• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৬ অপরাহ্ন |

সাঙ্গার আবেগে কাঁদল কলম্বোর আকাশ

Sri Lankan cricketer Kumar Sangakkara (2R), his wife Yehali Sangakkara (L), son Kavith (front) and daughter Swyree (2L) look on at close of play on the fifth and final day of the second Test match between Sri Lanka and India at the P. Sara Oval Cricket Stadium in Colombo on August 24, 2015. Sri Lanka's Kumar Sangakkara bid a tearful farewell to international cricket on August 24, 2015 and was immediately offered the post of the island's top envoy in Britain where he plays county cricket. AFP PHOTO / Ishara S. KODIKARA (Photo credit should read Ishara S.KODIKARA/AFP/Getty Images)

Sri Lankan cricketer Kumar Sangakkara (2R), his wife Yehali Sangakkara (L), son Kavith (front) and daughter Swyree (2L) look on at close of play on the fifth and final day of the second Test match between Sri Lanka and India at the P. Sara Oval Cricket Stadium in Colombo on August 24, 2015.  Sri Lanka's Kumar Sangakkara bid a tearful farewell to international cricket on August 24, 2015 and was immediately offered the post of the island's top envoy in Britain where he plays county cricket.   AFP PHOTO / Ishara S. KODIKARA        (Photo credit should read Ishara S.KODIKARA/AFP/Getty Images)

খেলাধুলা ডেস্ক: বিদায় বেলায় বেশ আবেগমথিত হয়ে উঠল কণ্ঠস্বর। নিজেকে ধরে রাখতে পারলেন না।

বিদায়ের লগ্নে মনটা এমনিতেই ভারী হয়েছিল, বাবা-মা, ভাইবোন, কাছের স্বজনদের উপস্থিতি হার মানল আবেগের কাছে। শত চেষ্টা করে গেছেন। কিন্তু পারেননি। কুমার সাঙ্গাকারার চোখে পানি!

তার এই কান্না দেখে কলম্বোর আকাশও নিশ্চুপ থাকতে পারেনি। নেমে আসে এক পশলা বৃষ্টি। তবে তা খুব একটা দীর্ঘ হয়নি, যেমনটি আবেগ ঠেলে ফের কথা বলে চলেন সাঙ্গাকারা।

এদিন স্টেডিয়ামের ওই এক পশলা বৃষ্টিতে ম্যাচ ক্ষণিকের জন্য বন্ধ রাখতে হয়। কিন্তু ম্যাচ ফের শুরু হতেই হার নিশ্চিত হয় শ্রীলঙ্কার। বৃষ্টি আশা জাগিয়েও নিরাশ করে তাদের। এ যেন সঙ্গা বিদায়ের অশ্রু!

ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই ক্রিকেটার নিজের বিদায় বক্তৃতায় কৃতজ্ঞতা জানালেন বাবা-মায়ের প্রতি। বললেন, এমন বাবা-মা থাকতে উদ্দীপনা খুঁজতে খুব বেশিদূর যাওয়ার দরকার নেই। তাদের অভিহিত করলেন পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা বাবা-মা হিসেবে।

সাঙ্গার বিদায়ী মুহূর্তটিতে পুরো শ্রীলঙ্কাই যেন হাজির ছিল কলম্বোর পি সারা ওভালে। প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা, প্রধানমন্ত্রী রানিল বিক্রমাসিংহেও চলে এসেছিলেন।

গ্যালারিতে কিছু সময়ের জন্য হাজির ছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপক্ষেও। টেস্ট ম্যাচ-পরবর্তী আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়ে যাওয়ার পর সাঙ্গাকারার হাতে তুলে দেওয়া হলো একের পর এক স্মারক। এরপর পুরো পি সারা ওভালে পিনপতন নীরবতা।

মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে সাঙ্গাকারা শুরু করলেন তার বিদায়ী বক্তৃতা। সহজ-সরল ভাষায় দেওয়া এই বক্তৃতা দিতে গিয়ে কাঁদলেন তিনি, কাঁদালেন গোটা শ্রীলঙ্কাকে এমনকি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা তার সব ভক্তকুলকে।

ট্রিনিটি কলেজের কথা দিয়ে শুরু করলেন। এই কলেজই যে তাকে জীবনের এই পর্যায়ে নিয়ে এসেছে, সেটা কৃতজ্ঞতার সঙ্গেই জানালেন প্রথমে। কোচ সুনীল ফার্নান্দোকে স্মরণ করলেন আন্তরিক কৃতজ্ঞতায়।

এই প্রসঙ্গে সাঙ্গাকারা বলেন, আজও নাকি ক্যান্ডি গেলে তার বাবা তাকে বাধ্য করেন কোচ ফার্নান্দোর সঙ্গে কিছু সময় কাটাতে।

নিজের অর্জন নিয়ে বলেছেন সাঙ্গাকারা। তার ১৫ বছরের ক্যারিয়ারে অর্জন অসংখ্যই। ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই তারকা প্রায় সবকিছুই পেয়েছেন দুহাত ভরে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়, হাজার হাজার রান।

ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটিং-গড়, আরো অনেক কিছু। কিন্তু সাঙ্গা নিজে তার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় অর্জন হিসেবে অভিহিত করেছেন মানুষের ভালোবাসাকে।

তিনি বলেন, ‘১৫ বছরের ক্রিকেট জীবনে আমার অর্জন সম্বন্ধে জানতে চান অনেকেই। হ্যাঁ, আমি ক্যারিয়ারে একটি বিশ্বকাপ জিতেছি, বেশ কয়েকটি সেঞ্চুরি করেছি। কিন্তু আজ এই মাঠে আমাকে বিদায় জানাতে আসা মানুষগুলোকে দেখে মনে হচ্ছে তাদের ভালোবাসাই আমার জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন।’

প্রতিপক্ষ ভারতীয় দলকেও ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি সাঙ্গাকারা। তাদের অভিহিত করেছেন, শ্রীলঙ্কার সবচেয়ে কঠিন প্রতিপক্ষ হিসেবে। নিজের শেষ টেস্টের পরাজয়ও যে তাকে ছুঁয়েছে সেই বার্তা তিনি বিদায়ী বক্তৃতাতেও দিয়ে দেন।

সাঙ্গাকারা বলেন, ‘এই ম্যাচটা হয়তো আমরা হেরেছি। তাতে কিছু আসে যায় না। কিন্তু পরের ম্যাচটা জেতার জন্য নিশ্চিতভাবেই ঝাঁপাবে শ্রীলঙ্কা।’

শেষ করেছেন তিনি তার সতীর্থদের নিয়ে বলে। তার উত্তরসূরিদের বলেছেন, কঠোর পরিশ্রম করতে, খেলাটা উপভোগ করতে। ‘পরাজয়ে ডরে না বীর’ কথাটা মনে করিয়ে দিতে সাঙ্গাকারা বলেন, ‘ম্যাথুস দারুণ একটা টিম পেয়েছে। ভয়-ডরহীন ক্রিকেট খেলতে পারলে এরাই একদিন শ্রীলঙ্কাকে অনেক দূর নিয়ে যাবে।’

তিনি কেবল সতীর্থদের লঙ্কান পতাকাটাকে ঊর্ধ্বে তুলে রাখতে বলেছেন। ১৫ বছর ধরে এই পতাকাটার জন্যই তো তিনি খেলেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ