• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৫৫ অপরাহ্ন |

নির্বাচনী সহিংসতায় আহত আরো দুইজনের মৃত্যু

সংঘর্ষঢাকা: দ্বিতীয় দফায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সহিংসতায় আহত আরো দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। যশোরে মারা গেছে ইকবাল হোসনে আর মাদারীপুর মারা গেছে হাসান বেপারী।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার সকালে তাদের মৃত্যু হয়।

এই নিয়ে দ্বিতীয় দফায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহতের সংখ্যা ১২জনে দাঁড়ালো। এর আগে প্রথম দফা নির্বাচনী সহিংসহায় নিহত হয়েছেন ২৮জন।

যশোরে নির্বাচনী সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ ইকবাল হোসেন (২৮) শনিবার সকালে মারা গেছেন। এর আগে গত ২৯ মার্চ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ইকবাল যশোর সদরের টেকহাটি গ্রামের আজিজুর রহমানের ছেলে।

নিহতের স্ত্রী মৌসুমী জানান, গত ২৮ মার্চ রাতে যশোরের টেকহাটি গ্রামে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় ইকবাল একটি চায়ের দোকানে বসে থাকা অবস্থায় গুলিবিদ্ধ হন।  প্রথমে তাকে স্থানীয় হাসপাতাল ও পরে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) বাবুল মিয়া এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে মাদারীপুর সদর উপজেলার কুনিয়া ইউনিয়নের দিয়াপাড়ায় আওয়ামী লীগের দুপক্ষে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হাসান বেপারী শনিবার ভোরে ঢামেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

দ্বিতীয় দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সানোয়ার হোসেন এবং দলটির বিদ্রোহী প্রার্থী সাহেব আলী অংশ নিলেও দুই প্রার্থীই পরাজিত হয়। এ নিয়ে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছিল।

এর জের ধরে শুক্রবার সকালে সানোয়ার হোসেনের সমর্থক বেলায়েতের বাড়িতে হামলা, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এ সময় বেলায়েত হোসেনের লোকজনের গুলিতে রফিক, কালাম, হাসানসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়। এদের মধ্যে সাতজন গুলিবিদ্ধ হন।

আহতদের মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ রফিক, কালাম ও হাসানের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ