• বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ১১:৪২ অপরাহ্ন |

‘কেউ ভাবেনি দেশ এত দ্রুত এগিয়ে যাবে’

Red Chilli Saidpur

joy1ঢাকা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন পঁচাত্তরের পর বাংলাদেশের উন্নয়নের গতি এত স্লো ছিল যে কেউ ভাবতেও পারেনি, এত দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাবে।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ‘লেটস টক’ নামের একটি অংশগ্রহণমূলক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

আওয়ামী লীগের গবেষণাভিক্তিক প্রতিষ্ঠান সিআরআই ‘বাংলাদেশের মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়া : রূপকল্প ২০২১’ শীর্ষক এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। শহর-গ্রাম-নগরের প্রায় ২০০ তরুণ-তরুণী এ বিষয়ে তাদের অভিজ্ঞতা, অভিযোগ, মতামত, পরামর্শ জয়ের কাছে সরাসরি তুলে ধরেন।

জয় বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের যে ওয়াদা ছিল বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত করা। এখন যে ওয়াদা ছিল তার ছয় বছর আগে নিম্ম মধ্যম আয়ের দেশে পৌঁছেছে।

বাংলাদেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত হওয়ার অনুভূতি ব্যক্ত করে জয় বলেন, অবশ্য আমরা জানতাম যে, বাংলাদেশ নিম্ম মধ্যম আয়ের দেশ হবে। সেদিন আমি অত্যন্ত গর্বিত ছিলাম। কিন্তু অফিসিয়াল ঘোষণার অপেক্ষায় ছিলাম।

সজীব ওয়াজেদ বলেন, আমরা সবাই বেশ আনন্দিত ছিলাম। সেখানে (বিদেশে) যারা বাংলাদেশ নিয়ে চিন্তাভাবনা করে। বাস্তব কথা সেখানে অনেক আমার বিদেশীবন্ধু বান্ধব আছে। তারা হয়ত বাংলাদেশ সম্পর্কে তেমন জানে না। তবে তারাও শুনে আশ্চর্য।

কারণ বিদেশের মিডিয়ায় দেখা যায় বাংলাদেশ সম্পর্কে তেমন ভাল খবর আসে না। যেটা বাংলাদেশের মিডিয়াতেও দেখা যায়। ভাল খবর সাধারণত তেমন আসে না, খারাপ খরবই হয়ে যায় খবর।

বিদেশি মিডিয়াতে কিন্তু এধরনের সুখবর যায় না। তবে এখন যারা শুনে বাংলাদেশ এখন দারিদ্র দেশ নেয়, মধ্যম আয়ের দেশ। তখন তারা আশ্চর্য হয়ে যায়। এটা অল্প সময়ের মধ্যে কিভাবে হয়েছে।

আজকে আমরা যে গতিতে চলে এসেছি। ২০২১ সালে টার্গেট ছিল। সেটা আমরা ছয় বছর আগে করে ফেলেছি।

এটি হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই। তার আগে কিন্তু হয় নি। আমরাও আশ্চর্য হয়ে গেছি। বিশ্বাস ছিল যে করতে পারবো। আসলেই করতে পারবো কিনা সেটার একটি চ্যালেঞ্জ ছিল। কারণ তার আগে বিশ্বে বাংলাদেশ একটি দরিদ্র দেশ হিসেবে পরিচিত ছিল।

পচাত্তরের পর থেকে বাংলাদেশ এত স্লো গতিতে এগিয়েছে যে কেউ মনে করেনি বাংলাদেশ এত দ্রুত গতিতে এগুতে পারবে। তবে আমরা জানি, বাংলাদেশ কখন এগিয়েছে যখন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থেকেছে। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিল তখনও প্রায় এই গতিতে এগিয়েছিলাম। কিন্তু পরে  বিএনপি-জামায়াত যখন ক্ষমতায় আসে, তখন আবার পিছিয়ে নিয়ে যায়। তারপর সামরিক সরকার যখন ক্ষমতায় আসে, তখন আবার পিছিয়ে নিয়ে যায়।

তবে এবার আবার সেই গতিতে আমরা এগুতো পেরেছি। এটার কিন্তু পরিকল্পনা ছিল শুধুমাত্র একজনের । তিনি আমাদের বারবার বলেন সেই গল্প। সরকারের যে সমস্ত পরিকল্পনা দেখছেন, তার সমস্ত পরিকল্পনা কিন্তু নামকায়াস্তে সামরিক সরকার যখন ক্ষমতায় ছিল তখন ওনি (শেখ হাসিনা) জেলে বসে বসে এসব প্ল্যান করেছিলেন।

আওয়ামী লীগ সরকার যখন ক্ষমতায় আসবে এসব বাস্তবায়ন করবেন, এরকম পরিকল্পনা ছিল তার। এখন সেটি তিনি মানুষের ভোটে সুযোগ পেয়ে বাস্তবায়ন করার পরিশ্রম করছেন। আর তিনি হলেন প্রধানমন্ত্রী ও আমার মা শেখ হাসিনা।

তবে এখন আমাদের গর্বের বিষয়। আমাদের এত জনসংখ্যা। জমি এত কম। তারপরও সারাবিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছে। আমরা নিজেরাই পারি। কারো সাহায্য দরকার হয় না। আমরা নিজেরাই পারি দেশকে এত দ্রুত গতিতে এগিয়ে নিতে।

সরকারের দায়িত্ব খাদ্য, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা দেশের প্রত্যেকটি মানুষের জন্য নিশ্চিত করা এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, এখানে কিন্তু একটি কথা কেউ বলেন না। এগুলো তো বাস্তবায়ন হয় সরকারের অর্থে, দেশের মানুষের ট্যাক্সের অর্থে। তখন প্রশ্ন আসে, তাহলে অন্য সরকারগুলো কেন পারেনি। বাস্তব কথা হচ্ছে। এর দুটো কারণ- এক হল, আমাদের অর্থনীতির যত উন্নয়ন হয়েছে, সরকারের তত আয় বেড়েছে। এটা শুনে অনেক সাদা-চুল ওয়ালা বুদ্ধিজীবিরা প্রত্যেক বাজেটের সময় টেলিভিশনে গিয়ে মন্তব্য বলেন, এত বিশাল টাকার বাজেট, এটা অসম্ভব, এটা কিভাবে হয়, এটা তো বাংলাদেশে বাস্তবায়ন হবে না।

বাস্তব কথা হচ্ছে, সরকারের আয় বেড়েছে বলে বাজেট বেড়েছে। কারণ সরকারের অর্থনীতি বেড়েছে। অর্থনীতি বাড়লে অবশ্যই সরকারের আয় বাড়বে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ