• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০১:২১ পূর্বাহ্ন |

ছিটমহলে স্কুলের সাইনবোর্ড টানানোর হিড়িক

photoজাহাঙ্গীর আলম, ফুলবাড়ী: ৬৮ বছর পিছিয়ে পড়া ছিটমহলবাসী বুক ভরা স্বপ্ন নিয়ে নতুন করে বেঁচে থাকার জন্য প্রথমে শিক্ষার আলোর দেখতে শুরু করেছে । দীর্ঘ দিন ধরে তাদের সন্তানরা তেমন লেখা পড়া করতে না পাড়লেও স্থল সীমান্ত চুক্তি ভারতের লোক সভায় অনুমোদন হওয়ায় ফুলবাড়ী উপজেলার দাসিয়ার ছড়া ছিটমহলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উঠানোর হিড়িক পড়েছে । ইতি মধ্যে ১১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জায়গা নির্ধারন করে উঠানো হয়েছে সাইন বোর্ড । সরকারের নীতিমালা ছিটমহলবাসীদের কাছে না পৌঁছিলেও এ ছিটমহলে ধুমধাম করে সাইন র্বোড দিয়ে আগাম শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে সর্বত্র।অপ্রয়োজনীয় স্থানে শিক্ষা প্রতিষ্টান গড়ে উঠানো নিয়ে কিছুটা বিভ্রান্ত ছিটের মানুষের মাঝে ঘটলেও সঠিক ভাবে কাজ করলে উপকৃত হবে সাধারন মানুষ বলে অনেকের অভিমত রয়েছে ।
গত বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার পর্যাক্রমে ১১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জায়গা নির্ধারন করে সাইন বোর্ড লাগানোর পর এখন চলছে শিক্ষক নিয়োগের প্রতিযোগিতা । ছিটমহল অধিবাসীদের শিক্ষিত ছেলে মেয়েরা এ গুলোতে কর্মরত শিক্ষক হিসাবে থাকবেন না বহিরাগত শিক্ষক নিয়োগ করা হবে তা নিয়ে এখনো সরকারের কোন নির্দেশ না আসলেও জোড়ে সরে চলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম । ২০১০ সালে হেড কাউন্টিংয়ের অনুয়ায়ী দাসিয়ার ছড়া ছিটমহলের আয়তন ১৬শ ৪৩ একর হলেও জন সংখ্যা ছিল ৬ হাজার ৭শ । তবে হেড কাউন্টিংয়ের সময় কিছু নারী পুরুষ কাজের সন্ধানে দেশে কিংবা অন্য কোথাও যাওয়ায় অনেকেই বাদ পড়েছে গণনা থেকে । তবে অনেকের ধারনা প্রায় ১১হাজার লোকের বসবাস রয়েছে এখানে । এ অবস্থায় ভারতে বিলটি পাসের পর গত ১০ মে বাংলাদেশস্থ ভারতীয় হাই কমিশনার পঙ্কজ শরণ এই ছিটমহলে এসেছিলেন। এতে ছিটমহল বিনিময় নিশ্চিত হওয়ায় আনন্দে ভাসছেন অধিবাসীরা। নিজেদেরকে বাংলাদেশের নাগরিক ভাবতে শুরু করেছেন তারা। ফলে বদলে গেছে এখানকার চালচিত্র।এদিকে ফুলবাড়ী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নাসির উদ্দিন মাহমুদ গত ১৩ মে তার কার্যালয়ে ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে একটি প্রথম বৈঠক করেন তার কার্যলয়ে। বৈঠকে স্কুল, চিকিৎসা সেবা ও পরিষদ ভবন ইত্যাদি বিষয়ে প্রাথমিকভাবে কিছু আলোচনা হয়েছে তাদের সাথে । কিন্তু নামকরণ এবং কয়টি স্কুল হবে এ নিয়ে কোন আলোচনা হয়নি। সেখানে শান্তিশৃংখলা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। ওই আলোকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে এখন মহাব্যস্ত রয়েছে সমন্বয় কমিটির নেতাকর্মীরা । গতকাল বালাটারী ফজিলাতুননেছা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে। সাইনবোর্ড টানানো কাজের উদ্বোধন করেন ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির দাশিয়ারছড়া শাখার সভাপতি আলতাফ হোসেন। এই স্কুলের জন্য আব্দুল হাকিম নামের এক ব্যক্তি ৫০ শতাংশ জমি দান করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। আর এ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের সুপাশি করা হয়েছে ৪ জনকে । তারা হলেন কল্পনা খাতুন ,শাহজালাল হক ,খাদিজা খাতুন রাশেদা খাতুন । এরা সকলেই আইএ ও এমএ পাশ ছাত্র। দাসিয়ার ছড়া ছিটমহলে যে সব সাইনবোর্ড টানানো প্রস্তাবিত রয়েছে সে স্কুলগুলো হচ্ছে-সমন্বয় মধ্যপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালাটারী ফজিলাতুননেছা প্রাথমিক বিদ্যালয়, দাশিয়ারছড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, ছোটকামাত প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড়কামাত প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিমপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, দোলাটারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বটতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়, মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়, বোর্ডঘর প্রাথমিক বিদ্যালয়, কালিহাট প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ইন্দ্রিরা-মুজিব বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়। ছিটমহলের অধিবাসী শেয়বাল্লী জানান, এখানে প্রাইমারী ও মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কুল স্থাপন নিয়ে ভবিষ্যতে বিবাদ হওয়ার আশংকা রয়েছে। এজন্য এখন থেকে এটি সমন্বয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।
এ প্রসঙ্গে ফুলবাড়ী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নাসির উদ্দিন মাহমুদ জানান, ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে একটি বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে স্কুল, চিকিৎসা সেবা ও পরিষদ ভবন ইত্যাদি বিষয়ে প্রাথমিকভাবে কিছু আলোচনা হয়েছে। তবে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী বিষয়গুলোর ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ