• সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০১:০১ পূর্বাহ্ন |

বিকাশের মাধ্যমে চলছে চাঁদাবাজি মাদক ও অস্ত্র কেনাবেচা

বিকাশসিসি ডেস্ক: ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বিকাশসহ বিভিন্ন মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে দেশের অভ্যন্তরে খুন-হত্যা, অপহরণ, চাঁদাবাজি হচ্ছে। সম্প্রতি র‌্যাব সদর দফতর থেকে বাংলাদেশ ব্যাংককে এ বিষয়টি অবহিত করে একটি চিঠি দেওয়া হয়। এই চিঠির ওপর ভিত্তি করে মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে শিগগিরই বৈঠকে বসতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, ইদানীং দেশের অভ্যন্তরে খুন-হত্যা, অপহরণ, চাঁদাবাজি, অবৈধ মাদকদ্রব্য ও অবৈধ অস্ত্র কেনাবেচা ইত্যাদি অপরাধ বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এ সকল অপরাধ পর্যালোচনা করে বিকাশসহ অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিংয়ের প্রসার এবং এর মাধ্যমে অর্থ আদান-প্রদান সহজ হওয়াকে অন্যতম কারণ হিসেবে চিহিৃত করেছে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ম. মাহফুজুর রহমান বলেন, যারা মোবাইল ব্যাংকিং করছে তাদের মধ্যে বিকাশের কার্যক্রম বেশি। এ কারণে এদের মাধ্যমে অপরাধও হয়তো কিছুটা বেশি সংঘটিত হচ্ছে। বিষয়টি জানিয়ে র‌্যাব থেকে আমাদের একটা চিঠি দেওয়া হয়েছে। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে অপরাধ কমাতে করণীয় নির্ধারণ করতে খুব শিগগিরই তাদের সঙ্গে বৈঠক করব।

চিঠিতে বলা হয়েছে, মোবাইল ব্যাংকিংয়ের রেজিস্ট্রেশন দ্রুততর সময়ে সম্পন্ন করা, ভুয়া আইডির মাধ্যমে এ্যাকাউন্ট খোলা এবং খুব সহজে অর্থ আদান-প্রদান করতে পারার কারণে অপরাধীরা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের (বিকাশ, এমক্যাশ, ইউক্যাশ) মাধ্যমে আদান-প্রদান করে। এক্ষেত্রে এ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন ফরমে যে ঠিকানা দেওয়া হয় তা সঠিক নয়। ফলশ্রুতিতে অপরাধীদের খুঁজে বের করা এবং অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ততা প্রমাণ করার ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এমতাবস্থায় মোবাইল ব্যাংকিংয়ের (বিকাশ, এমক্যাশ, ইউক্যাশ ইত্যাদি) মাধ্যমে অর্থ আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে আরও স্বচ্ছতা এবং গ্রাহক সম্পর্কে সঠিক তথ্য যাচাইয়ের সুযোগ রয়েছে।

চিঠির বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাবের লিগ্যাল ও মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান বলেন, এই মুহূর্তে জঙ্গিসহ আরও কিছু বিষয় নিয়ে ব্যস্ত আছি। তাই অন্য কোনো ইস্যু নিয়ে কথা বলতে পারব না।

র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, বর্তমান পদ্ধতিতে গ্রাহক সম্পর্কে সঠিক তথ্য এবং গ্রাহকের সঠিক ঠিকানা নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয় না। এ অবস্থায় এ্যাকাউন্ট খোলার পর মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানি একটি প্রাথমিক কোড কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে গ্রাহকের কাছে পাঠাতে পারে। ওই কোড নম্বর মোবাইলের মাধ্যমে কোম্পানির সার্ভারে পাঠানো হলে এ্যাকাউন্টের পিন নম্বর গ্রাহকের পক্ষে নির্ধারণ করা সম্ভব হবে।

চিঠিতে বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের (বিকাশ, এমক্যাশ, ইউক্যাশ ইত্যাদি) মাধ্যমে অর্থ আদান-প্রদানকারীকে সহজে শনাক্ত করার জন্য এজেন্ট পয়েন্টগুলোতে গ্রাহকের ছবি সংরক্ষণ করা যেতে পারে। সেখানে এ্যাকাউন্ট খোলা ও অর্থ লেনদেনের সময় গ্রাহকের ছবি তোলার ব্যবস্থা রাখতে অনুরোধ করা হয়।

এ ছাড়া এজেন্টদের নতুন এ্যাকাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে জেলা, স্থান, এলাকার পরিধি নির্ধারণ করা যেতে পারে, যাতে নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে এজেন্টরা কোনো একাউন্ট খুলতে না পারে। একই সঙ্গে কোনো গ্রাহক নিজ এলাকার বাইরের কোনো স্থানে নতুন এ্যাকাউন্ট খুলতে সক্ষম হবেন না। ফলে গ্রাহকদের পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে বলেও চিঠিতে বলা হয়েছে।

জানতে চাইলে বিকাশের জনসংযোগ বিভাগের সিনিয়র ম্যানেজার জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়মের মধ্যে থেকেই কাজ করছি। এর বেশি কিছু পারছি না।

র‌্যাবের চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে গত ২ আগস্ট পাঁচ হাজার টাকার উপরে লেনদেন করলে গ্রাহকের ছবি তুলে রাখার নির্দেশনা প্রদান করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পরে মঙ্গলবার এই নির্দেশনা প্রত্যাহার করা হয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, এ ছাড়া গ্রাহকের তথ্যাবলীর (কেওয়াইসি) সঙ্গে মিল রেখে মোবাইল সিম আগামী ছয় মাসের মধ্যে নিবন্ধন করতে হবে। মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের সকল কার্যক্রম নিরাপদ ও কার্যকর করার লক্ষ্যে এ খাতে ব্যবহৃত সকল গ্রাহকের সিম ও কেওয়াইসিতে প্রদত্ত তথ্যের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হতে হবে।

দেশে বর্তমানে ৫৬টি তফসিলি ব্যাংক কার্যক্রম পরিচালনা করছে, যার মধ্যে ২৮টি ব্যাংক মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস দেওয়ার জন্য অনুমোদন নিলেও সেবা দিচ্ছে ২০টি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, সারাদেশে ২ কোটি ৮৬ লাখ ৫০ হাজার সিম ব্যক্তিগত মোবাইল ব্যাংকিংয়ের জন্য নিবন্ধন নিয়েছে। এর মধ্যে ১ কোটি ২২ লাখ ৩৪ হাজার সিম সচল রয়েছে। আর এজেন্ট হিসেবে নিবন্ধন নিয়েছে ৫ লাখ ৩৮ হাজার ১৭০টি সিম।

সর্বশেষ জুন মাসে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সারাদেশে মোট ১২ হাজার ৯৭০ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। আর দৈনিক গড় লেনদেনের পরিমাণ ৩২ লাখ ৫ হাজার ৩১০টি।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!