• মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:৫৫ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র বরখাস্ত

mayor_amjadসিসি নিউজ: নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র  অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন সরকারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গত ২৯ জুলাই  রাষ্ট্রপতির পক্ষে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব (পৌর-১) মো. খলিলুর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে ওই আদেশ জারি করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে নীলফামারী জেলা প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নীলফামারীর ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. মুজিবুর রহমান  জানান,  উপ-সচিব খলিলুর রহমান স্বাক্ষরিত স্মারক  ৪৬, ০৬৩, ০২৭, ০১, ০০, ০০৫, ২০১৫, ১১৭৯/১ (৮) নম্বরের ওই আদেশটি গত বুধবার সন্ধ্যা ছয়টা ৪৬ মিনিটে ফ্যাক্স যোগে  নীলফামারী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এসে পৌঁছে।
পত্রে বলা হয়, যেহেতু আমজাদ হোসেন সরকার, পৌরসভার মেয়র সৈয়দপুর এবং  ২০০৯ সালের ৩ নভেম্বর সৈয়দপুর থানায় মামলা নম্বর-১,  ধারা ৩০৬ দন্ডবিধি জিআর নং- ১৩০/৯ (এস) এ  দাখিলীয় অভিযোগ বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক গৃহিত হয়েছে।  তাঁর দ্বারা পৌরসভার মেয়রের ক্ষমতা প্রয়োগ পৌরসভা তথা জনস্বার্থের পরিপন্থি এবং প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণ থেকে সমিচীন নয় মর্মে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে। সেহেতু সরকার তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।
স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর ৩১ (১) ধারার বিধান অনুযায়ী  সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকারকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। ওই আদেশটি জারি করে জনস্বার্থে অবিলম্বে কার্যকরের কথা বলা হয়েছে।
একই পত্রে স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯ এর ৩১ (২) উপ-ধারা অনুযায়ী আদেশ প্রাপ্তির তিন দিনের মধ্যে প্যানেল মেয়র-১ এর নিকট দায়িত্বভার হস্তান্তরের জন্য বলা হয়।
নীলফামারীর ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক (অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব) মো. মুজিবুর রহমান বৃহস্পতিবার বিকেলে পত্র প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বলেন, সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকারকে সাময়িক  বরখাস্ত হয়েছেন। গত বুধবার সন্ধ্যায় ফ্যাক্স যোগে ওই পত্র নীলফামারী  এসে পৌঁছেছে।

মামলা নং-১ এর সংক্ষিপ্ত বিবরণ:
সৈয়দপুর থানা পুলিশ সূত্র জানায়,  ২০০৯ সালের ২ নভেম্বর রাতে নিজ বাড়িতে আত্মহত্যা করেন সৈয়দপুর আদর্শ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ তওফা বেগম। আতহত্যার পূর্বে তিনি দু’টি চিঠি লিখে জান। পরের দিন  ৩ নভেম্বর সকালে পুলিশ অধ্যক্ষের মৃতদেহসহ ওই চিঠি দু’টি উদ্ধার করে।
ওই দিনই তওফা বেগমের স্বামী দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার ফতেজংপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আকতার হোসেন বাদি হয়ে সৈয়দপুর থানায় ধারা ৩০৬ দন্ডবিধিতে আতহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে মামলা (নং- ০১) দায়ের করেন।
অভিযোগ রয়েছে ২ নভেম্বর প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের এক সভায় প্রতিষ্ঠানের সাবেক সভাপতি আমজাদ হোসেন সরকারের কাছে ওই প্রতিষ্ঠানের গচ্ছিত মোটা অংকের  টাকা জমা ছিল। সেই টাকা   ফেরত চান অধ্যক্ষ তওফা বেগম। এতে সাবেক সভাপতি আমজাদ হোসেন সরকার  প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ তওফা বেগমকে চরমভাবে অপমানিত করেন আরও দুই ব্যক্তির সহযোগীতায়। অপমান সইতে না পেরে সভা শেষে বাড়িতে এসে আতহত্যা করেন অধ্যক্ষ তওফা বেগম।
অধ্যক্ষ তওফা বেগমের স্বামীর দায়েরকৃত মামলায়  মোট তিন জনকে আসামী করা হয়। এর মধ্যে আমজাদ হোসেন সরকারকে প্রধানসহ অন্য আসামীরা হলেন,  আমাজাদের ছোট ভাই ওই প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির সদস্য রশিদুল হক সরকার ও অফিস সহকারী ইসমাইল হোসেন।
সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন জানান, অধ্যক্ষ তওফা বেগমের লাশ উদ্ধারের সময় তাঁর হাতের লেখা দুটি চিঠি উদ্ধার করা হয়। একটি তিনি তার স্বামীকে অপরটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ব্যারিস্টার মোকছেদুল ইসলামকে উদ্দেশ্য করে লেখা।
অধ্যক্ষ তওফা বেগমের লেখা চিঠিতে আমজাদ হোসেন সরকার (প্রতিষ্ঠানের সভাপতি নীলফামারী-৪ আসনের বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য ও সৈয়দপুর রাজনৈতিক জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক), তাঁর ছোট ভাই সৈয়দপুর যুবদলের সাবেক সভাপতি রশিদুল হক সরকার ও কলেজের অফিস সহকারী ইসমাইল হোসেনকে  দায়ি করেন।
পাশাপাশি তিনি স্বামীর কাছে ক্ষমা চেয়ে বলেন, ‘আমি আজ ষড়যন্ত্রের শিকার । ওরা আমাকে বেঁচে থাকতে দিলোনা। আমাকে ক্ষমা করে দিও। তুমি তোমার ২ ছেলেকে আগলে রেখে মানুষের মতো মানুষ করবে।’
নীলফামারীর জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অক্ষয় কুমার রায় বলেন, ওই মামলায় পুলিশ আসামীদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দেয়। কিন্তু আসামীরা উচ্চ আদালতে মামলাটি পুনরায় তদন্ত চেয়ে আবেদন করলে মামলাটি পুনরায় তদন্ত হয়। তদন্ত শেষে পুলিশ দ্বিতীয় দফায় চলতি বছরের ২৮ জুন নীলফামারী জজ আদালতে আসামীদের বিরুদ্ধে চার্জশীট প্রদান করলে বিচারক তা গ্রহণ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!