• মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে ট্রেন-পুলিশ পিকআপ ভ্যানের সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

Faruk Hossain- সিসি নিউজ: নীলফামারীর সৈয়দপুরে ঢেলাপীরে আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের ধাক্কায় পুলিশের একটি পিকআপভ্যানে থাকা আহত চার পুলিশ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় সৈয়দপুর থানার ওসিসহ চিকিৎসাধীন অপর সাত আহতের মধ্যে শনিবার চার জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে।
প্রত্য্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সৈয়দপুর শহরের অদুরে  ঢেলাপীর-পোড়ার হাট সড়কের রেলগেটে পার হওয়ার সময় নীলফামারী থেকে ছেড়ে Maidul Islam আসা ঢাকাগামী আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের সাথে সৈয়দপুর থানা পুলিশের পিকআপ ভ্যানের সংর্ঘষ হয়। এতে পুলিশের ভ্যানটি ছিটকে নিচে পড়ে যায়। এসময় ভ্যানের ভেতর থাকা সৈয়দপুর থানার ওসি ইসমাইল হোসেনসহ ১১ পুলিশ সদস্য আহত হন।
আহতদের উদ্ধার করে সৈয়দপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কনস্টেবল সামসুল মারা যান। পরে সেখান থেকে আহত বাকীদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হলে সেখানে কনস্টেবল শরিফুল ও মাহিদুল মারা যান। এদিকে Samsul Alamশনিবার সকালে ফারুক হোসেন নামের আরো এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু হয়।
নীলফামারীর সহকারী পুলিশ সুপার (সৈয়দপুর সার্কেল) এ.এস.এম সাজেদুর রহমান জানান, শুক্রবার রাতে গোপন তথ্যের প্রেক্ষিতে পিকআপভ্যান ও মোটরসাইকেল যোগে সৈয়দপুর থানার ওসি ইসমাইল হোসেনের নেতৃত্ব ১৫ সদস্যের পুলিশের একটি অভিযানিক দল উপজেলার বোতলাগাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের দিকে যাচ্ছিল।
এসময় শহরের Shariful islam-অদুরে ঢেলাপীর-পোড়ার হাট নামক স্থানে রেলগেট পার হবার সময় নীলফামারী থেকে ঢাকাগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের ধাক্কা লাগে পিকআপের পেছেনের অংশে।  এ দূর্ঘটনায় ওই পিকআপ ভ্যানে থাকা ওসিসহ ১১ জন পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নেয়ার সময় নিহত হন পুলিশ কনস্টেবল সামসুল ইসলাম (নং ২৮৫)। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাকী ১০জনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া পথে মারা যায় পুলিশ কনস্টেবল শরিফুল ইসলাম (নং ৬৮৫)। এরপর সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মধ্য রাতে মাইদুল ইসলাম (নং ৩৭৫) ও শনিবার সকালে ফারুক হোসেন (নং ৪২০) মারা যায়।
এঘটনায় অপর আহতরা হলেন, সৈয়দপুর থানার ওসি মো. ইসমাইল হোসেন, উপ-পরির্দশক নাজমুল হোসেন, সহকারী উপ-পরিদর্শক আব্দুল আজিজ, কনস্টেবল মো. কবির হোসেন, রিপন চন্দ্র চৌধুরী , মো. সাদ্দাম হোসেন ও পিকআপ  ভ্যান চালক মোকছেদ আলী। এদের মধ্যে উপ-পরিদর্শক নাজমুল হোসেন, সহকারী উপ-পরিদর্শক আব্দুল আজিজ, কনস্টেবল মো. সাদ্দাম হোসেন, রিপন চন্দ্র চৌধুরীকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। এরমধ্যে আব্দুল আজিজের বুকের ১০টির বেশি পাঁজর ভেঙ্গে গেছে বলে হাসপাতালের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। অন্য আহতরা রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
দূর্ঘটনার খবর পেয়ে নীলফামারী পুলিশ সুপার মো. জাকির হোসেন খান রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসার সার্বিক খোঁজখবর নেন।
প্রত্যক্ষদর্শী ওই রেলগেটের এলাকার আব্দুল কাদের জানান, ‘ওই রাতে পুলিশের পিকআপভ্যানটি রেলগেট পার হচ্ছিল। এসময় কিছু বুঝে ওঠার আগে নীলফামারী থেকে ঢাকাগামী নীলসাগর ট্রেনটি এসে ভ্যানের পেছন অংশে ধাক্কা মারে। পিকআপটি দুমরে মুচরে খাদে পড়লে ওই হতাহতের ঘটনা ঘটে।’ ওই রেলগেটটি অরক্ষিত থাকায় প্রায় সময়ে দূর্ঘটনা ঘটছে বলে জানান তিনি।
ওই এলাকার পায়েল চৌধুরী বলেন, ‘রেল ক্রসিংটির উভয় পার্শ্বে বাঁশঝাড় ও বাড়িঘর থাকার কারণে ট্রেন কাছাকাছি এলেও তা বুঝা কঠিন। ফলে সব সময় দূর্ঘটনার আশঙ্কা থাকে। এ অবস্থায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পথচারীসহ সকল যানবাহন রেলগেট দিয়ে পারাপার হচ্ছে।
নীলফামারী পুলিশ সুপার মো. জাকির হোসেন খান সাংবাদিকদের জানান, ‘নিহত পুলিশ সদস্যদের পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে, তাদের দাফন কার্য সম্পন্ন করার জন্য তাৎক্ষনিক ভাবে প্রত্যেক পরিবারকে ১৫ হাজার করে নগদ টাকা দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে।’
এদিকে শনিবার দুপুর ১২টার দিকে নিহত চার পুলিশ সদস্যের লাশ নীলফামারী পুলিশ লাইনে এসে পৌঁছে। এসময় সেখানে শোকের ছায়া নামে। দুপুর সোয়া একটার দিকে জানাজা শেষে তাদের লাশ পরিবারের সদস্যদের কাছে হন্তান্তর করেন পুলিশ সুপার মো. জাকির হোসেন খান।
জানাজায় উপস্থিত ছিলেন নীলফামারী পুলিশ সুপার মো. জাকির হোসেন খান, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মজিবুর রহমান, জেলা পরিষদের প্রশাসক অ্যাডভোকেট মমতাজুল হক, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুজার রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবেত আলী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন, সহকারী পুলিশ সুপার (সৈয়দপুর সার্কেল) এ.এসএম সাজেদুর রহমান, নীলফামারী সদর থানার ওসি শাহজাহান পাশা ও বাবুল আকতার  প্রমুখ।
এসময় নীলফামারীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু মারুফ হোসেন জানান, পুলিশের তত্ত্বাবধানে নিহতদের বাড়িতে লাশ পৌছানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।

রেলওয়ের একটি সূত্র জানায়, সৈয়দপুর-চিলাহাটি রেলপথের ওই রেলক্রসিংটি ১৬ বছর ধরে অরক্ষিত।  এক সময়ে ওই ক্রসিং পারাপারে লোকবল থাকলেও এখন আর নেই। একারণে সাবধানে চলাচলের জন্য সেখানে সাইবোর্ড টানানো হয়েছে। ওই সাইনবোর্ডে  লোখা রয়েছে,‘পথচারী ও সকল প্রকার যানবাহেনর চালক নিজ দায়িত্বে পারাপার করিবেন এবং কোন রুপ দূর্ঘটনার জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে নিজে বাধ্য থাকিবেন।’

অপর দিকে আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেন-পুলিশভ্যান সংর্ঘষের ঘটনায় চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল কর্তৃপক্ষ। চার সদস্যের এই কমিটিকে আগামী তিন কর্ম দিবসের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
শনিবার বিকেলে রেলওয়ের বিভাগীয় কর্মকর্তা (পাকশী) আফজাল হোসেন জানান, শুক্রবার রাতে সৈয়দপুরের ওই দূর্ঘটনায় চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে রয়েছেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের  বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (পাকশী) শওকত জামিল মহসী, বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ আসাদুল হক, বিভাগীয় যান্ত্রিক কর্মকর্তা (লোকো) কামরুজ্জামান, বিভাগীয় চিকিৎসা কর্মকর্তা (পাকশী) মুসলেম উদ্দীন। কমিটিকে তিন কর্ম দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বলা হয়েছে।
এদিকে সৈয়দপুর রেলওয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দেওয়ান লালন আহমেদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানান, শুক্রবার রাতের ঘটে যাওয়া ঘটনাটি দুঃজনক। সেখানে কোন গেট এবং গেটম্যান না থাকায় এই দূর্ঘটনাটি ঘটেছে।

থানার একটি সূত্রে পাওয়া নিহত চার পুলিশ সদস্যের পরিচয়:
সামসুল আলম (কনষ্টেবল নং- ২৮৫), পিতা আকবর আলী, গ্রাম: পাওয়ার হাউজ কলোনী, উপজেলা: পার্বতীপুর, জেলা: দিনাজপুর।
মো. ফারুক হোসেন (কনষ্টেবল নং-৪২০), পিতা মৃত. আব্দুল হাশেম হাওলাদার, গ্রাম: বেলপাশা, উপজেলা: বাবুগঞ্জ, জেলা: বরিশাল।
শরিফুল ইসলাম (কনষ্টেবল নং-৬৮৫) , পিতা আনছার আলী, গ্রাম: আব্দুল¬াহ্পুর, উপজেলা: চিরিরবন্দর, জেলা: দিনাজপুর।
মাইদুল ইসলাম(কনষ্টেবল নং-৩৭৫), পিতা গোলাম মোস্তফা গ্রাম. নেওয়াসী হাজীরভিটা নাগেশ্বরী,কুড়িগ্রাম।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!