• রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন |

সংখ্যালঘুদের ঝেড়ে কাশার সময় হয়েছে: বিএনপি

Red Chilli Saidpur

রিপনঢাকা: বিএনপির মুখপাত্র ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন সংখ্যালঘু হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেছেন, আপনাদের ঝেড়ে কাশার সময় হয়েছে। ইনিয়ে-বিনিয়ে বা ঘুরিয়ে পেঁচিয়ে নয়, সরাসরি বলুন; শাসক দলের মন্ত্রী-এমপি ও লোকেরা আপনাদের নির্যাতন করছে। সম্পত্তি দখল করছে। মেয়েদের ধর্ষণ করছে।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শুক্রবার বেলা ১১টায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, ধর্ম সম্পাদক মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সহ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি, আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ।

আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ বৃহস্পতিবার বলেছে; দেশের বিভিন্ন স্থানে শাসক দলের লোকেরা তাদের সম্পত্তি দখল করছে। তাদের মেয়েদের ধর্ষণ করছে। তারা প্রধানমন্ত্রীর বেয়াই স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর নাম উল্লেখ করে বলেছে, ফরিদপুরে হিন্দু জমিদার বাড়ির দেয়াল ভেঙে জায়গা দখল করা হচ্ছে। ঠাকুরগাঁওয়ের সংসদ সদস্য দবিরুল ইসলাম হিন্দু সম্প্রদায়ের ভূমি দখল করেছেন।

তিনি বলেন, প্রচার করা হয়, বিএনপি রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকলে দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ নির্যাতন ভোগ করে। কিন্তু প্রমাণিত হয়েছে, বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে হিন্দুদের সম্পত্তি জবর-দখল হয়। মানুষ নির্যাতনের শিকার হয়। বর্তমানেও শাসকদলের লোকদের হাতে বিশেষ করে মন্ত্রী-এমপিদের হাতে তারা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। তাদের সম্পত্তি দখল হচ্ছে। মেয়েরাও ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন।

”বিএনপি কোনো সংখ্যালঘু, সংখ্যাগুরু তত্ত্বে বিশ্বাস করে না” উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশি জাতীয়তার ভিত্তিতে এ দেশে আমরা সবাই বাংলাদেশি। আইন ও সংবিধান সম্মত অধিকারের দৃষ্টিতে সবাই সমান, আমরা এ তত্ত্বে বিশ্বাস করি।

তিনি জানান, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বারবার বলেছেন, ‘বাংলাদেশ থেকে কোনো মানুষ ভারতে অভিবাসী হয় না। কারণ তুলনামূলকভাবে আমাদের দেশ ভারতের চেয়ে শান্তির দেশ। এখানে ধর্মের নামে হানাহানি হয় না।’

বিজিবি মহাপরিচালককে ব্যর্থ উল্লেখ করে বিএনপির মুখপাত্র বলেন,সম্প্রতি বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্ত রক্ষা বাহিনীর ডিজি পর্যায়ে বৈঠক হয়ে গেল ভারতের রাজধানী দিল্লীতে। কিন্তু সে বৈঠকে আমাদের দেশের প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে বলে আমরা মনে করি না। বিজিবি ডিজি সেই বৈঠকে ভারতের বিএসএফের ডিজির কাছে আমাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী নিজের অবস্থান তুলে ধরতে ব্যর্থ হয়েছেন।

তিনি বলেন, বিজিবি ডিজি বলেছেন ফেলানী হত্যার বিষয়ে তার পরিবার চাইলে বিজিবি সহযোগিতা করবে। অথচ সারাদেশের মানুষ জানে ফেলানী হত্যার বিষয়ে ভারতের বিএসএফের বিচার নিয়ে ফেলানীর বাবা নারাজি দিয়েছেন। তিনি বিচারে ক্ষুব্ধ হয়েছেন। অথচ আমাদের বিজিবি ডিজি এ বিষয়ে জানেন না।’

রিপন বলেন,বৈঠকের শেষ দিন ছিল গতকাল । অথচ গতকালই নওগাঁ সীমান্তে আমাদের দেশের এক উপজাতি নাগরিক জারিয়া মুর্মুকে বিএসএফ পিটিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। অথচ এ সব বিষয়ে বর্তমান সরকার প্রতিবেশী রাষ্ট্রের কাছে জোরালোভাবে প্রতিবাদ করতে পারছে না। বিনা ভোটের সরকার হওয়ায় এ নির্বাচিত সরকারের মেরুদণ্ড দুর্বল। তারা নৈতিকভাবে দুর্বল হওয়ায় দেশের সার্বভৌমত্ব বিষয়ে প্রতিবেশীদের সঙ্গে যে ভূমিকা রাখার কথা তা রাখতে পারছে না।

তিনি বলেন,প্রচার করা হচ্ছে, বাংলাদেশ নাকি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। তাই যদি হয়, তাহলে আমাদের নাগরিকরা কেন ভারতের সীমান্ত থেকে গরু আনতে গিয়ে বিএসএফের হাতে নির্মমভাবে জীবন হারাচ্ছে। তাই যদি হয়, তাহলে মানব পাচারকারীদের হাতে পড়ে কিছুটা উন্নত জীবনের প্রত্যাশায় হাজার হাজার মানুষ সমুদ্রে ভেসে জীবন হারাচ্ছে কেন? নির্মম মৃত্যুর শিকারে পরিণত হচ্ছে কেন?

বিএনপির মুখপাত্র বলেন, সরকার কোনো কিছুই সামাল দিতে পারছে না। দেশের কোনো শ্রেণির মানুষই এদের প্রতি খুশি নয়। শুধু খুশি ৫ শতাংশ মানুষ। যারা এ সরকারকে ভোট দিয়েছে। বাকি ৯৫ শতাংশ মানুষই এ সরকারকে আর দেখতে চায় না।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ