• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০২:১৯ পূর্বাহ্ন |

মে মাসে ১৩২ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স

dollar_140894সিসি ডেস্ক: প্রবাসী বাংলাদেশিদের পাঠানো রেমিট্যান্সে আগের অর্থবছরে নেতিবাচক প্রবাহ থাকলেও এবারে বাড়ছে। গত মে মাসে প্রবাসীরা প্রায় ১৩২ কোটি ডলার সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন। আগের বছরের একই মাসের তুলনায় যা ১০ কোটি ৩০ লাখ ডলার বা ৮ দশমিক ৪৮ শতাংশ বেশি। আর আগের মাস এপ্রিলের তুলনায় বেড়েছে ২ কোটি ১৪ লাখ ডলার এক দশমিক ৭৬ শতাংশ।
এতে করে চলতি ২০১৪-১৫ অর্থবছরের ১১ মাসে (জুলাই-মে) প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৩৮৭ কোটি ৪৭ লাখ ডলার, প্রবৃদ্ধি হার ৭ দশমিক ২১ শতাংশ। ২০১৩-১৪ অর্থবছরের একই সময়ে রেমিট্যান্স এসেছিল এক হাজার ২৯৪ কোটি ১৬ লাখ ডলার।
দীর্ঘ সময় ধরে বাংলাদেশের রেমিট্যান্স বাড়লেও ১৩ বছর পর গত অর্থবছরে তা কমে গিয়েছিল। ২০১৩-১৪ অর্থবছর প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের পরিমাণ ছিল এক হাজার ৪২৩ কোটি ডলার, যা তার আগের অর্থবছরের তুলনায় ২৩ কোটি ডলার যা এক দশমিক ৬১ শতাংশ কম।
আর ওই অর্থবছরের মে পর্যন্ত ১১ মাসে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় রেমিট্যান্স প্রবাহের হার ছিল ৩ দশমিক ৫৫ শতাংশ কম। রাজনৈতিক অস্থিরতাজনিত কারণে এমন হয়েছিল। এর  আগে সর্বশেষ ২০০০-০১ অর্থবছরে রেমিট্যান্স কমেছিল। আগের অর্থবছরের তুলনায় ওই অর্থবছরে ৬ কোটি ৭২ লাখ ডলার কম রেমিট্যান্স এসেছিল দেশে।
চলতি অর্থবছরে রেমিট্যান্স বাড়ার পাশাপাশি রফতানিতে মোটামুটি প্রবৃদ্ধি বজায় রয়েছে। একই সময়ে খাদ্যপণ্যসহ আমদানির চাপও কম রয়েছে। এতে করে বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। গত এপ্রিলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ প্রথমবারের মতো ২৪ বিলিয়ন ডলার ছাড়ায়। বৈদেশিক মুদ্রার এ রিজার্ভ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এ পরিমাণ অর্থ দিয়ে বাংলাদেশের সাত মাসের বেশি আমদানি দায় মেটানো সম্ভব।
এমন প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ ব্যাংক রফতানি উন্নয়ন তহবিল (ইডিএফ) ১৫০ কোটি ডলার থেকে বাড়িয়ে ২০০ কোটি ডলার নির্ধারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একই সঙ্গে রফতানিকারকের রিটেনশন কোটা (ইআরকিউ) হিসাবে অর্থ রাখার সীমা বাড়ানো হয়েছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত মে মাসে রাষ্ট্রীয় মালিকানার চার বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৪১ কোটি ৫৯ লাখ ডলার, যা আগের মাসে ছিল ৪০ কোটি ৪৬ লাখ ডলার।
মে মাসে বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে এক কোটি ৬৩ লাখ ডলার, যা আগের মাসে ছিল এক কোটি ৬৭ লাখ ডলার। বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৮৭ কোটি ডলার, যা এপ্রিলে ছিল ৮৫ কোটি ৬৬ লাখ ডলার। আর বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে এক কোটি ৬০ লাখ ডলার, যা আগের মাসে ছিল এক কোটি ৫৮ লাখ ডলার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ