• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৭ অপরাহ্ন |

’জুনুদ আল তাওহীদ ওয়াল খিলাফাহ’ নামে জঙ্গি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ

Dmp11433056628সিসি ডেস্ক: দেশে ভয়ংকর এক জঙ্গি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে বলে দাবি করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। জামাআতুল মুজাহিদীন, হরকাতুল জিহাদ, হিযবুত তাহ্‌রীর, আনসারুল্লাহ বাংলা টিম, তালেবান ও আইএসের পর এবার ‘জুনুদ আল তাওহীদ ওয়াল খিলাফাহ’ নামে একটি জঙ্গি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ এ সংগঠনের কো-অর্ডিনেটর আবদুল্লাহ আল গালিবকে আটক করেছে। তাকে আটক করার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ভয়াবহ ও চাঞ্চল্যকর তথ্য বের হয়ে আসে।

রোববার দুপুর ১২টায় ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার শেখ নাজমুল আলম এ জঙ্গি সংগঠনের বিস্তারিত তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, নতুন এই জঙ্গি সংগঠনের মূল কাজ হচ্ছে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের টার্গেট করে হত্যা, দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানো ও গণতান্ত্রিক সরকারকে উৎখাতের চেষ্টা করা। তবে কোন কোন বিশিষ্ট ব্যক্তি এদের টার্গেটে রয়েছেন, তা জানা যায়নি। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি (গালিব) স্বীকার করেছেন যে, তাদের টিমে ১০-১৫ জনের মতো নতুন সদস্য রয়েছে।

গালিবের জঙ্গি কার্যক্রম সম্পর্কে শেখ নাজমুল আলম বলেন, গালিব আরবি সরাসরি অনুবাদ করতে পারেন। তিনি ইরাক ও সিরিয়ার আদলে নতুন কর্মীদের সংগ্রহ করে বিভিন্নভাবে সশস্ত্র প্রশিক্ষণ দিতেন। এই প্রশিক্ষণের ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, নয়জনের মধ্যে দুজনের পায়ে কেডস রয়েছে। আর বাকিদের পায়ে কিছু নেই। অর্থাৎ এই দুজন প্রশিক্ষক। তারা বাংলাদেশের কোনো এক নির্জন জায়গায় প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালিয়েছে। তাদের উদ্দেশ্য দেশে খিলাফত প্রতিষ্ঠা করা।

গালিবের পারিবারিক ও ব্যক্তিগত পরিচয় সম্পর্কে উপকমিশনার বলেন, যশোর সদর উপজেলার লেবুপাড়ার মেজর (অব.) আবদুল্লাহ খোকনের ছেলে এই গালিব। তিনি ঢাকার প্লেপ্যান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে ‘ও’ লেভেল এবং ‘এ’ লেভেল পাস করেন। এরপর তিনি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি না হয়ে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে আতর বিক্রি করে বেড়াতেন।

নাজমুল আলম বলেন, আবদুল্লাহ আল গালিবকে অনেকদিন ধরেই খুঁজছিল গোয়েন্দারা। সবশেষ তাকে ওল্ড ডিওএইচএস বারিধারা এলাকার ২ নম্বর রোডের ২১১ নম্বর বাড়ি থেকে শনিবার মধ্যরাতে আটক করা হয়। এ সময় ওই বাসা থেকে একটি পাসপোর্ট, ৪টি হার্ডডিস্ক, ২টি পোর্টেবল হার্ডডিস্ক, ১০টি সিডি, ক্রিম কালারের মেইড ইন পাকিস্তান লেখা একটি টুপি, একটি সিপিইউ ও বিভিন্ন লেখকের ৪৩টি জিহাদি বই উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি তুরস্কে যাওয়ার জন্য কয়েকবার ভিসার জন্য আবেদনও করেছিলেন।

এ ঘটনায় ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা হয়েছে উল্লেখ করে আদালতের মাধ্যমে আসামিকে রিমান্ডে এনে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলেও জানান নাজমুল আলম।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ