• সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০২:৩২ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠির বিক্ষোভ ও স্মারকিলিপি

Red Chilli Saidpur

Doloto O Horijoon Janogoshti Rally Picমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর : দিনাজপুরে দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠি বিক্ষোভ মিছিল শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে। স্মারকলিপিতে দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠিকে দেশের সার্বিক উন্নয়নের মূলস্র্রোতধারার সাথে সম্পৃক্তকরণের দাবীতে প্রধানমন্ত্রীর নিকট কয়েকটি সুপারিশ পেশ করেছে।
সোমবার (২৮ মার্চ) সকালে আন্তর্জাতিক বর্ণ বৈষম্য বিলোপ দিবস-২০১৬ উপলক্ষে অধিকার আদায়ের লক্ষে দিনাজপুর পৌরসভার সামনে থেকে দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠির অর্ধশতাধিক লোকের এক বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে তারা প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুর রহমান স্মারকলিপি গ্রহণ করেন।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশে প্রায় ১ কোটি (এক কোটি) দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠি বসবাস করে, যারা বহুবিধ সমস্যার মধ্যে জীবনযাপন করে। এই অবস্থার পরিবর্তনের জন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত পদক্ষেপের প্রশংসা করে বলা হয়, সামাজিক বৈষম্য, বঞ্চনা, অস্পৃশ্যতা, ঘৃণা, সমাজ বিচ্ছিন্নতা, সমাজে মর্যাদাহীনতা, পেশাচ্যুতি, ভুমি দখল, অবহেলা, নিরাপত্তাহীনতা, রাষ্ট্রীয় পরিসেবা না পাওয়া ইত্যাদি এই জনগোষ্ঠির সার্বিক উন্নয়নে বাধার সৃষ্টি করেছে। অথচ বাংলাদেশ সংবিধানে জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র ভেদে কোন নাগরিকের প্রতি বৈষম্য না করার অঙ্গীকার করা হয়েছে এবং পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির জন্য বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের কথাও বলা হয়েছে। সংবিধানের ১৯, ২৭, ২৮ ও ২৯ অনুচ্ছেদে সমতা, সমান সুযোগ এবং বৈষম্য বিরোধী বিধানাবলী রয়েছে।
কিন্তু বাস্তব অবস্থা ভিন্ন, বর্তমান সরকারের ইতিবাচক ভূমিকায় তাদের রাষ্ট্রীয় সেবা প্রাপ্তিতে কিছুটা প্রবেশাধিকার ঘটলেও তারা বর্ণপ্রথা, জাতিপ্রথা, পেশাগত, শারীরিক অবস্থা ইত্যাদি কারণে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় বহুবিধ ঘৃণা-বৈষম্য-বঞ্চনার শিকার হন। এতে করে এসব জনগোষ্ঠি আর দশজন সাধারণ মানুষের মতো তাদের বিকাশ, সামাজিক গতিশীলতায়, সরকারী পরিসেবাতে অভিগম্যতায়, সর্বোপরি উন্নয়নের মূলস্র্রোতধারায় সম্পৃক্ত হতে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। এমতাবস্থায় দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠিকে দেশের সার্বিক উন্নয়নের মূলস্র্রোতধারার সাথে সম্পৃক্তকরণের দাবীতে প্রধানমন্ত্রীর নিকট কয়েকটি সুপারিশ পেশ করেছে।
এসব সুপারিশের মধ্যে রয়েছে দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠির জন্য খাস জমি বরাদ্দ দিয়ে স্থায়ী আবাসনের ব্যবস্থা করে বিশুদ্ধ পানি, স্যানিটেশন, বিদ্যুৎ, পয়ঃনিষ্কাশন ইত্যাদির ব্যবস্থা গ্রহণ করা, দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠির শিশুদের শিক্ষা নিশ্চিতকরণে বিশেষ বরাদ্দ দেয়ার পাশাপাশি সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির ক্ষেত্রে কোটা সুবিধা দেয়া, দলিত ও হরিজন যুব ও নারীদের জন্য বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টির ব্যবস্থা করা, সরকারী সেফটিনেট কর্মসূচী যেমন-ভিজিএফ, ভিজিডি, বয়ষ্কভাতা, বিধুবাভাতা, একশ’ দিনের কর্মসূচী, প্রতিবন্ধিভাতা, মাতৃত্বকালিন ভাতা প্রভৃতিতে হরিজন জনগোষ্ঠিকে অন্তর্ভূক্ত করা, রেল, পৌরসভা, হাসপাতালে দলিত ও হরিজন শ্রেণির সংরক্ষিত সুইপার পদে সুইপারদের নিয়োগ দেয়া এবং দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠির স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা।
বিক্ষোভ মিছিলে ও স্মারকলিপি প্রদানের সময় দিনাজপুর পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. রেহাতুল ইসলাম খোকা, ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী আকবর হোসেন অরেঞ্জ, দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠির নেতা রংলাল বাঁশফোড়, সদস্য মালতি বাঁশফোড়, হরিচরন বাঁশফোড়, ময়না বাঁশফোড়, জনি বাঁশফোড়, কৃষ্ণা বাঁশফোড়, রাখি বাঁশফোড়সহ দলিত ও হরিজন জনগোষ্ঠির অর্ধশতাধিক পুরুষ, নারী ও শিশু উপস্থিত ছিলেন। স্মারকলিপি প্রদানে সার্বিক সহযোগিতা করে গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র, পার্বতীপুর, দিনাজপুর ও হেকস্ ইপার।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ