• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১১:৫৩ অপরাহ্ন |

ক্যাম্পাস আড্ডায় সাংবাদিকতা

journalist

মেহেদী তারেক, গণ বিশ্ববিদ্যালয়: সাংবাদিকতা যতোটা না পেশা তার চেয়ে অনেক বেশি ভালোলাগা আর নেশা। সবকিছু জানার সঙ্গে নেশাটির প্রধান উদ্দেশ্য দেশের জন্য, মানুষের জন্য কিছু করা। একজন চিকিৎসক যেভাবে মানুষকে মেধা, শ্রম দিয়ে সেবা করেন তেমনি একজন সংবাদিক তার মেধা আর শ্রম দিয়ে সমাজের চালচিত্র তুলে আনেন সবার সামনে। মানুষের মাঝে সচেতনা গড়ে তোলেন এমনভাবে যাতে ঘটনা আর মানুষের মাঝে দুরত্ব কমে যায়ে একেবারে। সাংবাদিকতা সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করে, সামাজিক দায়বদ্ধতা, মানবাধিকার সংরক্ষণ, অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধাচরণ, দুর্বল জনগোষ্ঠীর পক্ষ ধারণসহ নৈতিকতার ভিত্তি আছে বলে এ পেশা সমাজকে এগিয়ে নেয়, অনুপ্রাণিত করে।

পড়ন্ত বিকালে সূর্যের আলো যখন ম্লান চারপাশ, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসও ক্যাম্পাস ছেড়ে বেরিয়ে গেছে অনেক আগে। সারাদিনের প্রাণবন্ত ক্যাম্পাস তখন পরিনত হয়েছে এক পরম শূন্যতায়। বিকালের নরম ঘাসে পা ছড়িয়ে বসে আছে একদল তরুণ। সারাদিনের ক্লাস পরীক্ষা আর অ্যাসাইনমেন্ট এর পর শেষ বিকালের শেষ আড্ডা। মিলন, আহমেদ মনি, জনি, পলাশ, সাজু, সিহাব এদের আড্ডার বিষয়বস্তু সাংবাদিকতা। এরা গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের আবহে গড়ে ওঠা সাংবাদিক।

বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মধ্যে প্রথম সাংবাদিক সমিতি, গণ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (গবিসাস) এর সদস্য এরা। তাদের কেউ পড়াশুনা করছেন ফার্মেসীতে, কেউ আইনে, কেউবা বি বি এ আবার কেউ কেউ আছেন বাংলা কিংবা অণুজীব বিজ্ঞানে। নিজেদের নিয়মিত বিষয়ের পড়াশুনা কোন বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি এদের কাছে। এখানে গণ যোগাযোগ এবং সাংবাদিকতা নিয়ে পড়াশুনার জন্য কোন বিভাগ না থাকলেও উৎসাহ আর উদ্দীপনার কমতি নেই কারো। একটা নেশার মতো। এদের কারও সাংবাদিকতা বিষয়ে একাডেমিক শিক্ষা নেই। আছে সাংবাদিকতার প্রতি প্রচণ্ড ভালোবাসা আর নেশা। আর সেই সঙ্গে ক্যাম্পাসে সাংবাদিকতা করার বাস্তব অভিজ্ঞতা।

জ্ঞানার্জনের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা শুধু পড়াশুনা করে একটি সার্টিফিকেট নিতে আসিনি বললেন গবিসাসের রূপকার ও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আড্ডার মধ্যমণি হয়ে থাকা আসিফ আজাদ। সবাইকে উদ্দেশ্য করে বিজ্ঞের মত মানিক হঠাৎ বলে উঠলো ‘বাংলাদেশে অনেক সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিক সমিতি রয়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন সাংবাদিক সমিতি হল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশে প্রথম বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিক সমিতির ধারণা নিয়ে জন্ম হয় এই সংগঠনটি। দেশের অনেক সরকারী এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে গণ যোগাযোগ এবং সাংবাদিকতা বিভাগ থাকলেও সাংবাদিক সমিতি আছে অল্প কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়েই’।

‘আমাদের ক্যাম্পাসে রাজনীতি নেই, মারামারি নেই, বড় বড় পত্রিকার লিড নিউজ হওয়ায় মত ঘটনা নেই। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে আছে অনেক বাধা নিষেধ। তারপরও গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে সব ধরনের সাহায্য ও সহযোগিতা পাই বলেই শক্তি পাই সামনে এগিয়ে যাওয়ার- বলেন সোহান।

‘আমার বিশ্বাস, বস্তুনিষ্ঠ শান্তি বাদী সাংবাদিকতা এ প্রেক্ষাপটে যোগ্য ভূমিকা রাখতে পারে। কারণ নৈতিকতা সম্পন্ন বলিষ্ঠ সাংবাদিকতা একদিকে যেমন বিশ্বাসযোগ্য তথ্য সরবরাহ করে, অন্যদিকে তা কেবল নেতিবাচক বিষয়েই সীমাবদ্ধ থাকেনা, থাকতে হয় তাকে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন এবং নিরপেক্ষ পর্যালোচনায় সমাজকে শিক্ষিত ও দায়িত্ববান করার দায়িত্বেও। অন্যসব পেশা থেকে সাংবাদিকতার পার্থক্য এখানেই’। সঙ্গে আরও যোগ করেন মাসুদ আজিম।

সময় বয়ে যায়। মুয়াজ্জিনের কণ্ঠে ভেসে আসে আজানের সুমধুর ধনি। আড্ডা ছেড়ে উঠতে ইচ্ছা হয়না করোই। তবুও ফিরতে হবে নিজ নীড়ে। আরও একটি নতুন দিনের নতুন সূর্যের অপেক্ষায়। সাংবাদিকতা কোন চাকরি নয়, এটি এক ধরনের ভালোলাগা, এক ধরনের নেশা। এ নেশা ভালো কিছু করার। পৃথিবীর আর কোন পেশাতেই এতো স্বাধীনতা ও মানুষের জন্য কিছু করার এমন সুযোগ আর পাওয়া যাবে না। চাই নেশাটা থাকুক আজীবন। আর এই নেশা ছড়িয়ে পড়ুক সব সাংবাদিকের মধ্যে। এই প্রত্যাশায় সমাপ্ত হয় সাংবাদিকতা নিয়ে ক্যাম্পাস আড্ডা।

বাংলামেইল২৪ডটকম/


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ