• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৯:০৯ অপরাহ্ন |

সাগরে ভাসছে মানবতা

Rohinga1431843031রুহুল আমিন : মালাক্কা প্রণালী ও আন্দামান সাগরে গত দুই মাস ধরে ভাসছে প্রায় ছয় হাজারের মতো রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি। এর আগে প্রায় তিন হাজার অভিবাসী মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ার তীরে নেমেছে।

সর্বশেষ ১৬ মে’র বিশ্ব গণমাধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী ১০০ বাংলাদেশিসহ প্রায় ৩০০ জন নিয়ে একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা সাগরে ভাসছে। তাদেরকে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ড কেউই তীরে ভিড়তে দিচ্ছে না।

সাগরে ভাসতে থাকা এই মানুষজনের দায় কেউ নিতে চাচ্ছে না। এমনকি বাংলাদেশ বা মিয়ানমারও তাদের এই অভিবাসীদের রক্ষার্থে নিচ্ছে না কোনো জরুরি পদক্ষেপ। খাবার পানি, খাদ্য সংকটে যখন সেই মানুষগুলো তীরে উঠতে চাচ্ছে জীবন বাঁচাতে, তখন কেউ তাদের তীরে উঠতে দিচ্ছে না। আর তাদের কাছে এমন রসদও নেই যে তারা আবার দেশে ফেরত আসবে। এই ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সরকার চাইলে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করে মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড ও ইন্দোনেশিয়ার সরকারকে অস্থায়ী আশ্রয় দেওয়ার জন্য অনুরোধ করতে পারত। তাতে অন্তত মানুষগুলো বেঁচে যেত। কিন্তু এখন এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে যে, ভাসমান মানুষগুলো যেন দেশহীন, রাষ্ট্রহীন।

আসলেই তো তাই! উদ্বাস্তুদের কীসের আবার দেশ আর রাষ্ট্র। যদি তাই না হত অন্ততপক্ষে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সরকার এগিয়ে যেত তাদের রক্ষা করতে। মালয়েশিয়ার বিমান দুর্ঘটনায় পড়ে নিখোঁজ হয়ে গেলে তা অনুসন্ধানে বাংলাদেশ সরকার সহায়তা করে। বঙ্গোপসাগরে বিমানযোগে খোঁজা হয় নিখোঁজ বিমানের ধ্বংসাবশেষ, খোঁজা হয় বিমানের যাত্রীদের। জীবিত অথবা মৃত ফিরে পেতে মরিয়া হয়ে সহযোগিতার হাত বাড়ানো হয়। অথচ এখনো বেঁচে আছে (মৃত্যু সন্নিকটে) জেনেও নিজের দেশের নাগরিকের জন্য কোনো তৎপরতা আমাদের চোখে পড়ে না।

আন্তর্জাতিক ভ্রাতৃত্বের যে জায়গা থেকে বাংলাদেশ সরকার মালয়েশিয়ার বিমান দুর্ঘটনার পর এগিয়ে গিয়েছিল, সেই একই জায়গা থেকে মালয়েশিয়ার সরকারকে অনুরোধ জানালে  হয়ত তারা সাগরে ভাসমান মানুষগুলোকে অস্থায়ী আশ্রয় দিত। খোঁজে দেখত আরো কোনো অভিবাসীর নৌকা সাগরে ভাসছে কী না। কিন্তু বড় সমস্যা হচ্ছে সাগরে ভাসমান মানুষগুলোকে যেন আমরা আমাদের নাগরিক বলেই স্বীকৃতি দিতে অপ্রস্তুত।

ভুপেন হাজারিকার সেই গানের কথা মনে পড়ছে মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য
একটু সহানুভূতি কী মানুষ পেতে পারে না…

এই অভিবাসী সমস্যা যখন মানবিক সংকট তৈরি করছে, ঠিক তখন মিয়ানমার এই সমস্যার জন্য বাংলাদেশসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলোকে দায়ী করছে। মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে বললেও মানুষগুলো আগে বাঁচার অধিকার রাখে। অথচ আমরা দেখছি মানুষ পরিচয়ের চেয়ে কী করে রাষ্ট্র পরিচয়, নাগরিক পরিচয় বড় হয়ে ওঠে।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে না হয় বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তসম্পর্ক নির্ভর করে। কিন্তু যারা বাংলাদেশি তাদের জীবন বাঁচানো রাষ্ট্রীয় নৈতিক দায়িত্ব নয়কি? যে মানুষগুলো জীবন বাজি রেখে একটু ভাল থাকার জন্য, স্বপ্ন নিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাড়ি জমিয়েছিলেন, বাংলাদেশ সরকারকে এগিয়ে যেতে হবে তাদের রক্ষা করার জন্য।

মানবপাচার বাংলাদেশের জন্য বিরাট এক সমস্যা। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে কম টাকায় বিদেশ গমনের জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইঞ্জিন চালিত নৌকায় রওয়ানা দেয় তারা। তাদেরকে মানবপাচারকারীরা যা বোঝায় তাই বুঝে।

তারা আসলেও জানে না এই ঝুঁকিটা সত্যি কতবড় ঝুঁকি। এই ব্যাপারে সরকারকে আরো বেশি কঠোর হওয়া দরকার।

সরকারকে পাচারকারীদের কঠোরভাবে দমন করতে হবে। তবে কোস্টগার্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সীমিত পাহারার কারণে মানবপাচার ঠেকানো সম্ভব হচ্ছে না তাদের। তাই বাড়াতে হবে পাহারা।

তারপরও কিছুটা স্বস্তির খবর হলো অবৈধ অভিবাসী ইস্যুতে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনায় বসতে যাচ্ছে মালয়েশিয়ার সরকার। এই বৈঠকে জীবনের নিশ্চয়তা ফিরে পাক ভাসমান মানুষেরা, এটাই প্রত্যাশা করি।

সাম্প্রতিককালে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে বাংলাদেশি ও মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের পাচারের ঘটনা কয়েকগুণ বেড়েছে।

সম্প্রতি জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের প্রায় ২৫ হাজার মানুষ মালয়েশিয়ার উদ্দেশে দেশ ছেড়েছে। যাত্রা পথে নির্যাতন ও অনাহারে প্রায় তিনশ’ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাচার হওয়া এসব মানুষকে সাগরে কয়েক মাস নৌকায় ভেসে থাকতে হয়। এরপর থাইল্যান্ড হয়ে সীমান্ত দিয়ে মালয়েশিয়ায় পাঠানো হয় তাদের।

কিছুদিন আগে থাইল্যান্ডের গভীর জঙ্গলে মানব পাচারকারীদের কিছু ক্যাম্প ও অভিবাসীদের গণকবর পাওয়া যায়। আর এরপর থেকে বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। থাই সরকার পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। বাড়ায় সমুদ্রসীমায় নিরাপত্তা। ইতিমধ্যে কয়েকজন পাচারকারী এবং কয়েকশ অবৈধ অভিবাসী আটক হয়েছে। একই সময়ে মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া সরকারও তাদের সমুদ্রসীমায় নজরদারি বাড়িয়েছে। আর ওইরকম কঠোর অবস্থাতে গ্রেফতার এড়াতে মানবপাচার চক্রের সদস্যরা অভিবাসী বহনকারী নৌযান ছেড়ে পালিয়ে গেছে। তাই নাবিকবিহীন নৌযানগুলো এখন সমুদ্রে ঘুরে-ফিরছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, অভিবাসী নিয়ে একটি নৌকা প্রথম থাইল্যান্ড যাওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু থাই নৌবাহিনী দুইবার তাদেরকে ফিরিয়ে দেয়। তবে তারা নৌকার ইঞ্জিনটি মেরামত করে দেয়। এ সময় অভিবাসীদের কিছু খাদ্য, পানি, জ্বালানি তেল ইত্যাদি দিয়ে মালয়েশিয়ার পথ দেখিয়ে সাগরে ছেড়ে দেয়। আর শনিবারও মালয়েশিয়ার নৌ-বাহিনী একটি অভিবাসী-ভর্তি নৌকা তাদের জলসীমা থেকে ফিরিয়ে দিয়েছে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে অভিবাসীদের এই শোচনীয় পরিস্থিতির বিষয়ে ইউএনএইচসিআরের একজন কর্মকর্তা জেফরি স্যাভেজ বলেন, ‘সাগরে ভেসে থাকা এসব মানুষকে উদ্ধারে সমন্বিত তৎপরতার কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।’ তিনি অভিবাসীদের বাঁচাতে দেশগুলোকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান। আমরাও চাই যেকোনো উপায়ে সমঝোতার মাধ্যমে সাগরে ভাসমান মানুষগুলোলে বাঁচাতে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে। তবেই না মানবিকতার জয় হবে। জয় হবে  মানুষের।

 উৎস: রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ