• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন |

বাঙালি জাতির জীবনে সেই ভয়াল কালরাত্রি আজ

কালরাত্রিসিসি নিউজ: ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ বাঙালি জাতির জীবনে এক বিভীষিকাময় রাত। এ দেশের মানুষকে পরাধীনতা জিঞ্জিরে বেঁধে রাখতে ২৫ মার্চ কালরাত্রিতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ‘অপারেশন সার্চলাইট’ এর নামের গণহত্যায় মেতে উঠে। মধ্যরাতে ঢাকা পরিণত হয় লাশের শহরে।

ঢাকা শহরের রাজারবাগ পুলিশ লাইন, পিলখানা ইপিআর সদর দপ্তর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, নীলক্ষেতসহ বিভিন্ন স্থানে নির্বিচারে তারা বাঙালি নিধন শুরু করে। ঢাকাসহ দেশের অনেক স্থানে মাত্র এক রাতেই হানাদাররা নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল অর্ধ লক্ষাধিক বাঙালিকে।

শুধু নিষ্ঠুর ও বীভত্স হত্যাকাণ্ডই নয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে থাকা গণমাধ্যমও সেদিন রেহাই পায়নি জল্লাদ ইয়াহিয়ার পরিকল্পনা থেকে।

এ হামলায় জীবন দিতে হয় বেশ কয়েকজন গণমাধ্যম কর্মীকেও। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও জান্তার কালো থাবা থেকে রক্ষা পাননি। ড. গোবিন্দচন্দ্র দেব, ড. জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা, অধ্যাপক সন্তোষ ভট্টাচার্য. ড. মনিরুজ্জামানসহ বিভিন্ন বিভাগের নয় শিক্ষককে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়। তাদের এই সশস্ত্র অভিযানের উদ্দেশ্য ছিল একটিই। আর তা হলো বাঙালির মুক্তির আকাঙ্ক্ষাকে অঙ্কুরেই ধ্বংস করা।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাত সোয়া ১টার দিকে এক দল সৈন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। ঢাকার পরিস্থিতি খারাপ হতে থাকলে বঙ্গবন্ধুকে তার শুভাকাঙ্খী আর দলের নেতারা বাসা ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নেয়ার অনুরোধ জানান।

বাঙালীর দূরদর্শী নেতা শেখ মুজিরব জানতেন পাকিস্তানী বাহিনী তাকে না পেলে আরো বিভৎসাতায় মেতে উঠবে। জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছাড়খার করে দেবে তার স্বপ্নের বাংলাদেশ। গ্রেপ্তার হওয়ার আগেই বঙ্গবন্ধু তৎকালীন ইপিয়ারের ওয়্যারলেসের মাধ্যমে স্বাধীনতা ও সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণা দিয়ে যান। পরবর্তীতে তার পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন মেজর জিয়া।

একাত্তরের ২৫ মার্চ বিভীষিকার কালরাত্রি। সেই গাঢ় অন্ধকার থেকেই জ্বলে ওঠে আলোকশিখা। অন্ধকারের উৎস হতে উৎসারিত আলো ছড়িয়ে পড়ে সারাদেশে। নয় মাস মুক্তিযুদ্ধ শেষে ৩০ লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে পৃথিবীর বুকে অভ্যুদয় হয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ।

কালরাত্রি স্মরণে কর্মসূচি

জাতি আজ গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে ২৫ মার্চের সেই কালরাতে নির্মম হত্যাযজ্ঞের শিকার বীর বাঙালীদের। রাজধানীতে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃৃতিক সংগঠন ‘কালরাত্রি’ স্মরণে নানা কর্মসূচী হাতে নিয়েছে।

দিনভর থাকছে আলোচনা সভা, শোকসভা ও রাতে মোমবাতি প্রজ্বলন। শোকাবহ জাতি কালরাত্রি বাঙালী জাতি ঘৃণা ও ধিক্কার জানাবে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী এবং তাদের এদেশীয় দোসর কুলাঙ্গার রাজাকার, আলবদর ও আলশামসদের।

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি গত ২৩ বছরের ন্যায় এবারও ভয়াল সেই কালরাত্রি স্মরণে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে আলোর মিছিল বের করবে।

স্বাধীনতা ও গণহত্যার ৪৫তম বার্ষিকীতে ৪৫টি মশাল প্রজ্বলন ও আলোর মিছিলে নেতৃত্ব দেবেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অধিনায়করা, মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ পরিবারের সদস্যরা। দাবি জানাবেন, সরকারিভাবে ২৫ মার্চকে ঘোষণা করা হোক ‘গণহত্যা দিবস।’

‘গণহত্যার কালরাত্রি’ উপলক্ষে আলোচনাসভায় সূচনা বক্তব্য দেবেন সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি লেখক-সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির। সভাপতিত্ব করবেন সংগঠনের অন্যতম উপদেষ্টা সাংবাদিক কামাল লোহানী। আলোচনা সভা শেষে শহীদ মিনার থেকে আলোর মিছিলটি জগন্নাথ হলের বধ্যভূমিতে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর মাধ্যমে শেষ হবে।

প্রতিবছরের মতো এবারেও সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ৭১ বাংলাদেশের মাটিতে পাকিস্তানী গণহত্যা শুরুর ভয়াল রাত ও কালরাত্রি শেষে স্বাধীনতার পথে আলোকযাত্রার মুহূর্তকে বিস্তারিত অনুষ্ঠানমালায় স্মরণ করবে।

এবারের অনুষ্ঠানে সর্বপ্রথম কয়েক নারী মুক্তিযোদ্ধা নতুন প্রজন্মের হাতে জাতীয় পতাকা হস্তান্তর করবেন। বক্তব্য রাখবেন ফোরামের চেয়ারম্যান সেক্টর কমান্ডার মেজর জেনারেল (অব) কেএম সফিউল্লাহ বীরউত্তম, ভাইস-চেয়ারম্যান সেক্টর কমান্ডার লে. কর্নেল (অব) আবু ওসমান চৌধুরী, মহাসচিব লেখক-সাংবাদিক হারুন হাবীব প্রমুখ।

আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ গণবিচার আন্দোলন ২৫ মার্চকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস হিসেবে পালনের দাবিতে আজ মানিকমিয়া এভিনিউতে বিস্তারিত কর্মসূচী পালন করবে। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে- আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যায় আলোর মিছিল এবং গণহত্যার ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের উদ্যোগে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় জাদুঘর প্রাঙ্গণে কালরাত্রি স্মরণে প্রদীপ প্রজ্বলন করা হবে। শিশু একাডেমিও ভয়াল দিনটি স্মরণে মোমবাতি প্রজ্বলন ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। এছাড়া অজস্র সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে আজ শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবেন কালরাতের শহীদদের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ