• রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, ১২:১১ অপরাহ্ন |

ছাত্রলীগের হাতে লাঞ্ছিত ৬৫ শিক্ষক

Red Chilli Saidpur

ভাষর্যসিসি ডেস্ক: মহাজোট সরকারের প্রায় ৭ বছরের পুরো সময়ই বেসামাল ছাত্রলীগ। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ বিভিন্ন সময় উদ্যোগ নিয়েও নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেনি তাদের ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের। আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে তারা। নেতাকর্মীরা বেপরোয়াভাবে আবির্ভূত হলেও রাশ টেনে ধরতে পারছে না সরকার। ঢাকা, জাহাঙ্গীরনগর, বুয়েট, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, জগন্নাথ, বেগম রোকেয়া, কুমিল্লা, ইসলামী, শাহজালাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, হাজী দানেশ এবং যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল, কলেজসহ বিভিন্ন শহরে অন্তত পাঁচ শতাধিক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় শিক্ষকরাও তাদের হাতে লাঞ্ছিত হন। রোববার লাঞ্ছিত হয়েছেন শাহজাজলাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

যে ছাত্রলীগ ৬৮ বছর ধরে দেশের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে, আজ সেই ছাত্রলীগ নানা কারণে প্রশ্নবিদ্ধ। দেশের বিশেষ মুহূর্তগুলোয় ছাত্রলীগের ভূমিকা অনস্বীকার্য। কিন্তু সেই ছাত্রলীগ কই? কোথায় আজ বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া ছাত্রলীগ? তোফায়েল আহমেদদের ছাত্রলীগ কি এরই মধ্যে গুম হয়ে গেছে? ছাত্রলীগের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস কি কেবলই ইতিহাস এমন প্রশ্ন ছাত্রসংগঠন কারা প্রাক্তন ছাত্রলীগ নেতাদের।

বেপরোয়া ছাত্রলীগের কারণে কমছে সরকার দলের জনসমর্থনও। আর তাই অপ্রতিরোধ্য ছাত্রলীগকে সামাল দেয়া প্রয়োজন। সব ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির মাধ্যমে দেশব্যাপী ছাত্রলীগে শুদ্ধিকরণ অভিযান প্রত্যাশা করেছেন ছাত্রসংগঠনগুলো। গত ৫ বছরে ৬৫ জন শিক্ষক ছাত্রলীগের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন।

১১ আগস্ট ২০১০ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ পেটাল শিক্ষকদের। একই দিন সংগঠনটির নেতাদের হামলায় বিশ্বদ্যিালয়ের চার শিক্ষকসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। আহত শিক্ষকরা হলেন ইসলামের ইতিহাসও সংস্কৃতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান, একে এম ইফতেখারুল ইসলাম, মাহমুদুর রহমান এবং পালি ও বুদ্ধিস্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বিমান চন্দ্র বড়ুয়া। আহত শিক্ষকদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের নেতারা এ হামলা চালায়।

১২ জানুয়ারি ২০১৩ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আড়াই শতাধিক শিক্ষকের অবস্থান ধর্মঘটের ওপর ছাত্রলীগ কর্মীরা হামলা চালিয়েছে। হামলায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ ২৫ জন শিক্ষক ৩ আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র মতে, নিয়োগে দলীয়করণ, অর্থ-বাণিজ্য, স্বজনপ্রীতি, স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, প্রো-ভিসি, ট্রেজারারের পদত্যাগ দাবিতে শিক্ষক সমিতি চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবে প্রশাসন ভবনের নিচে অবস্থান ধর্মঘটের আয়োজন করে।

ধর্মঘটের একপর্যায়ে ছাত্রলীগ কর্মীরা প্রশাসন ভবনে ঢুকে শিক্ষকদের অবস্থান ধর্মঘটে পেছন থেকে হামলা করে। এ সময় শিক্ষকদের বাঁচাতে কর্মকর্তা-কর্মচারিরা এগিয়ে এলে ছাত্রলীগ কর্মীরা তাদের ওপরও হামলা চালায়।

১৩ ফেব্রুয়ারি ১৩ বরিশালের বিএম কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক শংকর চন্দ্র দত্তকে রাস্তায় ফেলে বেধড়ক মারধর করে ছাত্রলীগ নামধারী একদল তরুণ। কলেজের মেয়াদোত্তীর্ণ ছাত্র কর্মপরিষদের ভিপি ছাত্রলীগ নেতা মইন তুষার ও সাধারণ সম্পাদক নাহিদ সেরনিয়াবাতের ইন্ধনে এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অধ্যক্ষ শংকর চন্দ্র দত্ত ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ১১টায় রিকশায় চড়ে কলেজের দিকে যাচ্ছিলেন। কলেজের কাছাকাছি ৫০০ গজ দূরে তালুকদার পেট্রোল পাম্পের সামনে তাকে বেদম মারধর করে কথিত আন্দোলনকারীরা। পরে এক পথচারী একটি মোটরসাইকেলে তুলে তাকে হামলাকারীদের কবল থেকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যান।

১৫ জুলাই ১৩ হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ৭ শিক্ষককে পিটায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ ঘটনায় জড়িতদের বহিষ্কার দাবিতে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেন শিক্ষকরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের রিজেন্ট বোর্ডের ৩১তম সভা ভিসি প্রফেসর মোঃ রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে শুরু হয়। সভায় শিক্ষক পদে ৯ জন ও কর্মকর্তা পদে ৫ জনের নিয়োগ অনুমোদন করা হয়। কর্মচারি নিয়োগের ব্যাপারে রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য সদর আসনের এমপি ইকবালুর রহিম আপত্তি জানান। এ কারণে ভিসি ২-৩ দিন সময় চেয়ে কর্মচারি নিয়োগের এজেন্ডা স্থগিত করেন। সভায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অরুণ কান্তির স্ত্রী বর্ষার সেকশন অফিসার পদে নিয়োগ হয়নি। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এই ঘটনার বিচার দাবিতে ৭-৮ জন শিক্ষক ভিসির কাছে স্মারকলিপি দিতে যান। এ সময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ফুড ইন্ডাস্ট্রিয়াল বিভাগের প্রভাষক রাসেল, রায়হানুল কবীর, সুমন্ত সরকার, ফজলে রাব্বিসহ ৭ শিক্ষকে মারপিট করেন।

২৩ জানুয়ারি ১৪ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এক শিক্ষককে পেটানোর পর ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের এক নেতাকে বহিষ্কার করে কর্তৃপক্ষ। নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের সভাপতি সহযোগী অধ্যাপক গোলাম মঈনুদ্দীনকে মারধরের অভিযোগে সাময়িক বহিষ্কৃত এই ছাত্র ছিলেন মামুন খান।

৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪ লক্ষীপুরে কলেজ শিক্ষককে পেটায় দুই ছাত্রলীগ নেতা। আসন বিন্যাসকে কেন্দ্র করে প্রভাষককে মারধর করেছে ছাত্রলীগের দুই নেতা। শারীরিক লাঞ্ছনার শিকার শিক্ষক আবদুল্লাহীল হাসান প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক।

১৬ অক্টোবর ২০১৪ গাজীপুরের শ্রীপুরে স্কুল চলাকালীন সরকারদলীয় নেতা-কর্মীরা এক জ্যেষ্ঠ সহকারি শিক্ষককে বেদম মারধর করে। শ্রীপুর পৌর এলাকার বৈরাগীরচালা উচ্চ বিদ্যালয়ে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত শিক্ষক আবুল খায়েরকে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল।

১ জানুয়ারি ২০১৫ কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক জালাল উদ্দিনকে পরীক্ষা চলাকালে কক্ষের ভিতরে তাকে ধরে পিটান জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাকিশ আহম্মেদ। অনার্স প্রথম বর্ষের পরীক্ষা চলাকালে ছাত্রলীগ নেতা বই খুলে লেখা শুরু করলে ঐ শিক্ষক তার খাতা কেড়ে নেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই শিক্ষককে পিটায় ছাত্রলীগ নেতা।

১২ জানুয়ারি ১৫ ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) তিন শিক্ষককে পিটিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মৎস্য বিজ্ঞান অনুষদের শেষ বর্ষের ছাত্র শিবিরকর্মী আলী রেজা নোমানকে ক্লাস থেকে ধরে নিয়ে যাচ্ছিল ছাত্রলীগ কর্মীরা। তাকে উদ্ধার করতে যান অনুষদের তিন শিক্ষক প্রফেসর ড. রহমত উল্লাহ, আহসান বিন হাবিব ও হারুনুর রশিদ। এ সময় ছাত্রলীগ কর্মী শাহীন, পলাশ, সাইফ, রিয়াদসহ আট/দশ জন ওই তিন শিক্ষককে চড়-ঘুষি মারেন ও লাঠি দিয়ে প্রহার করেন।

২৬ জানুয়ারি ১৫ মানিকগঞ্জে বালিকা বিদ্যালয়ে ঢুকে এক শিক্ষককে বেধড়ক পিটায় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক রুবেলসহ ১০-১২ জন ছাত্রলীগ কর্মী। মানিকগঞ্জ সরকারি এস. কে. বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলাকালে এই ঘটনা ঘটে। এতে অনুষ্ঠান প- হয়ে যায়। আহত শিক্ষক মতিয়ার রহমানকে জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

২ ফ্রেব্রুয়ারি ১৫ কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার চান্দামারী উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভবেশ চন্দ্রকে (৫৯) পিটিয়ে আহত করে একই প্রতিষ্ঠানের সহকারী শিক্ষক ও ছাত্রলীগ নেতা আহসান হাবিব সানু (৩০)। অপরাধীকে গ্রেফতারের দাবিতে পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়ে থানায় স্মারকলিপি দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

আহত প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা জানান, এসএসসি পরীক্ষার হলে ডিউটিতে সহকারী শিক্ষক সানুর নাম না দেয়ায় তিনি অফিস কক্ষে ঢুকে প্রধান শিক্ষককে অকথ্য ভাষায় গালাগাল শুরু করে, এতে প্রধান শিক্ষক প্রতিবাদ করলেই তাকে আকস্মিকভাবে পিটিয়ে আহত করে।

১৩ এপ্রিল ১৫ জামায়াত নেতা মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকরের পর অসন্তোষ প্রকাশ করে ফেসবুকে মন্তব্য করার অভিযোগে বুয়েটের এক শিক্ষককে পিটায় ছাত্রলীগ।

জাহাঙ্গীর আলম নামের ওই শিক্ষক বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক। তাকে বিভাগ থেকে ধরে এনে পিটুনি দেয় ছাত্রলীগ। শিক্ষককে মারধরের প্রতিবাদে ও এ ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের শাস্তির দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছিল বুয়েট শিক্ষক সমিতি।

২৪ এপ্রিল ১৫ কুমিল্লায় উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা কেন্দ্রে আসন পরিবর্তন ও নকলে বাধা দেয়ায় এক কলেজ শিক্ষককে পিটায় ছাত্রলীগ কর্মীরা। জেলার দেবিদ্বার উপজেলা সদরে এ ঘটনা ঘটে। এছাড়াও সকালে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে না পেরে ছাত্রলীগকর্মীরা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে হুমকি দেন।

৩০ জুন ১৫ বগুড়ার সান্তাহারের মালগুদাম এলাকায় ছাত্রলীগের ক্যাডারদের পিটুনিতে নাসির উদ্দিন নামে এক কলেজ শিক্ষক আহত হয়েছেন। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় এক আত্মীয়কে শিক্ষক নকলের সুযোগ না দেয়ায় উপজেলা ছাত্রলীগের সম্পাদক তৌফিকুর রহমান সোহাগের নেতৃত্বে ১০-১৫ জন ক্যাডার এ হামলা চালায়। কলেজের শিক্ষকরা প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন করেন।

১৬ আগস্ট ১৫ প্রধান শিক্ষক দুলাল চন্দ্র দে মারধর করে যুবলীগ নেতা। চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার পূর্ব সহদেবপুর ইউনিয়নের ভূঁইয়ারা উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। প্রধান শিক্ষক দুলাল চন্দ্র দে বলেন, মনির, ফারুক, লিটন নামে যুবলীগকর্মী পরিচয় দিয়ে কয়েকজন যুবক এসে তার কাছে জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য চাঁদা দাবি করে।

চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ওই যুবকরা আবারো চাঁদা দাবি করে। এক পর্যায়ে তারা ওই শিক্ষককে ও হল সুপার ফজলুর রহমানকে লাঞ্ছিত ও মারধর করে।

৩০ আগস্ট সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচিতে চড়াও হয়েছে ছাত্রলীগ কর্মীরা। এসময় অন্তত সাতজন শিক্ষক সরকারসমর্থক ও ছাত্রসংগঠনের নেতাকর্মীদের মারধর করেছেন তারা।

রোববার সকাল ৮টা ২৫ মিনিটে আন্দোলনরত শিক্ষকরা অবস্থান কর্মসূচি পালনে উপাচার্য প্রশাসনিক ভবনের সামনে এলে ছাত্রলীগ কর্মীরা তাদের ব্যানার কেড়ে নেয় এবং শিক্ষকদের গলা ধাক্কা দিয়ে মারধর করে সরিয়ে দেয়।

আন্দোলনরত শিক্ষকদের নেতা অধ্যাপক সৈয়দ সামসুল ইসলাম বলেন, আমাদের ওপর ছাত্রলীগ হামলা করেছে। আমাদের অন্তত সাতজন আহত হয়েছেন।

অধ্যাপক ইয়াসমিন হক ছাড়াও মারধরের শিকার শিক্ষকদের মধ্যে রয়েছেন শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ ইউনূস, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবদুল গণি, অধ্যাপক এ ন ক সমাদ্দার, মোস্তফা কামাল মাসুদ, সহযোগী অধ্যাপক মো. ফারুক উদ্দিন।আস


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ