• বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৬:০৬ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরসহ এবার ৮৬ উপজেলায় আয়কর মেলা

রাজস্ব বোর্ডসিসি ডেস্ক : দেশে প্রথম বারের মতো বিভাগীয় ও জেলা শহরের পাশাপাশি ৮৬ উপজেলায় একযোগে আয়কর মেলা উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। আয়কর বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যেই উপজেলা পর্যায়ে এ মেলার এ উদ্যোগ নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এনবিআরের একটি সূত্র  নিশ্চিত করেছে।

ফলে ষষ্ঠ বারের মতো আয়োজিত এ বছরের আয়কর মেলা হবে এ যাবৎকালের উদযাপিত সর্ববৃহৎ। এরই মধ্যে এনবিআরের সদস্য (কর প্রশাসন) আবদুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে মেলা উদযাপন কমিটি প্রস্তুতি শুরু করেছে।

চলতি বছরের ৪ জুন জাতীয় সংসদে বাজেট বক্তৃতায়ও অর্থমন্ত্রী উপজেলা পর্যায়ে আয়কর মেলা করার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। প্রতিবছর ১৬ সেপ্টেম্বর জাতীয় আয়কর দিবস উদযাপন করা হয়। এর পাশাপাশি ১৬ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিভাগীয় শহরে সাতদিনব্যাপী আয়কর মেলার আয়োজন করে থাকে এনবিআর। তবে জেলা কিংবা উপজেলা পর্যায়ে মেলা দুই থেকে তিনব্যাপী আয়োজন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

রাজধানীসহ বিভাগীয় ও জেলা শহরের পাশাপাশি যে ৮৬ উপজেলায় আয়কর মেলা উদযাপিত হতে যাচ্ছে সেগুলো হলো- ঢাকা জেলার সাভার ও আশুলিয়া, নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজার, গাজীপুরের শ্রীপুর, কালীগঞ্জ, কালিয়াকৈর ও কাপাসিয়া, টাঙ্গাইলের মির্জাপুর, মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর ও সাটুরিয়া, নরসিংদীর মাধবদী, পলাশ, মনোহরদি, রায়পুরা ও শিবপুর, মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ও টঙ্গীবাড়ী, গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া ও মুকসুদপুর, রাজবাড়ীর পাংশা, ফরিদপুরের বোয়ালমারী, ভাঙ্গা ও সদরপুর, মাদারীপুরের রাজৈর ও শিবচর, শরীয়তপুরের জাজিরা ও নড়িয়া, চট্টগ্রামের হাটহাজারী, রাউজান, লোহাগাড়া, চন্দনাইশ, পটিয়া, সীতাকু-, সাতকানিয়া, বোয়ালখালী ও আনোয়ারা, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ, লক্ষ্মীপুরের রায়পুর, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাডিয়ার আশুগঞ্জ, ফেনী দাগনভূঞা, কক্সবাজারের চকরিয়া ও টেকনাফ, সুনামগঞ্জের ছাতক, হবিগঞ্জের মাধবপুর,  মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল, সিলেটের গোলাপগঞ্জ ও বালাগঞ্জ, নীলফামারীর সৈয়দপুর, ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ, রংপুরের বদরগঞ্জ, দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ ও ফুলবাড়ী, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ, বগুড়ার দুপচাঁচিয়া, শেরপুর ও গাবতলী,  সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর, রাজশাহীর ভবানিগঞ্জ ও বাঘা, চাঁপাইনবাবগঞ্চের শিবগঞ্জ, পাবনার ঈশ্বরদী, সাথিয়া ও কাশিনাথপুর, নওগাঁর মহাদেবপুর, নাটোরের সিংড়া, পটুয়াখালীর খেপুপাড়া ও গলাচিপা, পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি, ভোলার লালমোহন, ঝালকাঠির নলছিটি, কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা, ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ, যশোরের ঝিকরগাছা ও নোয়াপাড়া, বাগেরহাটের মংলা, সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ, নেত্রকোণার কেন্দুয়া, কিশোরগঞ্জের ভৈরব ও হোসেনপুর, জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ, ময়মনসিংহের ভালুকা ও মুক্তাগাছা এবং শেরপুরের নালিতাবাড়ি।

এ বিষয়ে এনবিআরের সদস্য (কর প্রশাসন) আবদুর রাজ্জাক রাইজিংবিডিকে বলেন, আয়কর মেলা উপজেলা পর্যায়ে ছড়িয়ে দেওয়ার প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে- কর প্রদানে সামর্থ্য প্রতিটি নাগরিককে খুঁজে বের করা। কর প্রদানে উৎসাহিত ও করদাতার সংখ্যা বৃদ্ধি করা।

২০১০ সাল থেকে এনবিআর কর প্রদানে উৎসাহিত করতে আয়কর মেলা চালু করে। প্রথম দিকে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ওই মেলা আয়োজন করা হয়। পরবর্তীতে জেলা পর্যায়ে মেলা সম্প্রসারণ করা হয়। মেলায় বড় অঙ্কের রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যে কর তথ্য ও সেবা, ই-টিআইএন রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করা হয় । রিটার্ন দাখিল করতে থাকবে ই-পেমেন্টের জন্য পৃথক বুথ। সোনালী ব্যাংক ও জনতা ব্যাংক থেকে সেবা দেওয়া হয়।

সর্বশেষ ২০১৪ সালের পঞ্চমবারের মতো আয়োজিত মেলায় ১ হাজার ৬৭৫ কোটি ৩০ লাখ ৭৩ হাজার ৪৫১ টাকার আয়কর আদায় করে প্রতিষ্ঠানটি। ওই মেলায় প্রায় সাড়ে ছয় লাখ করদাতাকে সেবা প্রদান করে। যা ২০১৩ সালের আয়কর মেলার তুলনায় ৪৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ বেশি।।
মেলায় আয়কর রিটার্ন জমা পড়েছে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৩০৯টি। আয়কর মেলায় নতুন করদাতা হিসেবে নিবন্ধিত হয় ১৫ হাজার ৯০৭ জন। ই-টিআইএন পুন:নিবন্ধন করেছেন ১০ হাজার ৮৩৮ জন।

চলতি অর্থবছরে এনবিআরের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা। এর মধ্যে আয়কর বিভাগের আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ৬৫ হাজার কোটি টাকা। যা গত অর্থবছরের চাইতে ৩০ শতাংশের বেশি। আর লক্ষ্য অর্জনের অংশ হিসেবে আয়কর মেলার এই সম্প্রসারণ।

 


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!