিটভুক্ত আসামি তিনি। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী কোনো চার্জশিটভুক্ত আসামি সাসপেন্ড অবস্থায় থাকার কথা। অথচ তার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। যদিও প্রাক্তন গণপূর্ত সচিব মহবুবুর রহমানের আমলে নিয়মকানুনের বেড়াজালের কারণে চাকরিতে যোগদান করতে পারেননি। প্রাক্তন গণপূর্ত সচিব ও তার আত্মীয় গণপূর্ত সচিব ড. খোন্দকার শওকাত হোসেনের সহযোগীতায় চাকরিতে নতুন করে যোগদান করেন এমদাদ।

তার বিরুদ্ধে সকল অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রকৌশলী এমদাদুল ইসলাম রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আমি রাজউকের নিজস্ব লোক ছিলাম। রাজউকে অনেক বহিরাগত কর্মকর্তা রয়েছেন যারা অনেক আগে থেকেই আমার বিরোধীতা করে আসছেন। কারণ, আমি থাকার কারনে অনেকেরই অতিরিক্ত অর্থ আয়ের পথ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এ কারণেই ওই চক্রটি আমার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ওই চক্রটি আমার বিরুদ্ধে সংশিষ্ট মন্ত্রীর নিকটও অভিযোগ দিয়ে বলেছে আমাকে রাজউকে আর দরকার নেই। তার শুধু দুদক নয় অন্যান্য অনেক জায়গায়ই আমার বিরুদ্ধে শত শত অভিযোগ দিয়েছে।’

প্লট বরাদ্দে অনিয়ম ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের বিষয়ে রাইজিংবিডিকে বলেন, প্লট বরাদ্ধের ক্ষমতা আমারা কাছে নয় এ এখতিয়ার রাজউকের চেয়ারম্যানের। আর আমি এতটা ক্ষমতাশালী ব্যক্তি ছিলাম না যে আমার অনেক সম্পদ হবে।

রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ