• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৬:০২ অপরাহ্ন |

বাংলাদেশেও ম্যাগি-আতঙ্ক

132603_1সিসি ডেস্ক: ভারতের পর বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়েছে ম্যাগি-আতঙ্ক। নড়েচড়ে বসেছে সরকারও। ইতোমধ্যে ম্যাগিসহ দেশের সব ব্র্যান্ডের ইন্সট্যান্ট নুডলস পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু করেছে বিএসটিআই। আগামী ৭ দিনের মধ্যে এর পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সহনশীল মাত্রার চেয়ে বেশি পরিমাণে সিসা থাকলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। বিশেষ করে শিশুদের জন্য তা মারাত্মক ক্ষতিকর হতে পারে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টিবিজ্ঞান ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ড. খুরশীদ জাহান যায়যায়দিনকে জানান, খাবারে মাত্রাতিরিক্ত সিসা থাকলে তা শরীরের প্রত্যেক অঙ্গে প্রভাব ফেলতে পারে। বিশেষ করে লিভার, কিডনি ও নিউরোলজিক্যাল সমস্যা বেশি হয়। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হয় শিশু-কিশোররা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সিসার মাত্রা নির্ধারণ করে দিয়েছে। এর চেয়ে বেশি হলেই এই সমস্যা হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান অনুষদের অধ্যাপক ড. নাজমা শাহীন জানান, সেখানে সিসা সেইফ লিমিটের ওপরে থাকলে স্বাভাবিক মানসিক গঠন ও বিকাশে বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউটের (বিএসটিআই) মহাপরিচালক ইকরামুল হক জানান, বাংলাদেশে ম্যাগি নুডলস তৈরি করে নেসলে বাংলাদেশ। আর ক্ষতিকর মাত্রায় সিসার উপস্থিতি পাওয়া গেছে নেসলে ইন্ডিয়ার তৈরি ম্যাগি নুডলসে। তাই ওই খবরে এখনো উদ্বিগ্ন নয় বিএসটিআই কর্তৃপক্ষ। তবে সতর্কতা হিসেবে ম্যাগি নুডলস সহ বেশ কয়েক ধরনের ইন্সট্যান্ট নুডলস বাজার থেকে নিয়ে পরীক্ষা শুরু করেছে বিএসটিআই।

তিনি আরো জানান, এ বিষয়ে জানতে নেসলের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হয়েছে সংস্থাটির পক্ষ থেকে। নেসলে বাংলাদেশের দাবি, তাদের পণ্যে ক্ষতিকর কিছু নেই। তবে শেষ পর্যন্ত ম্যাগি নুডলস পরীক্ষা করে তবেই পণ্যে ক্ষতিকর উপাদান আছে, নাকি নেই, সেই বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হবে।

বিএসটিআইর সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী গোলাম বাকী জানান, ইতোমধ্যে তারা ৫টি ব্র্যান্ডের নুডলস সংগ্রহ করেছেন এবং পরীক্ষায় দিয়েছেন। সেগুলোর ফল আসার পর তারা তাদের অবস্থান পরিষ্কার করতে পারবেন।

এদিকে, বাংলাদেশে প্রচলিত ম্যাগি নুডলসে সিসার অস্তিত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া না গেলেও দেশ-বিদেশে নেতিবাচক প্রচারণার কারণে এ দেশের বাজারে ম্যাগি নুডলস কেনাবেচায় বিরূপ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। মাত্র কয়েকদিন আগেও নগর-মহানগর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে অতিথি আপ্যায়ন এবং শিশু-কিশোরদের মুখরোচক খাদ্য হিসেবে ম্যাগি নুডলস শীর্ষ তালিকায় থাকলেও তা এখন এক লাফে তলানিতে এসে ঠেকেছে। অনেকের আশঙ্কা, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হলেও ভারতের মতো বাংলাদেশে বিক্রীত ম্যাগি নুডলসে ক্ষতিকর সিসা ও রাসায়নিক থাকতে পারে। কেননা, দেশে যেসব ম্যাগি নুডলস বিক্রি হয়, তার সঙ্গে ভারতে বিক্রীত ম্যাগি নুডলসের খুব একটা পার্থক্য নেই।

বিক্রেতারাও জানিয়েছেন, এক সপ্তাহ ধরে ম্যাগি নুডলসের বিক্রি আশঙ্কাজনক হারে কমে গেছে। বর্তমানে ৪ আকারের প্যাকেটে ম্যাগি নুডলস বিক্রি হয়। এর মধ্যে এক পিসের ম্যাগি নুডলস প্যাকেটের দাম ১৭ টাকা, ৪ পিসের প্যাকেট ৫০ টাকা, ৮ পিসের প্যাকেট ৯০ টাকা এবং ১২ পিসের প্যাকেট ১৯৫ টাকা। ৪ ও ৮ পিসের প্যাকেটের দাম সপ্তাহ তিনেক আগে কমানো হয়েছিল। পূর্বে ওই প্যাকেট দুটির দাম ছিল যথাক্রমে ৮৫ ও ১৩০ টাকা। এরপরও অন্য যে কোনো নুডলসের তুলনায় ম্যাগির বিক্রিতে ব্যাপক ধস নেমেছে।

রাজধানীর একাধিক দোকানির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আগে প্রতি সপ্তাহে এক পিসের ম্যাগি নুডলস গড়ে ৩০-৪০ প্যাকেট এবং অন্যগুলো মাসে ১৫-২০ প্যাকেট বিক্রি হতো। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে এক পিসের ম্যাগি নুডলস গড়ে ৫ থেকে ১০ প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে, ম্যাগি নুডলসের সরবরাহকারীদের অনেকেই তাদের এই পণ্য বিক্রিতে ধস নামার কথা নির্দ্বিধায় স্বীকার করেছেন। তবে তাদের কেউ সরাসরি এ ব্যাপারে কোনো বক্তব্য দিতে চাননি। সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের একজন কর্মকর্তা জানান, গত কয়েকদিন ধরে অনেক দোকানি ম্যাগি নুডলস রাখতে অনীহা প্রকাশ করছেন। এমনকি তাদের দোকানে মজুদ ম্যাগি নুডলস ফেরত দেয়ারও প্রস্তাব দিচ্ছেন কেউ কেউ।

তবে নেসলে বাংলাদেশের কর্পোরেট কমিউনিকেশন ম্যানেজার ফারাহ শারমীন আওলাদ জানান, ভারতে ম্যাগি তৈরি করে নেসলে ইন্ডিয়া। আর বাংলাদেশে নেসলে বাংলাদেশ ম্যাগি তৈরি ও বাজারজাত করে। বাংলাদেশের ম্যাগি নুডলস সম্পূর্ণভাবে দেশে উৎপাদিত। এর অধিকাংশ কাঁচামাল দেশের বাজার থেকেই নেয়া। ভারতের ম্যাগি নুডলসের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই।

দিলি্লতে বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা

এদিকে, সহনশীল মাত্রার চেয়ে বেশি পরিমাণে সিসা থাকায় ভারতের দিলি্লতে ‘১৫ দিনের জন্য’ ম্যাগি নুডলস বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একই সঙ্গে ম্যাগির উৎপাদক নেসলেকে উলি্লখিত সময়ের মধ্যে রাজধানীর বাজার থেকে বিদ্যমান ব্যাচের সব ম্যাগি নুডলস প্রত্যাহার করে নতুন ব্যাচের নুডলস সরবরাহের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে নতুন ব্যাচের নুডলস যথাযথভাবে পরীক্ষার পরই বিক্রির জন্য দোকানে রাখা যাবে বলেও নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়েছে।

দিলি্লর স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈনের বরাত দিয়ে বুধবার এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। দিলি্ল সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ম্যাগি ইন্সট্যান্ট নুডলসের ১৩টি প্যাকেট পরীক্ষা করে ১০টির মধ্যেই উচ্চমাত্রার সিসা পাওয়া গেছে। ম্যাগি নুডলসে মাত্রাতিরিক্ত সিসা পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে দিলি্লর অন্যসব ব্র্যান্ডের নুডলসও পরীক্ষার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, উচ্চমাত্রার সিসা ও মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট (এমএসজি) থাকায় ভারতজুড়ে ম্যাগি নুডলস পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। ভারতের গুজরাট, মহারাষ্ট্র, বিহার, হরিয়ানা, পাঞ্জাব ও হিমাচলের মতো বিভিন্ন রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে, এসব স্থানেও ম্যাগি নুডলস পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার কেরালায় সরকারচালিত ১৩০০ বিক্রয়কেন্দ্র থেকে ম্যাগি নুডলস সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে বুধবার কেরালার রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পরীক্ষায় সেখানকার ম্যাগি নুডলসে সিসার মাত্রা সহনীয় পর্যায়েই পাওয়া গেছে। আর এমএসজির পরীক্ষার ফল এখনো জানা যায়নি।

গোয়ার খাদ্য এবং ওষুধ প্রশাসনও (এডিএ) জানিয়েছে, তারা ম্যাগি নুডলসের যেসব নমুনা পরীক্ষা করেছে, তাতে মাত্রাতিরিক্ত সিসা (এমএসজি) পাওয়া যায়নি।

এদিকে, দিলি্লতে ১৫ দিনের জন্য ম্যাগি নুডলস বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ায় এদিন বোম্বে স্টক এঙ্চেঞ্জে নেসলের শেয়ারের দাম প্রায় ১০ শতাংশ কমে গেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, ভারতে নেসলের মোট আয়ের ২০ শতাংশের বেশি আসে ম্যাগি নুডলস বিক্রি থেকেই। ফলে ভারতে ম্যাগি নুডলস বিক্রি নিষিদ্ধ করা হলে নেসলে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বে।

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের ভোক্তা ও খাদ্যবিষয়ক মন্ত্রী রাম বিলাস পাসোয়ান বলেন, ম্যাগি নুডলসে থাকা উপাদান যদি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হয় এবং এ বিষয়ে অভিযোগ পাওয়া যায়, তাহলে এই কোম্পানির বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পশ্চিমবঙ্গ সরকার জানিয়েছে, ম্যাগি নুডলসসহ জনপ্রিয় আরো কয়েকটি স্ন্যাকস তারা পরীক্ষা করে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন। রাজ্য সরকারের ভোক্তাবিষয়ক মন্ত্রী সাধন পা-ে বলেন, “আমাদের কাছে ‘কুরকুরে’ ও ‘লেইস’-এর বিরুদ্ধেও অভিযোগ এসেছে। তাই আমরা এগুলোও পরীক্ষা করার নির্দেশ দিয়েছি।”

নেসলে ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তাদের পরীক্ষার ফল বলছে, ম্যাগি নুডলস ‘খাওয়ার জন্য নিরাপদ’। এছাড়া উত্তর প্রদেশ ব্যতীত ভারতের অন্য কোথাও বাজার থেকে ম্যাগি নুডলস প্রত্যাহার সংক্রান্ত কোনো আদেশ তাদের কাছে আসেনি বলেও প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

নেসলে জানিয়েছে, গত ৩০ এপ্রিল শুধু উত্তর প্রদেশের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেখানকার বাজারে থাকা ফেব্রুয়ারি ২০১৪ ব্যাচের সব ম্যাগি নুডলস প্রত্যাহার করে নিতে বলা হয়েছিল। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত আর কোনো রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এ ধরনের নির্দেশনা আসেনি বলে দাবি করা হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে।

প্রসঙ্গত, উত্তর প্রদেশের খাদ্য পরিদর্শকরা পরীক্ষাগারে ম্যাগি নুডলস পরীক্ষা করে ৮ বারের বেশি মাত্রাতিরিক্ত সিসা পাওয়ার পর ভারতের নিরাপদ ও মানসম্মত খাদ্য কর্তৃপক্ষ সব রাজ্য সরকারের কাছে চিঠি দিয়ে ম্যাগি নুডলসের নমুনা পরীক্ষার পরামর্শ দেয়।

উৎসঃ   যায়যায়দিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ