• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০১:২৬ পূর্বাহ্ন |

বাংলাদেশ-ভারত বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট সরবরাহ উদ্বোধন

হাসিনা-মোদিসিসি নিউজ : বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীদ্বয় আজ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভারতের ত্রিপুরা থেকে বাংলাদেশে (কুমিল্লা) ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং বাংলাদেশ (কক্সবাজার) থেকে ভারতে (আগরতলা) ১০০ জিবিপিএস ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট রপ্তানি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদি, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শ্রীমতি সুষমা স্বরাজ, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এবং ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী শ্রী মানিক সরকার বক্তব্য রাখেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা চাই, শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান। এ অঞ্চলে দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্ক এক নতুন উচ্চতায় উন্নীত হয়েছে।
অন্যদিকে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ঐতিহাসিক এ ঘটনায় আজ আমাদের মধ্যে এমন এক গেটওয়ে খুলছে, যা আমাদের আরো সামনে অগ্রসর হতে সহায়তা করবে। বাংলাদেশের সঙ্গে ডিজিটাল বিশ্বের এ গেটওয়ে খুলছে।
তিনি বলেন, আসাম, ত্রিপুরাসহ এ অঞ্চলের জন্য যে ট্রান্সমিশন লাইন স্থাপন করা হয়েছে, তার ধারণক্ষমতা আমরা প্রথম থেকেই বেশি রেখেছি। আসছে দিনগুলোয় প্রয়োজন হলে আমরা আরো বেশি বিদ্যুৎ রফতানি করতে পারবো।
প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে ত্রিপুরায় পালাটানা বিদ্যু প্রকল্প বাস্তবায়নকালে বাংলাদেশ সরকার ভারী যন্ত্রপাতি সরবরাহে অনুমতি প্রদান করায় ত্রিপুরা থেকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত বিদ্যুৎ বিষয়ক সপ্তম যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ/স্টিয়ারিং কমিটির সভায় (ঢাকা, এপ্রিল ২০১৪) গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ত্রিপুরা থেকে এই বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। গত ৯ জানুয়ারি ২০১৫ ঢাকায় ত্রিপুরার বিদ্যুৎ মন্ত্রীর সফরকালে অনুষ্ঠিত যৌথ কারিগরি কমিটির সভায় দামের বিষয়টি মীমাংসা করা হয়। পিজিসিআইএল সূর্যমণিনগর (আগরতলা) থেকে ভারতের সীমান্ত পর্যন্ত ৪০০কেভি ক্ষমতাসম্পন্ন সঞ্চালন লাইন নির্মাণ করেছে। অন্যদিকে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে কুমিল্লা পর্যন্ত সঞ্চালন লাইন নির্মাণ করেছে পাওয়ার গ্রিড কর্পোরেশন অফ বাংলাদেশ লিমিটেড।
ভারতের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরকালে জুন ২০১৫ আখাউড়ায় আন্তর্জাতিক ব্যান্ডউইথ রপ্তানির লক্ষ্যে বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিসিএল) এবং ভারত সঞ্চার নিগম লিমিটেড (বিএসএনএল)-এর মধ্যে একটি চুক্তি সম্পাদিত হয়। বিএসসিসিএল ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে আখাউড়া পর্যন্ত, আগরতলার কাছাকাছি, ৩০ কিমি দূরত্বসম্পন্ন অপটিক্যাল ফাইবার কেবল স্থাপন করেছে এবং বিএসএনএল সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতিসহ আগরতলায় আন্তর্জাতিক দূর-দৈর্ঘ্যরে (আইএলডি) ফটক নির্মাণ করেছে।
ভারত ইতোমধ্যে বহরমপুর-ভেড়ামারা আন্ত:সংযোগ সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে বাংলাদেশে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ রপ্তানি শুরু করেছে। গত বছর ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির বাংলাদেশ সফরকালে একই আন্ত:সংযোগ লাইনের মাধ্যমে আরও ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহের ঘোষণা দেয়া হয়। এছাড়া, ভারতের এনটিপিসি এবং বাংলাদেশের বিপিডিবি ১৩২০মেগাওয়াটসম্পন্ন রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্যে একটি যৌথ উদ্যোগ (বিআইএফপিসিএল) হাতে নিয়েছে যেটি সম্পন্ন করার জন্য ভারতের ভেল (বিএইচইএল) কোম্পানি সম্প্রতি ইপিসি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও অন্যান্য খাতে উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে এবং সহযোগিতার জন্য অনেক ব্যক্তিগত ও সরকারি উদ্যোগ গ্রহণের প্রচেষ্টাও অব্যাহত রয়েছে।
বাংলাদেশ ও ত্রিপুরা ঐতিহ্যগতভাবে একটি বিশেষ সম্পর্ক লালন করে। এই প্রকল্পগুলো এই বিশেষ সম্পর্কটিতে একটি অনন্য মাত্রা যোগ করে এবং দুটি দেশের জন্য একটি উইন-উইন অংশীদারিত্বের প্রতীক। বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের বিদ্যুৎ ঘাটতি মেটানোর লক্ষ্যে বিদ্যুৎ খাতে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার ক্ষেত্রে এই বিদ্যুৎ সংযোগ আরেকটি সাফল্যের মাত্রা যোগ করেছে। ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ রপ্তানি ত্রিপুরা তথা ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জনগণের জন্য নির্ভরযোগ্য ও দ্রুত ইন্টারনেট সংযোগ পেতে সহায়তা করবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ