• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০২:৫২ পূর্বাহ্ন |

বিশ্বের ১০ পর্যটন দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি : মেনন

menon1432282007.jpgসিসি ডেস্ক: বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, বিশ্বের ১০ পর্যটন দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি স্থান দখল করে আছে।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন খাত নিয়ে প্রাক বাজেট আলোচনায় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ২০১৬ সালকে পর্যটন বছর হিসেবে ঘোষণাকে নিয়ে আগামী অক্টোবর-নভেম্বর মাসে একটি আঞ্চলিক সম্মেলন করা হবে। ২০১৬ সালকে পর্যটন বছর হিসেবে ঘোষণা করার যে পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে সকলের সহযোগিতায় বাস্তবায়ন দেখা যাবে।

বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে পর্যটনে আগ্রহ বাড়ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, মানুষ ছুটি পেলেই ঘুরতে চলে যায়। বাসায় বসে থাকে না। এই জন্য বেসরকারি ট্যুর অপারেটরদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে। বেসরকারি ট্যুর অপারেটরদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে পর্যটনখাতের সম্ভাবনা বাড়ছে। বিদেশিরা এই দেশে আসতে আগ্রহ প্রকাশ করছে। এজন্য সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। দূতাবাসগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যাতে ভিসা জটিলতা আর একটু সহজ করে।

বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটনের সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান মো. ফারুক খান বলেন, ট্যুর অপারেটরদের মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে নির্দিষ্ট প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হয়েছে, আরো দেওয়া হবে। এই বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ে আলোচনা করতে হবে। অর্থ মন্ত্রণালয়ে আমার একটি পলিসি গাইড লাইন দেওয়া আছে।

তিনি বলেন, ট্যুর অপারেটর এবং শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য এয়ারপোর্টে টাকার বিনিময়ে ভিআইপি সার্ভিস চালু করা দরকার।

মুক্ত আলোচনায় বক্তারা বলেন, গত তিন মাসের রাজনৈতিক অস্থিরতায় ৬০০ কোটি টাকা নয় ক্ষতি হয়েছে হাজার কোটি টাকার ওপরে। কারণ পর্যটন খাতের সঙ্গে আরো অনেক খাত জড়িত। বাংলাদেশে যে পরিমাণ পর্যটক আসে তা হঠাৎ করে আসে না। পর্যটকদের থাকে একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। যখন দেশে কোনো রাজনৈতিক অস্থিরতা দেখা দেয়, তখন পর্যটকরা তাদের পরিকল্পনার পরিবর্তন করে।

বক্তারা বলেন, ২০১৬ সালকে পর্যটন বছর ঘোষণা করার আগে নির্দিষ্ট প্রস্তুতি আছে কিনা সে বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। এজন্য বাজেটে নির্দিষ্ট বরাদ্দ ও তার বাস্তবায়ন থাকতে হবে। কারণ এর আগে এই খাতে বরাদ্দগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন দেখা যায়নি। এ ছাড়া যে বেসরকারি খাত এই শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তাদেরকে সরকারের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত সহযোগিতা করা দরকার। এসময় বক্তারা এই খাতকে আরো প্রসার করতে আলাদা মন্ত্রণালয় দাবি করেন।

অ্যাভিয়েশন ট্যুরিজম জার্নালিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ (এটিজেএফবি) উক্ত আলোচনা সভার আয়োজন করে।
প্রাক বাজেট আলোচনায় আরো অংশগ্রহণ করেন, বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রফিকুজ্জামান, পর্যটন বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আক্তারুজ্জামান খান কবির, ক্যাবের চেয়ারম্যান এম সানাউল হক, ড. নাসির উদ্দীন, তোয়াবের পরিচালক সৈয়দ মাহবুবুল ইসলাম বুলু, বেঙ্গল গ্রুপের  নির্বাহী পরিচালক মাসুদ হোসেন, অ্যাটাবের সভাপতি মনজুর মোরশেদ প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ