• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন |

স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছি: আতিউর

আতিউরঢাকা: বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় প্রচণ্ড সমালোচনার মুখে পদত্যাগকারী গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, আমি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছি, আর চুরির বিষয়টি প্রথমে বুঝে ওঠা সম্ভব হচ্ছিল না।

মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গিয়ে পদত্যাগপত্র দেওয়ার পর বিকালে গুলশানে নিজের বাসায় সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

ব্যাংকের টাকা হ্যাকড এর বিষয়ে তিনি বলেন, এটি হলো টেরোরিস্ট অ্যাটাকের মতো ঘটনা। কোন দিক থেকে এই অ্যাটাক আসছে সেটা নিয়ে আমরা বিহ্বল ছিলাম। এটা এমন সময় ঘটেছে যখন এটিএমের ওপর অ্যাটাক নিয়ে সবাই ব্যতিব্যস্ত ছিলাম। এটি খুবই কমপ্লেক্স বিষয়। এটি যেকোনো দিক থেকে ঘটতে পারে। এটি শুরুতে সেরকম বুঝে ওঠা সম্ভব হচ্ছিল না।

ড. আতিউর রহমান বলেছেন, মুরাল রেসপনসিবলিটি থেকেই আমি পদত্যাগ করেছি। ঘটনাটির তদন্ত হচ্ছে, রিপোর্ট পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমি কৃতজ্ঞ, তিনি তিলে তিলে আমায় গড়ে তুলেছেন। দীর্ঘ সাত বছরে বাংলাদেশ ব্যাংক কোথায় থেকে কোথায় এসেছে আপনারা তা জানেন। কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার নির্দেশে চালিয়েছি।

ড. আতিউর রহমান নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, সংকটকে সম্ভাবনায় রূপান্তরিত করতে হবে। এটা মারাত্মক সাইবার অ্যাটাক, এটা একটা হাইটেক সাইবার অ্যাটাক। তদন্ত শুরু হয়ে গেছে। রিপোর্ট পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রিজার্ভ চুরির পর ভারত যাওয়া সম্পর্কে তিনি বলেন বলেন, আমি যে দিল্লিতি গিয়েছিলাম সেটা নিয়ে অনেক প্রশ্ন। আমি ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির আমন্ত্রণে গিয়েছিলাম। সেখানে আইএমএফের চিফ ছিলেন, তাদের সাথে কথা বলেছি। অনলাইনে সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর নিয়েছি। সেটাকে বড় ঘটনা করার কোনো পটভূমি ছিল না।

সাবেক গভর্নর বলেন, আমি এমন এক সময়ে বিদায় নিচ্ছি যখন বাংলাদেশের অর্থনীতি সবচেয়ে স্থিতিশীল, প্রবৃদ্ধির বিচারে আমরা ২য় হবো বলা হচ্ছে। রিজার্ভও প্রায় ২৮ বিলিয়ন এবং মূল্যস্ফীতি প্রথমবারের মতো ৬ শতাংশের নিচে এসেছে। দেশের ৭৯ শতাংশ মানুষ ব্যাংকিং সেবা পাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আমি তিল তিল করে ২৮ বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ জমা করেছি। সেটা আমার অবহেলায় চুরি হয়ে যাবে সেটা বিশ্বাস করতেও আমার কষ্ট হয়।

তিনি বলেন, কেউ আমাকে যখন জিজ্ঞেস করেন, আপনার কোন পরিচয় সবচেয়ে বড় মনে করেন। আমি নির্দ্বিধায় বলি শিক্ষকতা। আবার সেই সুযোগ এসেছে। সেখানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আমার অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ হবে। তোমরা অনেকেই আমার শিক্ষার্থী ছিলে। আবার হয়তো তোমাদের সঙ্গে দেখা হবে, কথা হবে।

এর আগে মঙ্গলবার সকালেই গভর্নরের বাসভবনে সাংবাদিকদের আতিউর রহমান বলেছিলেন ‘প্রধানমন্ত্রী চাইলে’ পদত্যাগের জন্য তিনি ‘প্রস্তুত’ আছেন।

ওই সময় তিনি বলেন, ‘আমি পদত্যাগের জন্য প্রস্তুত রয়েছি। আমি পদত্যাগ করলে যদি বাংলাদেশ  ব্যাংকের ভালো হয়, দেশের ভালো হয়, তাহলে পদত্যাগ করতে আমার দ্বিধা নাই। আমি পদত্যাগপত্র লিখে বসে আছি। প্রধানমন্ত্রী আমাকে নিয়োগ দিয়েছেন। তিনি যদি বলেন তাহলে আমি যেকোন মুহূর্তে পদত্যাগ করব।’

উল্লেখ্য, ফিলিপিন্সের ডেইলি ইনকোয়ারারে ২৯ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮১ মিলিয়ন ডলার লোপাটের খবর এলে গণমাধ্যমে আলোচনার ঝড় ওঠে। তদন্তে জানা গেছে, গত ৪ ফেব্রুয়ারি সুইফট মেসেজিং সিস্টেমে হ্যাংকিংয়ের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে সঞ্চিত বাংলাদেশ ব্যাংকের ওই অর্থ ফিলিপিন্সের একটি ব্যাংকে সরিয়ে ফেলা হয়। শ্রীলঙ্কার একটি ব্যাংকে আরও ২০ মিলিয়ন ডলার সরানো হলেও বানান ভুলের কারণে সন্দেহ হওয়ায় শেষ মুহূর্তে তা আটকে যায়। বাংলাদেশ ব্যাংক শুরুতেই বিষয়টি টের পেলেও কর্মকর্তারা তা গোপন করে যাওয়ায় অর্থমন্ত্রী মুহিতকে এক মাস পর তা পত্রিকা পড়ে জানতে হয়। এ নিয়ে তোপের মুখে পড়েন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান।

এদিকে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব থেকে রিজার্ভের অর্থ খোয়া যাওয়া এবং এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানাতে অর্থমন্ত্রীর ডাকা সংবাদ সম্মেলন বাতিল করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় এই সংবাদ সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। প্রথমে নির্ধারিত সময় কয়েক ঘণ্টা পিছিয়ে তা দুপুর আড়াইটায় নেয়া হয়। পরে অনিবার্য কারণে মঙ্গলবারের সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে বলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ বিভাগ জানায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ