• শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন |

তিন স্তরে তিনশ কর্মকর্তার পদোন্নতি

এসএসবিসিসি ডেস্ক: ১৪ মাসের মাথায় প্রশাসনে আরেক দফা পদোন্নতি হচ্ছে। বাংলাদেশের ইতিহাসে এ পদোন্নতিকে চ্যালেঞ্জিং বলে মন্তব্য করা হচ্ছে। এই প্রথমবারের মতো শুধুই বঞ্চিত বা পূর্বে দফায় দফায় বাদ পড়াদের পদোন্নতি দেয়া হবে। কমবেশি ৩০০ কর্মকর্তার পদোন্নতির সুপারিশ চূড়ান্ত করেছে সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ড ( এসএসবি)। উপ-সচিব, যুগ্ম সচিব আর অতিরিক্ত সচিবের পদোন্নতি হবে এ দফায়।
চ্যালেঞ্জিং বলা হচ্ছে এ কারণে যে, এবার যাদের পদোন্নতি হচ্ছে তাদের অনেকেই আগে ‘রাজনৈতিক বিবেচনায়’ পদোন্নতি পাননি। সোজা কথায়, তারা এ সরকারের আদর্শের অনুসারী নয়। কিন্তু এখন কী কারণে দেয়া হবে? এই প্রশ্ন প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত অনেকের। তবে পদোন্নতির প্রক্রিয়ায় যারা সংশ্লিষ্ট তাদের কথা ‘রাজনৈতিক বিবেচনায়’ যে কাউকে বঞ্চিত এ সরকার করেনি সেটি প্রমাণ হবে এবারের পদোন্নতিতে। কারণ দেখা যাবে যাদের পদোন্নতি হয়েছে তারা অতীতে প্রয়োজনীয় নম্বর ছিল না। কিংবা কোনো মামলা ছিল। সময়ের ব্যবধানে বিধান অনুযায়ী সেসব শর্ত এখন পূরণ হওয়ায় তাদের পদোন্নতি দেয়া হচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ এ ব্যাপারে বলেন পদোন্নতি নিয়ম অনুযায়ী দেয়া হচ্ছে। যাদের পদোন্নতির যোগ্য হবেন তারাই পদোন্নতি পাবেন। তবে এ প্রক্রিয়ায় ইতিপূর্বে যারা পদোন্নতি পাননি তাদের বিষয়টি বিবেচনায় নেয়া হয়েছে।
গত প্রায় এক মাস ধরে আট দফা বৈঠক করেছে এসএসবি। নিজেদের সরকারের আদর্শিক দাবি করে নতুন নতুন ব্যাচ থেকে পদোন্নতির চাপও ছিল। কিন্তু এসএসবি সিদ্ধান্তে অটল। শুধুমাত্র বঞ্চিত যারা একাধিকবার পদোন্নতি বঞ্চিত হয়েছেন পদোন্নতি এবার শুধু তাদের জন্যই। আর এটা হলে তা হবে দৃষ্টান্ত। কারণ বঞ্চিতদের তালিকা ধরে পদোন্নতি দেয়ার দৃষ্টান্ত এবারই প্রথম হবে।
গত বছরের ১৪ জানুয়ারি ৮৭২ জন কর্মকর্তার পদোন্নতি দেয়া হয়। এ দফায় অতিরিক্ত সচিব পদে ২৩১ জন, যুগ্ম সচিব পদে ২৯৯ জন এবং উপসচিব পদে ৩৪২ জন কর্মকর্তা পদোন্নতি পান। ছয়শত কর্মকর্তা সে সময় নানা কারণে পদোন্নতি পাননি। পরে তাদের অনেকে পদোন্নতি দিতে সরকারের কাছে আবেদন করেন।
অবশ্য দফায় দফায় দেয়া পদোন্নতি প্রাপ্তরা এখনো বসার জায়গা পাননি। বেশিরভাগই এখনও পদোন্নতিপূর্ব পদেই কাজ করছেন। অর্থাত্ যিনি অতিরিক্ত সচিব হয়েছেন তিনি কাজ করছেন যুগ্ম সচিবের, যুগ্ম সচিব কাজ করছেন উপসচিবের আর উপসচিব কাজ করছেন জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব তথা ডেস্ক অফিসারের পদে।
প্রসঙ্গত, সর্বশেষ ওই পদোন্নতির আগেই উপসচিব ৮৩০টি মঞ্জুরিকৃত পদের বিপরীতে ১ হাজার ৪৭৬ জন কর্মরত ছিলেন এখন তা বেড়ে দাঁড়াল ১ হাজার ৮শ ১৮ জন। যুগ্ম সচিবের ৩৩০টি পদে কর্মকর্তার সংখ্যা ৫৭০ জন থেকে বেড়ে এখন ৮৬৯ জন এবং অতিরিক্ত সচিবের ১০৭টি পদে কর্মকর্তার সংখ্যা ছিল ১৪২ জন। যা এখন তা বেড়ে হচ্ছে ৩৭৩ জন।
উল্লেখ করা যেতে পারে প্রশাসনে পদ ভেদে দুই, তিন চার বছর চাকরি অভিজ্ঞতা ও সমগ্র চাকরি জীবনের কর্মদক্ষতা এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার ওপর নির্ভর করে পদোন্নতি বিবেচনা করার কথা। কিন্তু ৯০ দশকে নির্বাচিত সরকার পদ্ধতি চালু হওয়ার পর থেকে দেখা যায়, আরও তথ্যের প্রয়োজন এরকম মন্তব্য লিখে অথবা জনতার মঞ্চের কর্মকর্তা এই মন্তব্য লিখে অসংখ্য কর্মকর্তার পদোন্নতি আটকে রাখার রীতি চালু করা হয়। এরই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকায় অনেকেই প্রজাতন্ত্রের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ