• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৪৬ অপরাহ্ন |

চাঁদপুরে রেলভূমি দখলের প্রতিযোগিতা

chandpur.চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথের গত ২/৩ মাস ধরে দুপাশে থাকা এবং রেলস্টেশন সংলগ্ন ভূমি দখলের প্রতিযোগিতা চালাচ্ছে কতিপয় ভূমিদস্যু। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় রেলওয়ের একশ্রেণির অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে এ দখল প্রক্রিয়া চলছে। চাঁদপুরের বেশ কটি স্থানে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বনায়ন ও মাছ চাষের নামে যৎসামান্য ভূমি বা ডোবা লিজ এনে তা ভরাট করে রাতারাতি গড়ে তুলছে স্থাপনা। চাঁদপুর শহর এলাকায় ছায়াবাণী সিনেমা হলের পাশ দিয়ে এক সময় সিএসডি গোডাউনে (জেলা খাদ্য গুদামে) রেলওয়ের মালবাহী বগি দ্বারা খাদ্য আনা-নেয়া করা হতো। যা স্বাধীনতার পরও কয়েক বছর চালু ছিল। গত ১৮/১৯ বছর যাবৎ এটি সম্পূর্ণ বন্ধ। কিন্তু এখনও রেল লাইনটি বিদ্যামান রয়েছে। এ লাইনে মালবাহী ট্রেন না চলায় কতিপয় ভূমিদস্যু পুরো রেল লাইনকে দখল করে স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করেছে। এমনকি বাণিজ্যিকভাবে মার্কেটও নির্মাণ করেছে। এদের মধ্যে কেউ কেউ রেলওয়ের অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে লিয়াজোঁ করে যৎ সামান্য বনায়নের নামে লিজ নিয়ে পুরো এলাকাটি জুড়ে স্থাপনা নির্মাণ করে দখলে নিয়েছে। অন্যদিকে চাঁদপুর-লাকসাম রেল লাইনের দুপাশে ৩০ ফুট করে ৬০ ফুট জমি রেলওয়ের অধীনে থাকলেও বর্তমানে তার অধিকাংশ বেদখল হয়ে আছে। চাঁদপুরের কিছু সংখ্যক ভূমিদস্যু ভূমি দখল করে তা ভরাট করে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে চলেছে। কাগজে কলমে সামান্য ভূমি লিজ থাকলেও ক্ষমতার দাপটে এরা তাদের ইচ্ছেমত ভূমি ভরাট করে বাণিজ্যিক স্থাপনা গড়ে তুলে রাতারাতি কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাচ্ছে। আর এর সুবিধাভোগী হচ্ছেন চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথের ভূমি কর্মকর্তারা। তারাও রাতারাতি লাখপতি হচ্ছে। এ বিষয়ে তাদের কাছে জানতে চাইলে তারা এক বিভাগ আরেক বিভাগের উপর দোষ চাপাচ্ছে।
চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথে মোট ১১টি রেলস্টেশনের আশপাশের ভূমি সম্পূর্ণ অবৈধভাবে দখল করে অসংখ্য স্থাপনা ও মার্কেট নির্মাণ করা হয়েছে। এমনকি শহরের গুরুত্বপূর্ণ কোর্ট স্টেশনের প্লাটফর্ম দখল করে গরু রাখার ঘর পর্যন্ত করা হয়েছে। মৈশাদী রেলস্টেশন লাগোয়া ভূমি দখল করে বহু বাণিজ্যিক দোকান নির্মাণ করা হয়েছে। যার ফলে রেলস্টেশনটিই এখন রক্ষা করা কঠিন হয়ে পড়েছে। এছাড়া অন্যান্য স্টেশনগুলোরও একই অবস্থা। এতকিছুর পরও রেলওয়ের কর্মকর্তারা দেখেও না দেখার ভান করছেন। রেলওয়ের লাকসামস্থ কানুনগো আব্দুল হালিম ভূমিদস্যু কর্তৃক অবৈধভাবে রেলওয়ের ভূমি দখলের কথা স্বীকার করে বলেন, আমাদের জনবল সংকটের কারণে আমরা এ ব্যাপারে ব্যবস্থাগ্রহণ করতে পারছি না। অবৈধ দখলকৃত স্থাপনার সংখ্যা চিহ্নিত করে রেল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ