• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১০:২৭ অপরাহ্ন |

স্কুলে ঝুলছে তালা!

chilmari-23-5-15হাবিবুর রহমান, চিলমারী : প্রধান শিক্ষক লায়লা আরজুমা বানুর নিয়মিত বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত, দায়সারা পাঠদান, উপবৃত্তির নাম দিতে উৎকোচ গ্রহন, ভূয়া নামে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ, অনুপস্থিত শিক্ষার্থীকে উপস্থিত দেখিয়ে বিস্কুটের হিসেবে গড়মিল ও ছিলিপ কমিটির টাকা আত্মসাৎসহ নানা অভিযোগে বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়েছে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও অভিভাবকমহল। এ ঘটনাটি কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার প্রত্যন্ত চরাঞ্চল ১নং শাখাহাতি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের।
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, বেলা ১২টায় ৩৫জন শিক্ষার্থী নিয়ে দায়সারা পাঠদান করছেন সহকারী শিক্ষক আয়শা খাতুন ও মিনারা আক্তার। স্কুল মাঠে ধান মাড়াই কল দিয়ে মাড়াই করা ধানের খড় শুকিয়ে মাঠেই স্তুপ করে রাখা হচ্ছে। তখনও জাতীয় পতাকা উত্তোলিত হয়নি।
বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য সেকেন্দার আলী (৫৫) অভিযোগ করে বলেন, প্রধান শিক্ষক লায়লা আরজুমা বানু এ বিদ্যালয়ে যোগদান করার পর থেকে এ বিদ্যালয়ে পাঠদান হয় না। মাসে ৭ দিনও স্কুলে আসেন না। সপ্তাহের কোন এক দিন এসে খাতা সই করে যান। তিনি উৎকোচ ছাড়া উপবৃত্তির নাম দেন না। আবার তিন মাস পর কার্ড সই করতেও ৫০ টাকা করে নেন। তিন জন শিক্ষক পালা করে স্কুলে আসেন। এসে শুধু শিক্ষার্থীদের নাম সই করে চলে যান। চিলমারী শিক্ষা অফিসে এসব অনিয়ম দূনীর্তির অভিযোগ দিয়েছিলাম কিন্তু কোন কাজ হয়নি। ফলে স্কুলে তালা ঝুলিয়েছি। তালা দেয়ার পর সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জাহিদ হাসান আমাকে ফোন দিয়ে বলেন আমি সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে ব্যাবস্থা নেব। আপনি তালা খুলে দেন। এরপর আমরা তালা খুলে দিয়েছি। সদস্য আব্দুল জলিল বলেন, ছিলিপ কমিটির বিদ্যালয় মেরামতের টাকা কাজ না করেই নিজে পকেটস্থ করেন। ওই এলাকার গ্রাম পুলিশ ওয়াহেদ আলী বলেন হেড ম্যাডাম চ্যালেন্স করে উপবৃত্তির নাম দিতে টাকা নেন। পরিচালনা কমিটির সদস্য জামাল উদ্দিন জানান, ম্যাডামের অনিয়ম দূর্নীতি চরমসীমা অতিক্রম করেছে। এর একটা বিহিত হওয়া দরকার। অভিভাবক রাশেদা খাতুন বলেন, এই স্কুলে পড়ালেখা হয় না। ফলে আমার তৃতীয় শ্রেণী পড়–য়া ছাত্র রাব্বিকে পাশের স্কুলে ভর্ত্তি করেছি, কিন্তু আমার ছেলের উপবৃত্তির টাকা তুলে নেন হেড ম্যাডাম। একই কথা বলেন রুনা, লিজা ও নিরব এর অভিভাবকরাও।
ওই গ্রামের জয়নাল আবেদীন বলেন, আমরা এ স্কুলের ছাত্র ছিলাম। প্রথম শ্রেণীতে আমরা নিজের নাম ঠিকানা লিখতে শিখেছি। এখন পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরাও তার নাম ঠিকানা লিখতে পারে না। এই যদি হয় লেখা পড়ার অবস্থা তাহলে আমাদের বাচ্চাদের ভবিষৎ কি? অভিভাবক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ম্যাডামরা নিজেদের সংসারের আয়ের জন্য চাকুরি করেন। বাচ্চাদের লেখাপড়া শেখানোর জন্য চাকুরি করেন না। এ ব্যাপারে সহকারি শিক্ষক আয়শা খাতুন বলেন, হেড ম্যাডাম দোষ করেন আর এর ফল আমাদের ভোগ করতে হয়। এর আগেও আমরা শোকজ খেয়েছিলাম। যে দিন স্কুলে তালা দেয় সেদিন আমি ছুটিতে ছিলাম। সহকারি শিক্ষক মিনারা আক্তার বলেন, আমরা মহিলা অনেক কষ্ট চরে আসি মাঝে মধ্যে ছুটি কাটাই। চরে পুরুষ টিচারদের দিলে ভাল হয়। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক লায়লা আরজুমা বানু বলেন, আমার বিরুদ্ধে সব অভিযোগ মিথ্যা। আসল ঘটনাটি হলো পিয়ন নিয়ে নিয়োগ নিয়ে কমিটির সাথে আমার মনমালিন্য চলছে। এজন্য তারা আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তুলছেন। উপবৃত্তির ছবি উঠানোর জন্য ৫০ টাকা করে নেয়া হয়েছে। আর অফিসের কাজে মাঝে মধ্যে উপজেলায় থাকতে হয়।
চিলমারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়ে তালা দেয়ার ঘটনাটি আমি জানতে পেরে তাৎক্ষনিক তালা খুলে দেয়ার ব্যবস্থা নিয়েছি। বাকি অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ