• বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ০৩:৪১ পূর্বাহ্ন |

গলাধাক্কায় বিদায় হয়েছেন সকল আ’লীগ সা. সম্পাদক

Red Chilli Saidpur

145220_1সিসি ডেস্ক: শাসক দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের রাজনৈতিক ভাগ্য বিপর্যয়ের ঘটনাটি নতুন নয়। তার পূর্বসূরিদের অনেকেরই অবস্থা তারই মতো হয়েছিল। গলা ধাক্কা খেয়ে বিদায় নিয়েছেন, ‘সেট’ হয়েছেন কম গুরুত্বের পদে। কেউ ছিঁটকে পড়েছেন। ৬৬ বছরের পুরনো এই দলের প্রথম নাম ছিল আওয়ামী মুসলিম লীগ। তখন এর সাধারণ সম্পাদক ছিলেন টাঙ্গাইলের শামসুল হক। তার বিদায়ের মধ্য দিয়েই এই পদটিতে বসেন শেখ মুজিবুর রহমান। বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের শুরু থেকে স্বাধীনতা অর্জন পর্যন্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মেধাবী রাজনীতিবিদ তাজউদ্দিন আহমদ। কিন্তু স্বাধীনতা উত্তরকালে মন্ত্রিসভা থেকেই তিনি বাদ পড়েন আগে। পরে দলটি বাকশাল হয়ে গেলে তাকে তাতে রাখাই হয়নি। এমন রাজনৈতিক বিপর্যয়ের শিকার হয়েছেন অন্যান্য সাধারণ সম্পাদকরাও। এদের মধ্যে রয়েছেন আব্দুর রাজ্জাক, সাজেদা চৌধুরী, এম এ জলিল। তবে জিল্লুর রহমান কিছুটা বিশ্বস্ততা অর্জন করেন এই দলীয় পরিবারে। তারও কারণ ছিল আত্মীয়তার লিংক। : উল্লেখ্য, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়টি ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদকই চালিয়ে থাকেন। ’৯০ উত্তর সংসদীয় পদ্ধতির সরকারকালে তাই দেখা যাচ্ছে। দেশে সংসদীয় পদ্ধতির সরকার চালু হলে বিএনপির মহাসচিব (সাধারণ সম্পাদক) ব্যারিস্টার আব্দুস সালাম তালুকদার এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হন। সেই থেকেই লক্ষ্য করা যায় এই রীতি। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়কার আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দিন আহমদের বিদায় সুখকর ছিল না। মুক্তিযুদ্ধের সময়কার প্রবাসী সরকারের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলামের পুত্র সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বিদায়ও প্রীতিকর হচ্ছে না। দলীয় সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে তার বিদায় এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। এলজিআরডি মন্ত্রণালয়টি তার হাত থেকে চলে গেছে ইতিমধ্যেই। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে সাধারণ সম্পাদক ছিলেন এম এ জলিল। উত্তরাঞ্চলে আওয়ামী লীগের ভালো ফল আনলেও তার সঠিক মূল্যায়ন হয়নি বলে শোনা যায়। শেখ পরিবারের বলয়ের বাইরের কেউ আগামীতে সাধারণ সম্পাদক পদটি পাবেন বলে মনে করা হচ্ছে না। আপাতত নতুন এলজিআরডি মন্ত্রীই এই দায়িত্ব প্রচ্ছন্নভাবে চালাবেন বলেই ধারণা করা হচ্ছে। : আজকের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যাত্রা শুরু ১৯৪৯ সালে। তখন এর নাম ছিল আওয়ামী মুসলিম লীগ। এর প্রথম সভাপতি মজলুম জননেতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী। তখন এর সাধারণ সম্পাদক ছিলেন টাঙ্গাইলের শামসুল হক। তার বিদায় সুখকর ছিল না বলেই জানা যায়। রহস্যজনকও বলা হয়। তার পরিবার পরিজনও ভোগান্তির সম্মুখিন হন। তার স্থানেই বসেন শেখ মুজিবুর রহমান। আওয়ামী লীগ তার ৬৬ বছর পূর্তি পালন করলেও এর প্রথম সভাপতি সাধারণ সম্পাদককে সেভাবে সম্মান করে না বলে জানা যায়। : সবচেয়ে বড় কথা দলের সভাপতি শেখ মুজিবের অবর্তমানে দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তিনি যে বিরাট চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেন, মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশকে স্বাধীনতার সুফল বয়ে আনতে বিশেষ ভূমিকা রাখেন, তার যথাযথ মূল্যায়ন হয়নি। লক্ষ্য করলেই দেখা যায় মেহেরপুরের আমবাগানে যে স্বাধীন বাংলা সরকার প্রথম শপথ গ্রহণ করে তার ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলামের যথাযথ মূল্যায়ন হয়নি। এমন কি তার অন্যতম পুত্র সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সর্বশেষ অবস্থা টলটলায়মান। তাকে দলের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হলেও সেভাবে দেখা যায়নি। : শোনা যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার মতবিরোধ ছিল। এলজিআরডি মন্ত্রণালয়টি চলতো প্রধানমন্ত্রীর দফতরের ইশরায়। স্থানীয় সরকার পর্যায়ের প্রতিষ্ঠানগুলো সম্পর্কে সব সিদ্ধান্তই আসে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে। যার প্রমাণ নির্বাচিত মেয়রদের আমলাতন্ত্রের মাধ্যমে নাকানিচুবানি খাওয়ানো। প্রধানমন্ত্রীর একজন একান্ত সচিব (আব্দুল মালেক) এসব দেখতেন। কয়েকমাস হলো তাকেই এই মন্ত্রণালয়ের সচিব (এলজিআরডি) হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, মুজিব নগর সরকারের দুই কুশীলব সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও তাজউদ্দিন আহমদ স্বাধীনতা উত্তরকালে পাত্তা পাননি। দলের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে তাজউদ্দিন আহমদ একবার তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমানকে কুষ্টিয়ার মেহেরপুরস্থ ‘মুজিব-নগরে’ যেতে বলেছিলেন। শেখ মুজিব বিষয়টি পাত্তা দেননি। তবে ’৭২ সালের শেষ দিকে একবার মুজিব নগর পরিদর্শনে রাজি হয়েছিলেন শেখ মুজিব। সরকারি কর্মসূচিও হয়েছিল। সাংবাদিকরাও ঢাকা থেকে সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এই কর্মসূচি বাতিল হয়ে যায়। ফলে শেখ মুজিবের যাওয়া হয়নি সেই মুজিব নগরে। এ কারণে হয়ত এই সরকার মুজিব নগর সরকার সম্পর্কে অবমূল্যায়ন করে।

উৎস: বিডি টুডে


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ