• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন |

মাদকসেবিদের জন্য আর্শিবাদ নতুন ভূবন

Dinajpur Map-1মাহবুবুুল হক খান, দিনাজপুর: “নতুন ভূবন” মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র দিনাজপুরের মাদকাসক্ত যুবকদের জন্য আর্শিবাদে পরিণত হয়েছে। নামে যেমন নতুন ভূবন বাস্তবেও একজন মাদকাক্তকে নতুন জীবন ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে এ প্রতিষ্ঠানটি।
২০১১ সালের ২১ আগস্ট দিনাজপুর শহরের পূর্বপাশে বাস টার্মিনালের দক্ষিণে বিশ্বরোডে সিদ্দিকুর রহমান ইমনসহ শহরের কয়েক জন যুবক “নতুন ভূবন” নামে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রটি প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে কেন্দ্রটি মাদকাসক্ত যুবকদের মাদকের ছোবল থেকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। প্রতিষ্ঠার পর হতে এ যাবত এক হাজারের অধিক মাদকাসক্ত যুবককে নেশার ছোবল থেকে পিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।
এক সময় যারা মাদকাসক্ত ছিলেন মূলত তারাই এ প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলেছেন। বর্তমানে এ প্রতিষ্ঠানটিতে একজন নির্বাহী পরিচালকসহ ১১ জন কাউন্সিলর ও স্বেচ্ছাসেবক রয়েছেন। একজন নির্বাহী পরিচালক, ৫ জন কাউন্সিলর, ৩ জন স্বেচ্ছাসেবক, একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছেন। যারা সবাই মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ও আন্তরিকতায় মাদকাসক্ত যুবকদের চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটিতে সার্বক্ষিক একজন চিকিৎসক ও মনোরোগ বিশেষজ্ঞের তত্বাবধানে মাদকাক্তদের চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হয়। বর্তমানে এখানে ২০ জন মাদকাসক্ত রোগি চিকিৎসা নিচ্ছেন।
গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদিত ও লাইসেন্সপ্রাপ্ত “নতুন ভূবন” মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রটি এরই মধ্যে ১ হাজার ২১ জন মাদকাসক্ত রোগিকে আধুনিক ও মনস্তাত্বিক চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তুলেছে। যাদের বেশীরভাগ বর্তমানে সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবন-যাপন করছে।
প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক সিদ্দিকুর রহমান ইমন জানান, এই প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় রয়েছেন যারা এক সময় তারা সবাই মাদকাসক্ত ছিলেন। বর্তমানে তারা সবাই সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছেন এবং এ প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করছেন।
নির্বাহী পরিচালক ইমন জানান, প্রতিষ্ঠানটি সরকারী-বেসরাকারী কোন প্রকার সাহায্য-সহযোগিতা ছাড়াই নিজেদের উদ্যোগে পরিচালিত হচ্ছে। এখানে যারা চিকিৎসা নিতে আসেন মূলত তাদের নিকট থেকে প্রাপ্ত অর্থ দিয়েই প্রতিষ্ঠানের সার্বিক ব্যয় নির্বাহ করা হয়। তিনি জানান, একজন মাদকাসক্ত যুবককে সুস্থ করে তুলতে কমপক্ষে ৩ মাস সময়ের প্রয়োজন হয়। প্রথম দুই মাস তাকে মনস্তাত্বিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরবর্তী ১ মাস ফলোআপ সম্পন্ন করার পর মোটামুটি একজন মাদকাক্ত যুবক স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন।
নির্বাহী পরিচালক সিদ্দিকুর রহমান ইমন আরো জানান, এখানে ভর্তি হওয়া মাদকাসক্ত রোগিদের ৫ ওয়াক্ত নামাজ বাধ্যতামূলক। এ ছাড়া তাদের বিভিন্ন নৈতিক শিক্ষাও প্রদান করা হয়ে থাকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ