• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন |

শিলিগুড়ি-নীলফামারী-কলকাতা রেলপথ চালু করতে আগ্রহী ভারত

rail-lineসিসি ডেস্ক: বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে ষাটের দশকের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হচ্ছে নরেন্দ্র মোদির সফর থেকেই। নতুন রেলপথ চালু নিয়ে তিনটি সমঝোতা স্মারক সই হবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র। এর আওতায় চালু হবে দ্বিতীয় মৈত্রী এক্সপ্রেস, যা চলবে খুলনা-যশোর-বেনাপোল-কলকাতা রুটে। ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৬৫ সালের পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধের পর বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে চালু থাকা যেসব রেলপথ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, সেগুলো আবারও নতুন করে চালু করতে একমত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ ব্যাপারে রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভুকে বিশেষ নির্দেশও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।এদিকে মোদির সফরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাউথ এশিয়ান ইউনিভার্সিটির শিক্ষা ও গবেষণা বিনিময় সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। বুধবার দিল্লিতে একটি অনুষ্ঠানে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেছেন, ঢাকাবিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সাউথ এশিয়া ইউনিভার্সিটির সমঝোতা স্মারকটি হবে এ অঞ্চলের অন্যান্য দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সম্পর্কের নতুন পথ সূচনার মাইলফলক।

কূটনৈতিক সূত্র জানায়, বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে সুনির্দিষ্ট রেলপথ নিয়ে আলোচনা হবে। বিশেষ করে আসামের করিমগঞ্জ থেকে সিলেট হয়ে কলকাতা পর্যন্ত, আগরতলা থেকে আখাউড়া হয়ে কলকাতা পর্যন্ত এবং শিলিগুড়ি থেকে নীলফামারী, ঈশ্বরদী হয়ে কলকাতা পর্যন্ত রেলপথ চালু করতে আগ্রহী ভারত। এর বাইরে রেলপথ নেই এমন এলাকা পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা হয়ে নতুন একটি রেলপথ চালুতেও আগ্রহ ভারতের। সে ক্ষেত্রে নতুন রেলপথ স্থাপনে সহায়তাও করতে চায় ভারত। অন্যদিকে বাংলাদেশ খুলনা-কলকাতা এবং যশোর-কলকাতা রুটে ট্রেন চালু করতে চাইছে। সব বিষয়ই আসবে নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের আলোচনায়।

সূত্র জানায়, খুলনা-কলকাতা রুট চালুর বিষয়টি চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। শুধু ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ছাড়পত্র পাওয়া গেলেই এ রুট চালু হবে। নরেন্দ্র মোদির সফরেই এই ছাড়পত্রের ব্যাপারে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ ছাড়া আগরতলা থেকে আখাউড়া পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প ভারতের আর্থিক সহায়তায় শুরু হলেও তা বর্তমানে বন্ধ রয়েছে জমি অধিগ্রহণ-সংক্রান্ত জটিলতার কারণে। এ জটিলতারও নিরসন হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এরই মধ্যে নতুন রেলপথ নির্মাণ ও রেলরুট চালুর ব্যাপারে বাংলাদেশ ও ভারতীয় পক্ষের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতা স্মারকের জন্য কার্যপত্র তৈরি করা হয়েছে। সমঝোতা স্মারকের পর রেল যোগাযোগ দ্রুত চালুর ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ কারণে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরের পর পরই রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক ভারত সফরে যাবেন।

নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফর নিয়ে বুধবার আনন্দবাজারের খবরে এসেছে, দু’দেশের মধ্যে নতুন রেলপথ চালুর বিষয়। খবরে বলা হয়, স্বাধীনতার আগে উত্তরবঙ্গ থেকে বর্তমান বাংলাদেশের সঙ্গে কলকাতা পর্যন্ত যেসব রেলপথ চালু ছিল, সেগুলো আবারও ফিরিয়ে আনতে চাইছে নরেন্দ্র মোদির সরকার। ২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর বাংলাদেশ-ভারতের ভেতরে নতুন করে রেল যোগাযোগ চালুর বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া শুরু হয়। মৈত্রী এক্সপ্রেস চালু হয়। ২০১১ সালে তৎকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সফরেও নতুন রেলরুট চালুর বিষয়টি আলোচনায় এসেছিল। বাংলাদেশ-ভারত রেলরুট চালুর মধ্য দিয়ে কলকাতার সঙ্গে আসাম, মিজোরাম, ত্রিপুরার সহজ যোগাযোগ চালুর লক্ষ্য থেকেই সে আলোচনা হয়। তবে পরে সে আলোচনা আর বেশি এগোয়নি। নরেন্দ্র মোদির সফরে এই রেল যোগাযোগ চালুর বিষয়ে কার্যকর আলোচনা ও উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে জানা গেছে।আগামী ৬ ও ৭ জুন নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরে উন্নয়ন, বাণিজ্য, যোগাযোগ, নিরাপত্তা, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা, পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা ও দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা সম্পর্কিত প্রায় ২০টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের কথা রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ