• মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন |

উন্নয়ন এবং নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ একটি মডেল- দীপু মনি

Red Chilli Saidpur

দীপু মনিশরীফুল ইসলাম, চাঁদপুর: জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর ৪০তম শাহাদাত বার্ষিকী এবং ২১ আগস্ট শেখ হাসিনার উপর গ্রেনেড হামলার ঘটনায় নিহতদের স্বরণে শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত শোক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি।
তিনি বলেন, আমি অসুস্থ্য থাকায় চাঁদপুরসহ দেশ এবং বিদেশে যারা আমার জন্য দোয়া করেছে আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আপনাদের মাছে সুস্থ হয়ে ফিরে আসতে পেরে আমি আনন্দিত।
১৫ই আগস্ট মহান স্বাধীনতার স্থপতি ও জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুুুজবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা হরা হয়েছে। সেদিন জাতীর জনকে হত্যা করে দেশের স্বাদীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিলো।
বঙ্গবন্ধু এমন এক মহান নেতা, যিনি টুঙ্গীপাড়া নামক ছোট্ট একটি গ্রামের ছাত্র নেতা হয়ে জন্মগ্রহন করে দেশের সীমানা পেরিয়ে বর্হি বিশ্বে পরিচিতি অর্জন করেছেনে। বাঙ্গালী জাতি হিসেবে বাঙ্গালীর ইতিহাস হাজার বছরের। এই হাজার বছরের ইতিহাসকে বঙ্গবন্ধু বুকের মধ্যে লালন করেছেন। সেই ইতিহাসের স্বপ্নকে সফল করা এবং বাঙ্গালীর স্বাধীনতা অর্জন করার চিন্তা করেছেন। তিনি মানুষের স্বপ্নকরে তার বুকে মধ্যে লালন করেছেন। একটি নিরস্ত্র জাতিতে সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন ইতিহাসের মহা নায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধস্ত এই দেশটিকে মাত্র সাড়ে ৩বছরের নেতৃত্ব দিতে পেরেছেন। বিশ্ববাসী তখন অবাক দৃষ্টিতে দেখেছে যুদ্ধবিধস্থ বাংলাদেশের উন্নতি। কিন্তু স্বাধীনার পরাজিত শক্তিরা সেটা মেনে নিতে পারেনি। আর এ জন্যই বঙ্গবন্ধুকে তারা সপরিবারে হত্যা করেছে। স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুরা তখন বাংলাদেশকে আবারো পকিস্তান বনানোর ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছিলো। আর তাই জেনারেল জিয়াউর রহমান যুদ্ধাপরাদীদের মন্ত্রীসভায় ঠাই দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মুখে কালিমা লেপ্টে দিয়েছেন। গণতন্ত্র তখন নির্বাসনে পাঠানো হয়েছিলো। কিন্তু তাদের সকল ষড়যন্ত্রকে রুখে দিয়ে ১৯৯৬ সালে সত্যিকারের গণতন্ত্র আমরা ফিরে পেয়েছি। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো আমরা দারিদ্রতা থেকে মুক্ত হতে পেরেছি। আজ আমরা পৃথিবীতে উন্নয়ন এবং নারীর ক্ষমতায়নে একটি মডেল।
তিনি আরো বলেন, ছাত্রলীগের অনেক সুনাম এবং ঐতিহ্য রয়েছে। কিন্তুএকটি দল ষড়যন্ত্র করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীকে বিভিন্ন অপকর্মে ব্যাবহার করার চেষ্টা করছে। আমরা কখনোই চাইনা, ছাত্রলীগ তার আদর্শচ্চুত হয়ে কোনো অপরাধমুলক কর্মকান্ডে জরিত হোক। ছাত্রলীগের আদর্শের যে জায়গা তার থেকে বিচ্ছুত হওয়া যাবে না। ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। এই আদর্শের কোনো মৃত্যুনেই।  বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছে কিন্তু তার অদর্শকে হত্যা করতে পরেনি। বঙ্গবন্ধুর কন্যা তার আদর্শকে বুকে ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছো। আমরা যদি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ এবং লালন করতে পারি তবে আমাদের উন্নতি কেউ দমিয়ে রাখেতে পারবেনা। ২০০৪ সালে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে আমাদের জননেত্রীকে হত্যা করার ষড়যন্ত করা হয়েছিলো। ৭১,৭৫ এবং ২০১৪ সালের হত্যাকারীরা এক এবং অভিন্ন। তারা এখনো প্রতিদিন প্রতিনিয়ত ষড়যন্ত্র করছে। সকল ষড়যন্ত্রকে রুখে দিয়ে জননেত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে হলে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীর প্রতি অনুরোধ করছি বঙ্গবন্ধুর জীবনী পড়তে হবে। তবেই বঙ্গবন্ধুকে হৃদয়ে ধারণ এবং লালন করতে পারবে।
জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শেখ মো. মোতালেবের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুর রহমান তৃপ্তির পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহম্মেদ, বিশিষ্ট চিকিৎসক জে.আর ওয়াদুদ টিপু।
শোক সভায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জহিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পটোয়ারী, শামছুল হক মন্টু পাটোয়ারী, অ্যাড. মজিবুর রহমান ভুইয়া, শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ভুইয়া, শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আঃ রব ভুইয়া, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান টুটুল, সদর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি নাজমুল হোসেন পাটোয়ারী, জেলা ছাত্রলীগ সাবেক সভাপতি অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান, জেলা ছাত্রলীগ যগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাওন শান্ত মজুমদার, হাসিব পাটোয়ারী, শহর ছাত্রলীগ সভাপতি সোহেল রানা প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য বন্ধ আছে।

আর্কাইভ