• রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ১১:৫৭ অপরাহ্ন |

পুরনো শুল্ক স্টিকারের সিগারেট প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে নতুন দামে

আকিজ গ্রুপসিসি ডেস্ক: ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানি উৎপাদিত প্রিমিয়াম ক্যাটাগরির সিগারেট বেনসন অ্যান্ড হেজেস। খুচরা বাজারে ২০ শলাকার প্রতি প্যাকেট সিগারেট বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকায়। যদিও এখনো অধিকাংশ মোড়কে খুচরা মূল্য লেখা আছে ১৮২ টাকা।

গত ৫ জুন ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এতে সিগারেটের দাম বাড়ানোর ঘোষণা ছিল। কিন্তু তখন নতুন উৎপাদিত কোনো সিগারেট বাজারে ছিল না। আগের দাম অনুসারে রাজস্ব পরিশোধ করা সিগারেট ওইদিন থেকেই বাড়তি দামে বিক্রি শুরু করে কোম্পানিগুলো। আর এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কয়েক হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন সিগারেট কোম্পানি ও ব্যবসায়ীরা।

বাজেটে নিম্নতম মানের সিগারেটের প্রতি ১০ শলাকার দাম নির্ধারণ করা হয় ১৮ টাকা। বর্তমানে বাজারে এ মানের সিগারেট রয়েছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর পাইলট, হলিউড ও ডারবি। এ সিগারেটগুলো প্রতি প্যাকেটে থাকে ২০ শলাকা। সে হিসাবে প্রতি প্যাকেট সিগারেটের খুচরা দাম হওয়ার কথা ৩৬ টাকা। প্যাকেটের গায়েও এ দাম লেখা রয়েছে। উৎপাদনকারী কোম্পানিই এ দামে সিগারেট সরবরাহ করছে। ফলে পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা মুনাফার জন্য আরো বেশি দামে বিক্রি করছেন। বর্তমানে খুচরা পর্যায়ে প্রতি প্যাকেট এ মানের সিগারেট বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। অর্থাৎ নির্ধারিত দরের ১৪ টাকা বেশি দামে  বিক্রি হচ্ছে এটি। যদিও বাজেটের আগে এসব সিগারেট প্রতি প্যাকেটের দাম ছিল ৩০ টাকা।

ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর মধ্যম মানের সিগারেট স্টার। বাজেটের আগে ২০ শলাকার এক প্যাকেটের দাম ছিল ৭০ টাকা। বর্তমানে তা ৯০ টাকা। খুচরা পর্যায়ে বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। কোম্পানিটির উচ্চমানের সিগারেট গোল্ড লিফ, পলমল ও ক্যাপেস্টান। বাজেটের আগে ২০ শলাকার এক প্যাকেটের গায়ের দাম ছিল ১০৮ টাকা। বর্তমানে তা ১৪০ টাকা। কিন্তু খুচরা পর্যায়ে বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়।

অভিযোগ উঠেছে, বাজেট ঘোষণার দুই মাসেরও বেশি সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও এখনো কোম্পানিগুলো পুরনো সিগারেট সরবরাহ করছে। তাও আবার নতুন দামে। অন্যদিকে বাজেটের আগে একশ্রেণীর ব্যবসায়ীও বিপুল পরিমাণ সিগারেট কিনে গুদামজাত করে রেখেছিলেন। এখন সেগুলো বেশি দামে বিক্রি করছেন তারা। এ প্রক্রিয়ায় ভোক্তাদের কাছ থেকে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নেয়া হলেও সে অনুযায়ী রাজস্ব পাচ্ছে না সরকার।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর এক কর্মকর্তা জানান, বাজেট ঘোষণার পর থেকেই তারা নতুন রেটে সিগারেট বিক্রি শুরু করেন এবং নতুন নিয়মানুযায়ী শুল্ক ও ভ্যাট পরিশোধ করেন। কিন্তু জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মকর্তারা জানান, সিগারেটের প্যাকেটের গায়ে যে দাম লেখা থাকে, সে দাম অনুসারে কোম্পানিগুলো শুল্ক ও ভ্যাট পরিশোধ করে। এক্ষেত্রে বাড়তি যে দাম নেয়া হচ্ছে, তা থেকে শুল্ক পাচ্ছে না সরকার।

বর্তমানে প্রিমিয়াম ও উচ্চমানের ক্ষেত্রে ১০০ টাকার সিগারেট বিক্রি হলে ৬৩ টাকা সম্পূরক শুল্ক, ১৫ টাকা ভ্যাট ও ১ টাকা সারচার্জ পায় সরকার। অর্থাৎ ১০০ টাকায় ৭৯ টাকা পায় সরকার। মধ্যম মানের ক্ষেত্রে ৬১ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক, ১ শতাংশ সারচার্জ ও ১৫ শতাংশ ভ্যাট মিলে শতকরা ৭৭ টাকা জমা হয় সরকারের কোষাগারে। নিম্নতম মানের ক্ষেত্রে ৪৮ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক, ১ শতাংশ সারচার্জ ও ১৫ শতাংশ ভ্যাট মিলে শতকরা ৬৪ টাকা পায় সরকার। ফলে বাজেট ঘোষণার পর প্যাকেটের গায়ের দামের অতিরিক্ত যে অর্থ নিয়েছে কোম্পানিগুলো, তার পুরোটাই তাদের নিট আয় হিসেবে পরিগণিত হয়েছে।

ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর মতো একই কায়দায় বাজার থেকে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে আকিজ গ্রুপের ঢাকা টোব্যাকো। কোম্পানিটির নিম্নতম মানের শেখ সিগারেটের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে বাজারে। ২০ শলাকার এক প্যাকেটের দাম ৩৬ টাকা। কিন্তু বাজারে এখনো আগের ৩০ টাকা দামের সিগারেট সরবরাহ করা হচ্ছে। খুচরা পর্যায়ে তা বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকায়। কোম্পানিগুলোই খুচরা মূল্যে সিগারেট সরবরাহ করায় ইচ্ছামতো দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছেন খুচরা বিক্রেতারা। এতে বাজারে এক ধরনের নিয়ন্ত্রণহীনতা দেখা দয়েছে। একই মানের আবুল খায়ের টোব্যাকোর ম্যারিজ সিগারেটও বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। আর ঢাকা টোব্যাকোর নেভি সিগারেটও গায়ের দামের চেয়ে ১০ টাকা বেশিতে বিক্রি হচ্ছে ২০ শলাকার প্রতি প্যাকেট।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা টোব্যাকোর ডেপুটি ম্যানেজার আনোয়ারুল হক হায়দার কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

বাজারে বাড়তি দামে সিগারেট বিক্রি করে রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেন, সিগারেট কোম্পানিগুলো প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান। তারা যদি এমনটি করে, তাহলে তা ব্যবসার নৈতিকতার পরিপন্থী। তাদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগের প্রমাণ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বর্তমানে দেশে সিগারেটের বাজার প্রায় ২৭ হাজার কোটি টাকার। খাতটি থেকে সম্পূরক শুল্ক, ভ্যাট ও সারচার্জ থেকে রাজস্ব প্রাক্কলন করা হয়েছে প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু সব ধরনের সিগারেটই বাড়তি দামে বিক্রি করায় অনানুষ্ঠানিকভাবে কোম্পানি ও ব্যবসায়ীদের পকেটে চলে যাচ্ছে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা। মূলত কোম্পানিগুলো গায়ের দামে সিগারেট সরবরাহ করা এবং ডিলারদের কমিশনর কম দেয়ায় পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা সর্বোচ্চ খুচরা মূল্যের চেয়ে ২০-৩০ শতাংশ বেশি দামে সিগারেট বিক্রি করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন।

বর্তমানে সিগারেটের সবচেয়ে বড় মার্কেট শেয়ার ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর। তাদের বার্ষিক টার্নওভার প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে তারা করপোরেট কর পরিশোধ করেছে ৩৬০ কোটি টাকার মতো। এর পরের অবস্থানে রয়েছে ঢাকা টোব্যাকো। তাদের টার্নওভার প্রায়

সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকা। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে কর পরিশোধের পরিমাণ প্রায় ১২ কোটি টাকা। আর আবুল খায়ের টোব্যাকোর টার্নওভার প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে কর পরিশোধের পরিমাণ আড়াই কোটি টাকা।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!