• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:০৫ অপরাহ্ন |

কাঙালিনী সুফিয়া এখন আসলেই কাঙ্গাল

সিসি নিউজ:কাঙ্গালিণী-সুফিয়া বুড়ি হইলাম তোর কারণে, কাঙালিনী সুফিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় গান। এই গানের মতো করেই যেন বুড়িয়ে গেছেন সুফিয়া। চেহারা দেখে তাকে চিনতে এখন বেশ কষ্ট হয়। যারা অনেকদিন টিভি পর্দায় শিল্পীকে দেখেন না রাস্তায় হঠাৎ দেখলে তাকে চিনতে পারবেন কি-না সন্দেহ।

রোগে-দারিদ্র্যে বয়সের তুলনায় অনেকখানি বুড়ি হয়ে গেছেন কাঙালিনী সুফিয়া। সুফিয়া বরাবরই রোগা-পাতলা। কিন্ত অমন প্রাণহীন ছিলেন না কখনো। তার কণ্ঠ সব সময়ই ছিল প্রাণ-প্রাচুর্যে ভরা। কাঙালিনী সুফিয়া অন্তরে গানকে কতখানি ধরেন তা বললেন শিল্পীর মেয়ে পুষ্প’।তার গান শুনতে অনুষ্ঠানে সবসময়ই ভিড় করেন দর্শকরা।

তিনি  জানান, গত কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ কাঙালিনী সুফিয়া। জীবিকার তাগিতেই অসুস্থ অবস্থায়ই বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গাইতে যান তিনি। অসুস্থ শরীর তাকে ঘরে আটকে রাখতে পারেনা।

এই হচ্ছেন কাঙালিনী সুফিয়া। অথচ কিছুদিন ধরে রোগের সঙ্গে প্রাণপণ লড়তে লড়তে স্তব্ধ হয়ে যেতে বলেছে তার কণ্ঠ। শিল্পীর মেয়ে আরও জানালেন বছর কয়েক আগে এ্যাকসিডেন্ট করেছিলেন সুফিয়া। সেই সময় তাৎক্ষণিক চিকিৎসা হলেও এখনো পুরোপুরি সেরে উঠেননি তিনি। কিছুদিন পর পরই অসুস্থ হয়ে যান। স্থানীয় চিকিৎসকের ওষুধপত্র খেলেও পুরোপুরি সুস্থ হচ্ছিলেন না তিনি। এখনো তার চিকিৎসা করাতে হয়।

অনেক দিন ধরেই অসুস্থ শিল্পী। তাকে দেখার কেউ নেই। সাভারের জামসিং এলাকায় তিন শতাংশ জমির উপর একটি টিনসেড ঘরে শিল্পী, তার মেয়ে আর নাতনী থাকেন। শিল্পীর স্বামী কুষ্টিয়ায় থাকলেও তার খোঁজ-খবর তেমন নেন না। শিল্পী গান গেয়ে যা কামান তাতে কোনও রকমে তাদের দিন চলে। এ অবস্থায় জনগণ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে না দিলে শিল্পীর পক্ষে বেঁচে থাকা কঠিন।

এসময় শিল্পী বলেন, আমি জনগণের জন্যই গান গাই। আমি যেন আবার গান গাইতে পাড়ি এজন্য জনগণের সাহায্য আমার খুবই দরকার।’ কাঙালিনী সুফিয়া এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশাপাশি সমাজের সামর্থ্যবান ব্যক্তিদের সাহায্যের হাত বাড়ানোর জন্য আহবান জানান

উল্লেখ্য কাঙালিনী সুফিয়া বাংলাদেশের জনপ্রিয় কয়েকটি ছায়াছবিসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গেয়ে দর্শকদের মন জয় করে নেন। জনপ্রিয় এই শিল্পীর জন্মস্থান রাজবাড়ি জেলার রামদিয়া গ্রামে। তার বয়স এখন ৭৫ ।

এটিএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ