• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন |

স্মরণে-বরণে ভাওয়াইয়া শিল্পি মহেশ

Saidpur copyআনোয়ার মুন্না/মাহমুদ জামান: মহেশ চন্দ্র একাডেমির উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদায় সৈয়দপুরে পালিত হয়েছে ভাওয়াইয়া গানের কিংবদন্তি শিল্পি মহেশ চন্দ্র রায়ের ২৩তম মৃত্য বার্ষিকী। মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে মহেশ চন্দ্র একাডেমি আজ রোববার দিনব্যাপী এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। দিবসটি পালনে সৈয়দপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বসেছিল শিল্পীর স্বরচিত ভাওয়াইয়া গানের আসর। ওই আসরে বিভিন্ন স্থান থেকে আসা গীতিকার, সুরকার ও সংগীত শিল্পীরা মহেশ চন্দ্র রায়ের গান পরিবেশন করেন। এর আগে একটি শোক র‌্যালী শহর প্রদক্ষিণ করে। এতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর সাথে জনপ্রতিনিধি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, শিল্পিসহ সর্বস্তরের লোক অংশ গ্রহণ করে।

Saidpurএপার বাংলা ওপার বাংলা দোনো বাংলা ভাই/ হামরা এইলা বাংলাদেশী বাংলা হামার মাও / রক্ত দিয়ে ওরা লিখে গেছে নাম রফিক, জব্বার আর বরকত, সালাম/ বাংলা হামার নারী পোতা জায়গারে কিংবা ধীরে বোলাও গাড়ীরে গাড়ীয়াল আস্তে বোলাও গাড়ী- এমনি হাজারো ভাওয়াইয়া গানের কিংবদন্তি রচয়িতা মহেশ চন্দ্র রায়। তিনি একাধারে গীতিকার, সুরকার ও সংগীত শিল্পী।  ২৯ জানুয়ারি’২০১৬ এই গুনী শিল্পীর ২৩তম মৃত্যূবার্ষিকী। মুলতঃ এ দেশের লোকসঙ্গীতকে দেশ-বিদেশ তথা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সম্মানের আসনে প্রতিষ্ঠিত করার পেছনে যে ক’জন জ্ঞানী-গুনী শিল্পী অবদান রেখে গেছেন তাদের মধ্যে মহেশ চন্দ্র রায় অন্যতম। লোকসঙ্গীতের বিভিন্ন ধারা যেমন- পল্লীগীতি, ভাওয়াইয়া, ভাটিয়ালী ইত্যাদির ক্ষেত্রে মহেশ চন্দ্র রায় একটি ব্যতিক্রমধর্মী প্রথা প্রচলন করে গেছেন। সেই প্রচলিত প্রথার রেশ ধরেই এখনও লোকসঙ্গীতের গীত হয়। অথবা অন্য কথায় বলা যায় কোন নতুন গান সৃষ্টির ক্ষেত্রে উক্ত ধারার একটি প্রচ্ছন্ন ছোঁয়া এসে যায়। এখানেই শিল্পীর সার্থকতা। মহেশ চন্দ্র রায়ের প্রতিভা শুধুমাত্র কন্ঠশিল্পী হিসেবেই সীমাবদ্ধ ছিল না। গীত রচনা, সুরারোপ, পরিবেশন ইত্যাদির ক্ষেত্রে রয়েছে তাঁর যাদুর ছোঁয়া। তাঁর গাওয়া বহু গান এখনও বহু শিল্পীর কন্ঠে কন্ঠে ফেরে, নৃত্যের প্লেব্যাক হয়, কোন বড় অনুষ্ঠানে দর্শকদের প্রশংসা কুড়ানোর নিখুঁত হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সৈয়দপুর শহরের লোকসঙ্গীতের এই প্রাণপুরুষ ১৯১৮ সালের ৯ জানুয়ারি (১৯ শে মাঘ ১৩২৫ বাংলা) নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার পুঠিমারী গ্রামে তফসীল শ্রেণীভূক্ত রাজবংশী ক্ষত্রিয় বংশে পিতা প্রয়াত বাবুরাম রায়ের ঔরসে মাতা বিমলা রায়ের ক্রোড়ে জন্মগ্রহণ করেন। শিল্পী মহেশ চন্দ্র রায় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনান্তে কিশোরগঞ্জ ইংরেজী স্কুলে ভর্তি হন। তথায় পাঠ সমাপনান্তে গ্রাম্য যাত্রা, সংকীর্তন প্রভূতি দলে যোগদান করে ভুয়সী প্রশংসা লাভ করেন। ঘটনাক্রমে দৈনিক বসুমতির বিশিষ্ট লেখক বলাই দেব শর্মা ও কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, অবতার ও ভারতবর্ষ পত্রিকার লেখক বাবু তারা প্রসন্ন মুখার্জীর সঙ্গে দেখা হলে তারা উত্তর বাংলার প্রাচীন পুঁথি সংগ্রহের নির্দেশ দেন। তিনি ১৩৪৪ সাল থেকে ১৩৪৬ সাল পর্যন্ত নীলফামারী সদর থানাধীন জয়চন্ডী পুটিমারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। এরপর যথাক্রমে দারোয়ানী ঋণ সালিশী বোর্ডের সদস্য, সংগলশী জুট কমিটির চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন ফুড কমিটির সেক্রেটারী, রেলওয়ে হোমগার্ড ক্যাপ্টেন পরে পাকিস্তান আমলে ইউনিয়ন কাউন্সিলের সদস্য প্রভুতি পদে নিযুক্ত থেকে জনসেবার সুযোগ পান। তিনি জাতীয় গুরু রায় সাহেব পঞ্চানন বর্মন এমএবিএল, এমবিই, এমএলসি মহোদয়ের অনুপ্রেরণায় উত্তর বাংলার আঞ্চলিক ভাষায় ভাওয়াইয়া, পল্লীগীতি, ভাটিয়ালী ও কবিতা লেখা শুরু করেন এবং স্বরচিত গানের সুর সংযোজন করেন। তাই তিনি একাধারে গীতিকার, সুরকার ও কন্ঠশিল্পী। শিল্পী জগতে তাঁর বিকল্প নেই। গানের টানে যারা শিল্পীর কাছে এসেছেন, বন্ধু হিসেবে পাশে থেকেছেন তাঁরা হলেন-অধ্যাপক ইউসুফ আলী (প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী), আসাদুজ্জামান নূর (বর্তমান সংস্কৃতিমন্ত্রী), অধ্যাপক দীনেশ পাল, অধ্যাপক জাকারিয়া, এমাজ উদ্দিন (সাবেক ভিপি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়), কবি বন্দে আলী মিঞা, মকবুল আলী, মোকছেদ আলী, সাজু মিঞা, আবু নাজেম, মোহাম্মদ আলী (এমএবিএল), মুস্তফা জামান আব্বাসী, হরলাল রায়, শাহ আফতাব উদ্দিন আহমেদ (বিএ নজরুল পাঠাগার) এবং আরো অনেকে। পাকিস্তান আমলে তিনি রাজশাহী বেতার কেন্দ্রে কন্ঠস্বর পরীক্ষায় উর্ত্তীণ হয়ে গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে প্রতিমাসে অনিয়মিত শিল্পী হিসেবে সঙ্গীত পরিবেশন করতেন। সেখানে কয়েক বছর অতিবাহিত করার পর রংপুর কেন্দ্রে সঙ্গীত পরিবেশন করতেন।

1911722_829682897175640_1780873099968433513_nমৃত্যূর পূর্ব পর্যন্ত তিনি রংপুর কেন্দ্রের বিশেষ শ্রেণীর তালিকাভূক্ত শিল্পী ছিলেন। এ কেন্দ্রে তিনি শেষ অনুষ্ঠান রেকর্ড করেন ১৯৯২ সালের ৪ জানুয়ারি। ১৯৯৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর প্রয়াত মহেশ চন্দ্র রায় রচিত “ধীরে বোলাও গাড়ী” (প্রথম খন্ড) নামে একটি গানের বই নীলফামারী শিল্পকলা একাডেমীর উদ্যোগে প্রকাশ পায়। ২০০৩ সালে জাতীয় প্রতিষ্ঠান বাংলা একাডেমী থেকে “মহেশ চন্দ্র রায়ের গান” নামে আরো একটি গানের বই প্রকাশিত হয়। এ ছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিষয়ে পাঠ্যসূচীতে অন্তর্ভুক্ত করা হয় শিল্পীর গান ও জীবনী। এই লোক সঙ্গীতের প্রাণপুরুষের গাওয়া ভাওয়াইয়া, পল্লীগীতি ও ভাটিয়ালী গানের কলি এখনও শুধু মানুষের মুখে মুখে নয়, সর্বমহলে সমাদৃত বটে।  লোকসঙ্গীত মানুষের মুখে মুখে ফেরা সঙ্গীত, তাদেরই জীবনের কথকতা, তাদের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না অবিমিশ্র বহিঃপ্রকাশ। তাকে তার মতো থাকতে দিলেই স্বকীয়তা বজায় থাকে, অন্যথায় নয়। এসব স্মরণে এলেই মহেশ চন্দ্র রায়ের অবদানের কথা স্মৃতিতে ভাস্কর হয়ে ওঠে। এত বিচিত্র গুনের অধিকারী মহেশ চন্দ্র রায়ের শিল্পী সত্বাকে ধরে রাখা বর্তমান প্রজন্মেরও একটি দায়িত্বের আওতায় পড়ে। তাই মহেশ চন্দ্র রায়ের সৃষ্টিকর্ম রক্ষা ও আগামী দিনে তাঁর গান চর্চার জন্য “মহেশ চন্দ্র একাডেমী” প্রতিষ্ঠালাভ করে। একাডেমির এ উদ্যোগ সফল বাস্তবায়নে জাতীয় প্রতিষ্ঠান শিল্পকলা একাডেমীকেই পদক্ষেপ নেওয়ার আহবান জানান- এ অঞ্চলের আপাময় মানুষ।

প্রতিভাবান এই গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীত শিল্পী ১৯৯৩ সালের ২৯ জানুয়ারি ৭৫ বছর বয়সে রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে মৃত্যূবরণ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ