• শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন |

চিলমারীতে এলজিএসপি প্রকল্পে হরিলুট

Oniমোঃ হাবিবুর রহমান চিলমারী (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় বিশ্বব্যাংকের আর্থিক সহযোগিতায় স্থানীয় সরকার সহায়তা প্রকল্পের (এলজিএসপি) টাকা লুটপাট করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এসব টাকা উন্নয়ন কাজে ব্যয় না করে ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যরা নির্বাচনী খরচ উঠিয়েছেন বলে মন্তব্য করেন জনসাধারন। সামান্য কাজ করে নামে বে-নামে দেখানো হয়েছে ভুয়া প্রকল্প।
জানা গেছে, স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে উপজেলায় বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নের (এলজিএসপি-২) বিপরীতে ওই উপজেলায় বরাদ্দ দেয়া এ প্রকল্পের আওতায় ২০১৩-১৪ অর্থবছরে উপজেলার ৬ ইউনিয়নে প্রায় ৭০ লাখ টাকা বরাদ্দ আসে। জনসংখ্যার অনুপাতে প্রতি ইউনিয়নে ৫ থেকে ১৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। অভিযোগ উঠেছে, ব্যাংক থেকে বরাদ্দ করা টাকা সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানরা উত্তোলন করে নিজেদের কাছে রাখেন। এসব বরাদ্দ টাকা দিয়ে নিজ নিজ এলাকার ইউপি চেয়ারম্যানরা অত্যন্ত গোপনীয়ভাবে রিং কালভার্ট, ছোট রাস্তা সিসিকরণ, বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র, ইউড্রেন, হতদরিদ্রদের মাঝে ল্যাট্রিন সরবরাহকরণ, নলকূপ বিতরণসহ বিভিন্ন নামে প্রায় ৭০টি প্রকল্প দাখিল করেন। বিধিমালা অনুযায়ী, মাইকিং করে অথবা ঢোল পিটিয়ে সভা আহ্বান করে ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে জনসাধারণের মতামতের ভিত্তিতে প্রকল্প গ্রহণের কথা রয়েছে। কিন্তু এ উপজেলায় তা করা হয়নি। ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যরা কঠোর গোপনীয়তায় মনগড়াভাবে প্রকল্প তৈরি করেছেন। সূত্রের ভাষ্যমতে, ইউপি চেয়ারম্যানরা নিজে অথবা তাঁদের অনুগত সদস্যদের প্রকল্প কমিটির সভাপতি বানিয়ে কাজ না করেই ব্যাংক থেকে টাকা তুলে আত্মসাৎ করেছেন। সরেজমিনে অষ্টমীর চর ইউনিয়নে ২নং ওয়ার্ডে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসবাবপত্র সরবরাহ বাবদ ৯৫ হাজার টাকা, নয়ারহাট ইউনিয়নে ৮নং ওয়ার্ডেও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসবাবপত্র সরবরাহ বাবদ ৭০ হাজার টাকার প্রকল্প দেখানো হলেও নামে মাত্র কয়েকটি ব্যাঞ্চ বিতরন দেখিয়ে বেশির ভাগ টাকা আৎসাদ করেছেন বলে জানা গেছে। রমনা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের খরখরিয়া ১ নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আসবাবপত্র সরবরাহ বাবদ ৭০ হাজার টাকা দেখানো হলেও কোন আসবাবপত্র পাননি বলে জানান প্রধান শিক্ষক মোঃ শাহআলম। রানীগঞ্জ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে ১ লক্ষ্য ৮২ হাজার টাকার ব্যায়ে সেচ পাইপ স্থাপন করন প্রকল্প দেখানো হলেও স্থাপন করা হয়নি বলে জানান এলাকাবাসী, ফকিরের হাট এম সিনিয়র আলিম মাদ্রাসার আসবাব পত্র সরবরাহ দেখানো হলেও কোন প্রকার আসবাবপত্র পাননি বলে মাদ্রাসা কতৃপক্ষ সুত্রে জানা গেছে। থানাহাট সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ১লক্ষ থেকে ৭৫ হাজার টাকা ব্যায়ে নির্মানকৃত ইউড্রেন তৈরি করা হলেও হলেও নামে মাত্র কাজ দেখিয়ে বেশিরভাগ টাকা আৎসাদ করেছে বলে জানান সংশিষ্ট এলাকাবাসী। এছাড়াও সকল ইউনিয়নে রিং স্লাব, নলকূপ বিতরনসহ বিভিন্ন প্রকল্প দেখানো হলেও নিন্ম মানের রিং স্লাব, নলকূপের গোড়া পাকা না করেই প্রকল্প সমাপ্ত দেখিয়ে আবারো চলতি অর্থ বছরের এলজিএসপি প্রকল্পের টাকা লুটপাটের জন্য সংশিষ্টরা মাঠে নেমেছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। সংশিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানগন আনিত অভিযোগ অশিকার করলেও কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেনি। উপজেলা এলজিএসপি কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা বলেন, আমি সবেমাত্র যোগদান করেছি। তবে এলজিএসপি প্রকল্প বাস্তবায়নের অর্থ সরাসরি মন্ত্রণালয় থেকে ইউনিয়ন পরিষদের ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হয়ে থাকে। ইউপি চেয়ারম্যানরাই প্রকল্প বাস্তবায়ন করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে থাকেন। তিনি আরো বলেন চলতি অর্থ বছরে অনিয়ম হলে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ