• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৬:০৬ অপরাহ্ন |

‘ক্যানসার এড়িয়ে যাবার সুযোগ নেই’-অধ্যাপক ডা. মো. মোয়াররফ হোসেন

577_phtস্বাস্থ্য ডেস্ক: ‘বাংলাদেশে ১৮১ জনের মধ্যে ১ জন ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছে। সেই হিসাবে আমাদের দেশে ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে ১২-১৪ লাখ মানুষ ক্যানসারে ভুগছে। আর প্রতিবছর ২.৫০ লাখ মানুষ নতুন করে ক্যানসার রোগী হিসেবে শনাক্ত হচ্ছে। এদের মধ্যে প্রায় ১.৫০ লোক মারা যাচ্ছে।’ কথাগুলো বলছিলেন জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. মোয়াররফ হোসেন। ‘সাপ্তাহিক’-এর সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনায় ক্যানসারের পাশাপাশি অধ্যাপক ডা. মো. মোয়াররফ হোসেনের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার কথাও উঠে আসে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আরিফুর রহমান

সাপ্তাহিক : বর্তমান সময়ে রোগের মধ্যে ক্যানসার নামটি আতঙ্কের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেন ক্যানসার এত ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে।

অধ্যাপক ডা. মো. মোয়াররফ হোসেন : ক্যানসার তৈরি করে এমন পদার্থকে আমরা ক্যানসার প্রডিউসিং এজেন্ট বলি। আমাদের দেশে মানুষের এক সময় গড় আয়ু ছিল ৪০ বছর। এখন গড় আয়ু বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭০ বছরে। আমরা বলি, একজন মানুষ যত বেশি দিন বাঁচবে, ততদিন ধরে এই পরিবেশের মধ্যে ক্যানসার প্রডিউসিং এজেন্ট শরীরের মধ্যে লালিত হচ্ছে। এ জন্যই তার ক্যানসারে আক্রান্তের ঝুঁকি আস্তে আস্তে বেড়ে যাচ্ছে।
অনেকেই আমাকে জিজ্ঞাসা করে, ক্যানসার যেন না হয়, সেজন্য কী করতে হবে? এই প্রশ্নের উত্তর, আপনি জন্মগ্রহণ না করলেই ক্যানসার হবে না। আর জন্মিলে আপনাকে কোনো না কোনো ক্যানসারে (সবাই নয়) একটা পারসেন্টেজ আক্রান্ত হবেনই। এই মুহূর্তে আমরা তিনজন এই রুমে বসে রয়েছি। আমাদের তিনজনের মধ্যে একজনের জীবনে কোনো না কোনো পর্যায়ে ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক গুণ বেশি।
সাপ্তাহিক : অনেকেরই ধারণা, ক্যানসার হলেই বুঝি মৃত্যু! এ প্রসঙ্গে কী বলবেন?
মোয়াররফ হোসেন : আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে বলি, আমাদের দেশে ক্যানসারে আক্রান্ত রোগীদের শতকরা ৮০ জন আসেন রোগের শেষ পর্যায়ে। আমরা বলি, ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার শুরুতেই প্রাথমিক পর্যায়ে যদি চিকিৎসার জন্য আসে, তাহলে তাকে চিকিৎসা দেয়া সম্ভব। সেই চিকিৎসায় ক্যানসার ভালো হওয়া সম্ভব।

সাপ্তাহিক : ক্যানসার রোগটি কী? কীভাবে এটি মানব শরীরে প্রভাব বিস্তার করে চলেছে?

মোয়াররফ হোসেন : আমাদের মানবদেহের কোষগুলো প্রতিনিয়ত সুনিয়ন্ত্রিত ও একটা নিয়ম শৃঙ্খলা মেনেই কিন্তু বৃদ্ধি পায়। যেখানেই প্রয়োজন সেখানেই বৃদ্ধি পায়। যেখানে আবার প্রয়োজন নেই, সেখানে আবার কোষগুলো মরে যায়। শরীরের সুন্দর একটা সিস্টেম আছে। সে সিস্টেমটা কোষকে নিয়ন্ত্রণ করে। কোনো কারণে যদি একটি কোষ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়, তখনই আস্তে আস্তে টিউমার বা পিণ্ডের সৃষ্টি করে। এই টিউমার যেটি ক্ষতিকারক, সেটিকে আমরা বলি ক্যানসার।

সাপ্তাহিক : আমাদের শরীরে কত ধরনের ক্যানসার হতে পারে? বাংলাদেশের মানুষ কোন ধরনের ক্যানসার বেশি আক্রান্ত হয়?

মোয়াররফ হোসেন : শরীরের এমন কোনো জায়গা নেই, যেখানে ক্যানসার হবে না। আমরা বলি, হেড টু টো। অর্থাৎ মাথা থেকে শুরু করে পা পর্যন্ত যেকোনো জায়গার ক্যানসার হতে পারে।
আমাদের দেশে পুরুষরা ফুসফুসের ক্যানসার আর মহিলারা স্তন ও জরায়ুর ক্যানসারে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে। বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান এলাকায় তামাকের ব্যবহার খুব বেশি। তামাক সিগারেট হতে পারে, আবার সাদাপাতা হতে পারে। এছাড়া জর্দ্দা, গুল, খয়ার সবকিছুই কিন্তু তামাক। বাংলাদেশে এগুলো বেশি ব্যবহার করার কারণে যদি ১০০ জন ক্যানসারে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়, তাদের মধ্যে ৩০ জনেরই গলনালী, শ্বাসনালী, মুখগহ্বর, জিহ্বা ক্যানসারে আক্রান্ত। শুধু এ ক্ষেত্রে একমাত্র কারণ তামাকের বিভিন্ন ধরনের ব্যবহার। উন্নত বিশ্বে যদি ১০০ জন ক্যানসার রোগী শনাক্ত করা হয়, তাদের মধ্যে মাত্র ৩ থেকে ৫ জনের গলনালী, শ্বাসনালী, মুখগহ্বর ও জিহ্বার ক্যানসারে আক্রান্ত।

সাপ্তাহিক : ক্যানসারের উপসর্গ কীভাবে প্রকাশ পায়? আগে থেকে বোঝার কোনো উপায় আছে কি?

মোয়াররফ হোসেন : একেক জায়গায় একেক রকমভাবে ক্যানসার দেখা দেবে। ফুসফুসের ক্যানসারের কথাই বলি, ফুসফুসের ক্যানসারের রোগী অনবরত কাশতে থাকে। কাশতে কাশতে সে অস্থির হয়ে যায়। কাশির সঙ্গে রক্ত যায়। আবার ফুসফুসে টিউমার হয়ে বুকে বা শরীরের অন্য জায়গায় ছড়িয়ে গেলে, প্রচণ্ড ব্যথা হতে পারে। খুব শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। শ্বাসকষ্টের জন্য বসতে বা শুতে পারে না।

আবার মহিলাদের স্তনের ক্যানসারের কথাই বলি। অনেক মহিলার স্তনে চাকা ভাব থাকা সত্ত্বেও গুরুত্ব দেন না। মহিলাটির ধারণা, যেহেতু স্তনে চাকা থাকার কারণে ব্যথা বা কোনো ধরনের সমস্যা হচ্ছে না, তাহলে স্তনের ক্যানসারে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা নেই। এই ভাবে বিষয়টি হালকা ভেবে উড়িয়ে দেন। কিন্তু স্তনের অধিকাংশ চাকা, যেগুলোতে ব্যথা নেই। তারাই হলো নীরব ঘাতক। সুতরাং যাদের স্তনে চাকা আছে, তাদের উচিত এখনই ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেয়া। স্তনে সব চাকাই যে খারাপ, এটি আমরা বলি না। তবে, এই চাকা সময়মতো আপারেশন করে ফেলে দিতে হবে। আবার খারাপ হলে, ক্যানসার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ মতো চিকিৎসা নিতে হবে।

জরায়ুর ক্যানসারের ক্ষেত্রে অল্প বয়সী বিশেষত ২০ থেকে ৩৫ বয়সের মেয়েরাই বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে। জরায়ুর ক্যানসারের লক্ষণের মধ্যে মাসিক না হওয়া সত্ত্বেও তার বাচ্চা হবার (জরায়ুর) রাস্তা দিয়ে হঠাৎ করেই রক্ত বের হওয়া। স্বামীর সঙ্গে মিলনের পর জরায়ুর পথে রক্ত যাওয়া, জরায়ুর রাস্তায় ব্যথা হওয়া। দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব বের হওয়া। এ সমস্ত লক্ষণ দেখা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া উচিত। যদি জরায়ুর ভিতরের টিস্যু নিয়ে পরীক্ষা করা হয় তাহলে জরায়ুর ক্যানসার চিহ্নিত করা খুবই সহজ। অধিকাংশ ক্যানসারের উপসর্গ আগে থেকেই তেমন একটা প্রকাশ পায় না।

সাপ্তাহিক : প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যানসারে আক্রান্ত হলে কী করণীয়?

মোয়াররফ হোসেন : ক্যানসার চিকিৎসায় মোটামুটি আমাদের মূল স্তম্ভ তিনটি। সার্জারি বা শল্য চিকিৎসা, রেডিও থেরাপি বা বিকিরণ চিকিৎসা ও কেমোথেরাপি বা ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা।

যদি আমরা দেখি, রোগটি একই জায়গায় সীমাবদ্ধ, অন্য কোথাও যায়নি সে ক্ষেত্রে আমরা বা সার্জারি অথবা রেডিওথেরাপি চিকিৎসা প্রয়োগ করে থাকি। গলার গ্লান্ডে যে ক্যানসার লিম্ফোমা, এই ক্যানসারে সার্জারি করার দরকার নেই। এই ক্যানসার রেডিয়েশন বা কেমোথেরাপি দিয়ে ভালো করা যায়। তবে দেখতে হবে, এটি রেডিওথেরাপি বা কেমোথেরাপির জন্য সংবেদনশীল কি না। আর যে ক্যানসার একই জায়গায় সীমাবদ্ধ নেই ক্যানসারটি ছড়িয়ে পড়ছে। সে ক্ষেত্রে আমরা কেমোথেরাপি বা ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করে থাকি। কোন কোন ক্ষেত্রে রোগটি ছড়িয়ে না গেলেও, কেমোথেরাপি সংবেদশীলতার কারণে শুধু কেমোথেরাপি দিয়ে চিকিৎসা করা যায়। অনেক সময় একই রোগীকে তিনটি পদ্ধতিতে চিকিৎসা দিয়ে থাকি।

সাপ্তাহিক : আমাদের জানা মতে, ক্যানসারের মধ্যে একমাত্র স্তন ও জরায়ু ক্যানসারে আক্রান্ত হলেও রক্ষা পাওয়া যায়। এ ধারণা কি ঠিক?

মোয়াররফ হোসেন : অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রাথমিক পর্যায়ে যদি রোগ শনাক্ত হয়, তাহলে স্তন ও জরায়ু ক্যানসার ভালো হবার সম্ভাবনা অনেক বেশি। প্রাথমিক পর্যায়ে ১০০ জনের মধ্যে ৭০ থেকে ৮০ জনের ভালো হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এক্ষেত্রে আমরা বলি, ৫ বছরের নিচে এ ধরনের ক্যানসারে আক্রান্ত রোগী সহজে মারা যাবে না। শুধু ৫ বছর নয়, ২০ বছরও স্বাভাবিক মানুষের মতোই স্তন বা জরায়ু ক্যানসার নিয়ে বেঁচে থাকতে পারে। তবে অবশ্যই প্রাথমিক পর্যায়ে আসতে হবে।
আমি বার বার বলি, আমাদের কাছে শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ অন্তিম অবস্থায় ক্যানসার রোগ নিয়ে আসে। শুধু ক্যানসার নয়, যেকোনো রোগ অন্তিম পর্যায়ে নিয়ে এলে কোনো চিকিৎসকের পক্ষে কিছুই করা সম্ভব হয় না।

সাপ্তাহিক : ক্যানসারে কেউ আক্রান্ত হলে সে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে। পরিবারিক ও সামাজিকভাবেও ক্যানসার-আক্রান্তদের প্রতি এক ধরনের রুক্ষ আচরণ লক্ষ করা যায়। এ ক্ষেত্রে কীভাবে ক্যানসার-আক্রান্তদের সহযোগিতা করা প্রয়োজন?

মোয়াররফ হোসেন : প্রথমেই রোগীকে বুঝাতে হবে যেহেতু এই রোগ হয়ে গেছে, সেহেতু তাকে ধৈর্য ধরে চিকিৎসা করাতে হবে। মানুষ সমুদ্রে যখন পড়ে যায়, তখন বাঁচার জন্য চেষ্টা করে। সে বাঁচার জন্য যেকোনো কিছু পেলেই ধরার চেষ্টা করে। সুতরাং ক্যানসার হয়ে গেলে, ধৈর্যসহকারে চিকিৎসা নিতে হবে। অনেকেই বলে, ক্যানসার হয়ে গেছে। মরেই তো যাব। চিকিৎসা নিয়ে লাভ নেই। আমি বলি, ক্যানসার না হলেও তো মরে যেতে হবে। একটা মানুষের জ্বর হলে সে কি জ্বরের চিকিৎসা নেবে না? সে ও তো একদিন মারা যাবে।

আমি ক্যানসার সম্পর্কে ক্যানসার রোগীকে দুটি কথা বলি। এক. আপনার রোগ সেরে যাবার সম্ভাবনা অনেক বেশি। দুই. ক্যানসার রোগে যে কষ্ট, এই কষ্ট লাঘব করার অনেক ব্যবস্থা আছে। ১০০টি কষ্টের মধ্যে ৮০টি কষ্ট তো কমানো যায়। যতোদিন বেঁচে থাকবে, এই কষ্ট কমানো তো প্রয়োজনীয়। এখনও অনেক মানুষের ধারণা, ক্যানসার ছোঁয়াচে রোগ। কিন্তু আসলে ক্যানসার ছোঁয়াচে নয়।

ক্যানসার-আক্রান্তদের ক্ষেত্রে দেখা যায়, মা তার সন্তানকে কোলে নেবে। বাবা বলছেন, রাখো, রাখো। তার মনে ধারণা, ক্যানসার আক্রান্ত হলে বাচ্চাকে ধরলে বাচ্চাও আক্রান্ত হয়ে যাবে। অনেক স্বামী স্ত্রীর সঙ্গে অনেক দিন একই বিছানায়, একই সঙ্গে ঘুমিয়েছেন। তবে স্ত্রীর স্তন কিংবা জরায়ুর ক্যানসার ধরা পড়ার পর স্ত্রীর সঙ্গে একই বিছানায় ঘুমাচ্ছেন না। আস্তে আস্তে তাকে এড়িয়ে চলছেন। এতে করে মহিলা নিজেকে অপরাধী মনে করেন। নিজেকে অপ্রয়োজনীয় মনে করেন। এটি মনে রাখতে হবে, ক্যানসার কোনো ছোঁয়াচে রোগ নয়। সুতরাং তারা একই প্লেটে খেতে পারবেন। একই গ্লাসে পানি খেতে পারবেন। এতে তাদের কোনো অসুবিধা হবে না।

সাপ্তাহিক : ক্যানসারের চিকিৎসার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের কথা শোনা গেছে। এ ভ্যাকসিন কার্যকর করার ক্ষেত্র কোন পর্যায়ে রয়েছে?

মোয়াররফ হোসেন : জরায়ুর ক্যানসারের ভ্যাকসিনের ব্যবহার সারা পৃথিবীতে হয়। জরায়ুতে হিউম্যান পেপোলিমা ভাইরাসের কারণে জরায়ুর ক্যানসার হয়। যেসব মহিলার বয়স ১৩ থেকে ২৬, তাদের এই বয়সে যদি একাধিক যৌনসঙ্গী, উশৃঙ্খল জীবন যাপন থাকে কিংবা অপিরষ্কার চলাফেরা করার কারণে জরায়ূ আক্রান্ত হতে পারে। ওই সময়ে তার জরায়ুর ভিতরে একটি অংশ খুবই ভঙ্গুর থাকে। যৌন সর্ম্পক থাকার ফলে ওটি যদি ছিঁড়ে যায়, তখন হিউম্যান পেপোলিমা ভাইরাস জরায়ুর ভেতরে ক্যানসার সৃষ্টি করে। সেজন্য আমরা ১৩-২৬ বছরের মেয়েদেরকে ভ্যাকসিন নিতে পরামর্শ দিই। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চললে, অধিকাংশ ক্ষেত্রে এ রোগ থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব।

সাপ্তাহিক : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যানে বিশ্বে প্রতিবছর ক্যানসার ধরা পড়া মানুষের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৪০ লাখের মতো। বাংলাদেশে আক্রান্তের হার কেমন, আপনাদের গবেষণা কিংবা বাস্তব ফলাফলে কী চিত্র প্রকাশ পায়?
মোয়াররফ হোসেন : ডঐঙ-এর তথ্যমতে বাংলাদেশে ১৮১ জনের মধ্যে ১ জন ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছেন। সেই হিসাবে আমাদের দেশে ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে ১২-১৪ লাখ রোগী ক্যানসারে ভুগছে। আর প্রতিবছর ২.৫০ লাখ মানুষ নতুন করে ক্যানসার রোগী হিসেবে শনাক্ত হচ্ছে। এদের মধ্যে প্রায় ১.৫০ লোক মারা যাচ্ছে।

ক্যানসার চিকিৎসার জন্য প্রতিবছর ২.৫০ লাখ মানুষ নতুন করে শনাক্ত হলো। বাংলাদেশে বর্তমানে যে কয়টা ক্যানসার সেন্টার আছে সেসব সেন্টারে মাত্র ৫০ হাজার মানুষ চিকিৎসার আওতাধীন। বাকি ২ লাখ মানুষ কোথায় যায়? বাকি ২ লাখ হোমিওপ্যাথিক, কবিরাজি, পানিপড়া, ঝাড়ফুঁক, টোটকা চিকিৎসার দ্বারস্থ হচ্ছে। কারণ, একটি হলো অজ্ঞতা, আরেকটি হলো অর্থ। অর্থ আসলে বিরাট ফ্যাক্টর। ক্যানসার চিকিৎসা অনেকটা ব্যয়সাধ্য। এখন দিনাজপুর কিংবা পটুয়াখালীর মানুষ যদি ক্যানসারে আক্রান্ত হয়, তাহলে তার জেলার আশপাশে কোথাও রেডিওথেরাপির কোনো ব্যবস্থা নেই। সুতরাং তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আসতে হয়। আর ক্যানসার একদিনের চিকিৎসা নয়। একজন রোগীর চিকিৎসা দিতে ২৫-৩৫ দিন সময় লাগে। সুতরাং তাকে ঢাকায় দুই থেকে আড়াই মাস থাকতে হয়। রোগীকে শুধু একা নয়, তার সঙ্গে আত্মীয়স্বজনকেও থাকতে হয়। এতে করে ক্যানসারে আক্রান্ত রোগীর অনেক টাকা খরচ হয়। ক্যানসার চিকিৎসা একটি ব্যয়বহুল চিকিৎসা। এতে করে আস্তে আস্তে চিকিৎসার প্রতি অনীহা দেখা দেয়। এ কারণে অধিকাংশ মানুষ চিকিৎসার আওতায় আসছে না।

সাপ্তাহিক : ক্যানসার রোগীদের চিকিৎসার আওতায় আনার জন্য সরকারের কী কী পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন?

মোয়াররফ হোসেন : ক্যানসার চিকিৎসার ক্ষেত্রে পটুয়াখালী অঞ্চলের লোকজনের জন্য যদি বরিশালে কিংবা দিনাজপুর এলাকার লোকজনের জন্য রংপুরে ক্যানসার চিকিৎসার অবকাঠামো তৈরি করা যায়, তাহলে সে অঞ্চলের মানুষের ঢাকায় আসার দরকার পড়বে না। খরচ কমে যাবে, মানুষ আস্তে আস্তে চিকিৎসামুখী হবে।

সাপ্তাহিক : খাবার ও জীবনযাপনের ক্ষেত্রে কি ক্যানসারের কোনো যোগসূত্র রয়েছে?

মোয়াররফ হোসেন : কোনো খাবার এখন ভেজাল ছাড়া নেই। এই ভেজাল খাবার মানব শরীরে এক ধরনের রাসায়নিক বিক্রিয়া তৈরি করে। রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ফলে আমাদের নরমাল সেল ক্যানসারের পূর্বমুহূর্তে নিউটোজেনিক সেল তৈরি করে। যখনই আমাদের শরীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে, তখনই ওই নিউটোজেনিক সেল ক্যানসার সৃষ্টি করে।

সাপ্তাহিক : বংশগত কারণের ক্ষেত্রে জিনগত সম্পর্ক রয়েছে কি?

মোয়াররফ হোসেন : কিছু ক্যানসারের ক্ষেত্রে বংশগত সম্পর্ক অবশ্যই রয়েছে। যেমন, স্তন ক্যানসার। পরিবারের যদি মা, খালা, বোনের কারও স্তন ক্যানসার হয়ে থাকে তাহলে তাদের পরবর্তী প্রজন্মের ৩ গুণ বেশি ঝুঁকি থাকে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হবার। এ রকম কোলন ক্যানসারে (কোলোরেক্টাল ক্যানসার) পরিবারের সম্পর্ক রয়েছে। এছাড়া বাচ্চাদের রেটিনোব্লাসটোমা বা চোখে এক ধরনের ক্যানসার হয়ে থাকে। সেগুলোর সঙ্গে বংশগত সম্পর্ক আছে।

সাপ্তাহিক : ক্যানসার রোগীদের ক্ষেত্রে কখন আপনারা চিকিৎসার আশা ছেড়ে দেন।

মোয়াররফ হোসেন : আজকাল একটি কথা প্রায়ই শোনা যায়, হেলথ চেক আপ। হেলথ চেক আপের নামে কতগুলো পরীক্ষা করা হয়। এই পরীক্ষা করতে গিয়েই দেখা গেল, তার ফুসফুসে টিউমার বসে আছে। তবে, তার কোনো কমপ্লিকেশন নেই। এ ধরনের অনেক রোগীও আসে। আবার অনেক রোগী আছে, যাদের রোগ একেবারে শেষ পর্যায়ে। সে শুতে পারে না। বসতে পারে না। খেতে পারে না। কাশলে গলগল করে রক্ত বের হয়। আস্তে আস্তে সে দুর্বল হয়ে যায়। শরীর শুকিয়ে কাঠের মতো হয়ে যায়। আমরা এ পর্যায়ের ক্যানসারকে বলি পেলিয়েটিভ চিকিৎসা অর্থাৎ ভালো হবার আর সম্ভাবনা নেই, কিন্তু সাময়িকভাবে তাদের কষ্ট লাঘব করা যায়।

সাপ্তাহিক : ক্যানসার প্রতিরোধ কীভাবে করা সম্ভব বলে মনে করেন?

মোয়াররফ হোসেন : শুধু একটাই কথা, ধূমপান করবেন না। তাহলে ফুসফুসের ক্যানসার থেকে মুক্তি পেয়ে যাবেন। তামাক পাতা, জর্দ্দা খাবেন না। গুল, খয়ার, চুন খাবেন না। এছাড়া অল্প বয়সে বিয়ে না করা। অধিক সন্তান না নেয়া। অপরিচ্ছন্ন না থাকা। অনেক যৌনসঙ্গী না রাখা। আমরা যদি ধর্মীয় আচরণ মেনে চলি তাহলে মানুষ অনেকাংশে ক্যানসারের হাত থেকে রক্ষা পাবে।

সাপ্তাহিক : কোন কোন পরীক্ষার মাধ্যমে আপনারা ক্যানসার সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে থাকেন?

মোয়াররফ হোসেন : ক্যানসার নির্ণয় করার জন্য অনেক ধরনের পরীক্ষা রয়েছে। প্রথমেই রোগের লক্ষণ শুনি। তারপর আমরা ক্লিনিক্যালি এগজামিনেশন যেমন- রক্ত, এক্সরে, আল্টাসানোগ্রাম করে থাকি। চূড়ান্ত পর্যায়ে ওই জায়গায় টিস্যু নিয়ে হিস্টোপ্যাথলজি বা সাইটোপ্যাথলজি পরীক্ষা করে ক্যানসার শনাক্ত করি।

সাপ্তাহিক : বায়াপসি পরীক্ষা কারা করেন…

মোয়াররফ হোসেন : বায়াপসি যেকোনো সার্জন করতে পারেন। আমাদের দেশে অনেক সাইটোপ্যাথলজিস্ট রয়েছেন, তারা একটি নিডল দিয়ে, ওই জায়গার টিস্যু নিয়ে অণুবীক্ষণ যন্ত্র বা মাইক্রোস্কোপ দিয়ে পরীক্ষা করলে ধরা পড়ে ক্যানসার রয়েছে কি না।

সাপ্তাহিক : আমরা যতটুকু জানি, রেডিওথেরাপি চিকিৎসা হচ্ছে শরীরের ভেতরে তেজস্ত্রিয় রশ্মি প্রয়োগ করে ক্যানসার চিহ্নিত জায়গার কোষগুলো ধ্বংস করা। প্রশ্ন হলো, রেডিওথেরাপির মাধ্যমে ক্যানসার কি পুরোপুরি নির্র্মূল করা সম্ভব?
মোয়াররফ হোসেন : জরায়ুর ক্যানসার চিকিৎসার প্রাথমিক পর্যায়ে রেডিকেল সার্জারি অথবা রেডিকেল রেডিওথেরাপি দুটোরই চিকিৎসার ফলাফল একই। সুতরাং এটা সম্ভব। ভোকাল কর্ড স্বয়যন্ত্রের ক্যানসারের ক্ষেত্রে রেডিওথেরাপি দিয়ে ক্যানসার নির্মূল করা সম্ভব।

সাপ্তাহিক : কেমোথেরাপি অর্থাৎ এন্টি ক্যানসার (সাইটোটক্সিক) ড্রাগ বা ওষুধ ব্যবহার করে থাকেন। এই ওষুধের মধ্যে কোনটি ক্যাপসুল হিসেবে আবার বেশিরভাগ ক্ষেত্রে স্যালাইন অথবা সরাসরি রক্তে দিয়ে থাকেন। সে ক্ষেত্রে পরবর্তী সময়ে কী কী সমস্যা হতে পারে?

মোয়াররফ হোসেন : অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমরা বলি যে, কেমোথেরাপি বা রেডিওথেরাপি যেটিই নেয়া হোক না কেন, যদি দুটোই নেয়া হয়, তাহলে হয়তো দেখা গেল ৩ থেকে ৫ বছর পরে ১০০ জন রোগীর মধ্যে হয়তো ১ জনের ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকে। আবার হয়তো ১০ থেকে ২০ বছর পরে ১০০ জন রোগীর মধ্যে ১ বা ২ জনের অন্য রোগ সারকোমা বা এই ধরনের ক্যানসার হবার ঝুঁকি আছে। অনেকেই বলে, চুল পড়ে। এটা সাময়িক। কোমাথেরাপি যখন বন্ধ করে দিই, তার ঠিক ২ থেকে ৩ মাসের মধ্যে চুল গজানো শুরু করে। আর ৬ মাসের মধ্যে স্বাভাবিক অবস্থার মতো চুল গজিয়ে যায়।

সাপ্তাহিক : ক্যানসারের চিকিৎসা দেশেই কি সম্ভব, নাকি এখনও বিদেশের ওপর নির্ভর করতে হয়…

মোয়াররফ হোসেন : ক্যানসার চিকিৎসা একটা ফর্মুলার মতো। ফর্মুলা যদি বাংলাদেশে ২ আর ২-এ চার হয়, সেটা ভারতেও ২ আর ২-এ চার হবে। সিঙ্গাপুরেও ২ আর ২-এ চার হবে। এমনকি ইংল্যান্ড ও আমেরিকায়ও একই হবে। সুতরাং একটি ফর্মুলা কেনার জন্য বিদেশে যাবার প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না। কিন্তু যারা বিদেশ যায়, তারা ধনেও মরে, প্রাণেও মরে। সুতরাং একটি ফর্মুলা কেনার জন্য, বিদেশে যাবার দরকার নেই। যদি আমাদের দেশে একজন ক্যানসার বিশেষজ্ঞকে পছন্দ না হয়, তাহলে অন্য আরেকজন ক্যানসার বিশেষজ্ঞের কাছে যান। ২ জনের মতামত নেন। এখন ইন্টারনেটের যুগ। আপনি ইন্টারনেটে ক্যানসারের চিকিৎসা সব দেশে একই কি না, দেখে নিন। যদি দেখেন একই, তাহলে বিদেশ যাবার দরকার নেই।

সাপ্তাহিক : সরকারি এবং বেসরকারি পর্যায়ে ক্যানসারের চিকিৎসার খরচ কেমন হয়ে থাকে? গরিব মানুষেরা এ ক্ষেত্রে চিকিৎসা কীভাবে চালিয়ে যায়?
মোয়াররফ হোসেন : আমাদের দেশে নয়টি সরকারি হাসপাতালে এখন রেডিওথেরাপি সংবলিত ক্যানসার সেন্টার আছে। আর ছয়টি রয়েছে বেসরকারি হাসপাতালে। সরকারি হাসপাতালে স্তন ক্যানসারের রেডিওথেরাপির জন্য ১৪ হাজার ২০০ টাকা নেয়া হয়। আবার অনেক সময় এটি বিনা মূল্যেও দেয়া হয়। এই চিকিৎসায় বেসরকারি হাসপাতালে ২ থেকে ৩ লাখ টাকা খরচ হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সরকারি হাসপাতাল থেকে বেসরকারি হাসপাতালে প্রায় ২০ গুণেরও বেশি টাকা নেয়া হয়। গরিব মানুষকে চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালের ওপরই নির্ভর করতে হয়। আমাদের জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ও ইনস্টিটিউট হাসপাতালে সকাল ৭.৩০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত মেশিন চলে। অনবরত মেশিনগুলো চলতে থাকে। প্রায় প্রতিদিনই ৪৫০ থেকে ৫০০ রোগী চিকিৎসা পেয়ে থাকে।

সাপ্তাহিক : আপনি দেশের সর্বোচ্চ ক্যানসার গবেষণা ও ইনস্টিটিউটের পরিচালকদের পদে রয়েছেন। একাধারে দীর্ঘদিন ধরে ক্যানসার রোগীদের সেবা দিয়ে আসছেন। আপনার অভিজ্ঞতার আলোকে ক্যানসার রোগী ও সার্বিক চিকিৎসা সম্পর্কে বলতে বললে কী বলবেন?

মোয়াররফ হোসেন : আমাদের পুরনো যে আটটি মেডিকেল কলেজ আছে সেই আটটি কলেজে ক্যানসার চিকিৎসার সর্বাধুনিক সুযোগ সংবলিত সুবিধা দিতে হবে। তাহলে আজকে রংপুর কিংবা দিনাজপুর এলাকার মানুষকে ঢাকায় আসতে হবে না। বরিশাল এলাকার মানুষকে ঢাকায় আসতে হবে না। অনুরূপভাবে সিলেট অঞ্চলের মানুষের তো এখানে আসার দরকার নেই, যদি চট্টগ্রামে সেই সুযোগ সুবিধা থাকে। তাহলে রাঙামাটি, বান্দরবান এলাকায় মানুষকে ঢাকায় আসতে হবে না। এখন সেই এলাকার হাসপাতালে যদি ক্যানসার চিকিৎসার সুযোগ-সুবিধা না থাকে, তাহলে তো মানুষকে ঢাকামুখী হতে হচ্ছে। আর ঢাকায় এমনিতে খরচ বেশি। আর এই চিকিৎসা একদিনের চিকিৎসা নয়। অনেক দিনের চিকিৎসা। এই চিকিৎসা করাতে করাতে অনেকেই নিঃস্ব হয়ে যায়।

সুতরাং এই চিকিৎসার জন্য ওই হাসপাতালগুলোতে ক্যানসার চিকিৎসার সুযোগ-সুবিধা দিতে হবে। তার সঙ্গে সঙ্গে কিছু সেন্টার বিশেষ করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ও ইনস্টিটিউট হাসপাতাল, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কেন্দ্রগুলোতে ক্যানসার চিকিৎসার অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা থাকতে হবে, যাতে করে আমরা ক্যানসার চিকিৎসা দিয়ে বিদেশের সঙ্গে এগিয়ে যেতে পারি। সেজন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যেমন দরকার, তেমনি চিকিৎসার সরঞ্জামাদিও দরকার।
আজকে দেশের আনাচে কানাচে সাধারণ চিকিৎসার জন্য অনেক হাসপাতাল আছে। কিন্তু ক্যানসার চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত হাসপাতাল নেই। সুতরাং ক্যানসারের চিকিৎসার জন্য মানুষকে সুযোগ-সুবিধা দিতে হবে। মানুষকে ক্যানসার চিকিৎসার আওতায় আনতে হবে। মানুষকে বোঝাতে হবে, যত তাড়াতাড়ি বা প্রাথমিক স্টেজে চিকিৎসার জন্য আসবে তত বেশি ভালো থাকা যাবে। ক্যানসারকে এড়িয়ে যাবার সুযোগ নেই।

সাপ্তাহিক : ক্যানসার চিকিৎসার সাফল্য কত দূর পর্যন্ত এগিয়েছে? আশাবাদী কোনো সংবাদ রয়েছে কি?

মোয়াররফ হোসেন : আমাদের দেশে অনেক মহিলা স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে এখন দিব্যি ভালো রয়েছেন। তেমনি জরায়ুর মুখের ক্যানসারের চিকিৎসা করে অনেকেই ভালো আছেন। লিম্পোমা, গ্লান্ডের ক্যানসার, থাইরয়েড ক্যানসার চিকিৎসায় মানুষ দিব্যি ভালো হয়। ভালো হয়ে তারা সাধারণ মানুষের মতো জীবন যাপন করছে। মহিলাদের করিওকারসিনোমা ক্যানসার। এ ক্যানসারে ১০০ জনের মধ্যে ৯৯ জন ভালো হয়ে যায়। আশার কথা, অনেক ক্যানসার রয়েছে, যেগুলো চিকিৎসা করালে ভালো হয়ে যায়। তবে কথা একটা, শক্তি থাকতে আসতে হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে আসতে হবে। শক্তি শেষ করে, রোগের শেষ পর্যায়ে এলে ক্যানসার না হয়ে অন্য রোগ হলেও কিছুই করার উপায় থাকে না।

সাপ্তাহিক : আপনার ব্যক্তিগত প্রসঙ্গে ফিরতে চাই। আপনার বেড়ে ওঠা ও পড়াশোনা কোথায়?

মোয়াররফ হোসেন : আমার বাড়ি হাতিয়া দ্বীপে। আমি এসএসসি পর্যন্ত সেই দ্বীপেই পড়াশোনা করি। তারপর আমি চলে আসি ঢাকা কলেজে। ঢাকা কলেজ থেকে পাস করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ভর্তি হই। সেখান থেকে এমবিবিএস করে, একই বিষয়ে এফসিপিএস, ডিএমআরটি করি। বিদেশে আমি টাটা মেমোরিয়াল ক্যানসার হাসপাতাল, রিজোনাল ক্যানসার হাসপাতাল কেরালা, সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি হাসপাতাল, টেনটেকসন হাসপাতালসহ আরও অনেক হাসপাতালে ট্রেনিং নিয়েছি। আন্তর্জাতিক ক্যানসার সংস্থা এসকো, এসমো মেম্বারশিপ রয়েছে।

সাপ্তাহিক : চিকিৎসক হবার স্বপ্ন কখন থেকে দেখা শুরু করেন?

মোয়াররফ হোসেন : আমি ছোটবেলা থেকেই চিকিৎসক হবার স্বপ্ন দেখতাম। আমি ধর্মভীরু পরিবারের সন্তান। আমি সব সময় স্কুলে ফার্স্ট বয় ছিলাম। ওই সময় আমার মতো সব ছাত্রের ডাক্তার অথবা ইঞ্জিনিয়ার হবার স্বপ্ন ছিল। আমি অজো পাড়াগাঁয়ে বড় হয়েছি। খুব কাছ থেকে গ্রামের মানুষের দুঃখ-কষ্ট দেখেছি। চিকিৎসকের অভাব দেখেছি। চোখের সামনে মানুষকে কলেরায় মরতে দেখেছি। যে এইমাত্র কলেরায় মারা যাওয়া লোকটিকে দাফন করে এলেন, দেখা গেল দাফন করে বাড়ি আসতে না আসতে তিনিও কলেরায় আক্রান্ত হলেন। তাকেই আবার দাফন করলেন আরেকজন। তখন কোনো চিকিৎসক দেখতাম না। আমাদের দ্বীপে তো ছিলই না। পীর, দরবেশ এনে জিকির করাতেন। তারা বলত, এক চোখ নেই কলেরার। জিকির করছি, কলেরা পালাচ্ছে। এই রকম জিকির করলে, কলেরা পালাবে। আমার কাছে মনে হলো, না এভাবে চলতে পারে না। ভালো চিকিৎসকের দরকার আছে। মানুষকে বাঁচানোর জন্য এ দেশে চিকিৎসকের দরকার আছে। সেজন্য আমি সব সময় ভালো কিছু হবার চেষ্টা করেছি।

সাপ্তাহিক : কর্মজীবন শুরু কোথা থেকে?

মোয়াররফ হোসেন : এমবিবিএস পাস করার পর আমার প্রথম পোস্টিং দেয়া হলো রাঙামাটির রাজশূলা হিলট্রাকটে। নিজের মনে প্রশ্ন উঠল, আমি পোস্ট গ্রাজুয়েশন করব কী নিয়ে। মেডিসিন, সার্জারি না গাইনি। সেই সময়ে এগুলো খুব ভালো সাবজেক্ট। আমি ওগুলোর কিছুই নেইনি। কারণ, আমার জীবনের প্রথম ইচ্ছেই ছিল ক্যানসারের চিকিৎসক হবার। এই ইচ্ছের ছোট একটি কারণ রয়েছে। আমি যখন ইন্টার্নি করি, তখন আমার নানা পাকস্থলীর ক্যানসারে ভোগেন। নানাকে চট্টগ্রামে নিয়ে আসি। চট্টগ্রাম ফাইভ স্টার নামক একটি সাধারণ হোটেলে তিন মাস ছিলেন। কেউ বলে অপারেশন করে ফেল, কেউ বলে মেডিসিন নিতে। সেই সময় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের নামীদামি প্রত্যেক ডাক্তারকে দেখিয়েছি। তিন মাস পর নানাকে বাড়ি নিয়ে গেলাম। তখন আমার মনে হলো, সব রোগীকে চিকিৎসা দেয়া সম্ভব নয়। কোনো কোনো ক্যানসারে প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্ত হলে চিকিৎসা করলে সম্পূর্ণ ভালো হয়ে যায়। ক্যানসারে আক্রান্ত সব রোগীকে ভালো করা যাবে না। এখন কেউ যদি সঠিক সিদ্ধান্ত দিত, তাহলে টাকা খরচ করে বিদেশ যাবার দরকার হতো না।

সাপ্তাহিক : যে কথাটি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন।

মোয়াররফ হোসেন : মাদার তেরেসা হবার জন্য ভারতে যেতে হবে না। দেশেই গরিব, অসহায় ও দুস্থ ক্যানসার রোগীদের সেবা করেন, তাহলেই মাদার তেরেসার মতো হয়ে যাবেন। আমরা অনেকেই মসজিদ, মন্দির, ওরসে টাকা-পয়সা দিয়ে সাহায্য করে থাকি। কিছু পয়সা যদি ক্যানসার রোগীদের দেয়া যেত, তাহলে তারাও বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখতে পারতেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ