• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন |

সাধারণ ক্যাডারের শীর্ষপদ দখল করছে প্রশাসন ক্যাডার

বিসিএসএসসিসি ডেস্ক: বিসিএস সাধারণ ও টেকনিক্যাল ক্যাডারের শীর্ষ পদগুলো প্রশাসন ক্যাডারের নিয়ন্ত্রণে চলে যাচ্ছে। বর্তমানে পুলিশ ও পররাষ্ট্র ছাড়া ২৬টি সাধারণ ক্যাডারের শীর্ষপদের কমপক্ষে ৯টিতে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা বহাল রয়েছেন। প্রভাব খাটিয়ে অনেক আমলা একসঙ্গে দুটি পদের দায়িত্বেও রয়েছেন। সরকার বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগের আওতাধীন দফতর/ সংস্থা ও করপোরেশনের ৩০টি শীর্ষস্থানীয় পদকে গ্রেড-১ এবং ২০টি পদকে গ্রেড-২ এ উন্নীত করলেও এর সুফল পাচ্ছে না সংশ্লিষ্ট ক্যাডারগুলো। দেড় বছরে মাত্র দুটি পদ আপগ্রেডেশন (গণস্বাস্থ্য প্রকৌশল ও গণপূর্ত অধিদফতর) করেছে সরকার। সাধারণ ক্যাডারের শীর্ষস্থানীয় পদে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা পদায়নকে মেনে নিতে পারছে না নিজ নিজ ক্যাডার কর্মকর্তারা। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই আন্তঃক্যাডার বিরোধ ও অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব চলে আসছে। এতে সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন ব্যাহত হচ্ছে।

এ বিষয়ে ‘প্রকৃচি-বিসিএস সমন্বয় কমিটি’র (বিসিএস ২৬ ক্যাডার) সচিব ও কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের মহাসচিব মোবারক আলী কিছুদিন আগে বলেন, ‘দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে শীর্ষ পদগুলোর গ্রেড-আপগ্রেডেশন (গ্রেড-১ ও গ্রেড-২) করা হলেও এসব পদে আমাদের (২৬ ক্যাডার) কর্মকর্তাদের যাওয়ার পথ সংকুচিত ও দুরূহ করা হয়েছে। অষ্টম বেতন কাঠামোয় সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল বাতিল করায় ২৬ ক্যাডারের কর্মকর্তাদের গ্রেড-১ এ যাওয়ার পথ কার্যত বন্ধ হয়ে গেছে।’

জানা গেছে, বিসিএস (পরিবার পরিকল্পনা) ক্যাডারের শীর্ষস্থানীয় পদ পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালক পদে দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা পদায়ন পাচ্ছেন। বিসিএস (কারিগরি শিক্ষা) ক্যাডারের শীর্ষস্থানীয় কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক ও বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় পদ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক পদে দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা পদায়ন পাচ্ছেন। এই দুটি পদে বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তা পদায়ন পাওয়ার কথা। এর মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব বাড়তি দায়িত্ব হিসেবে কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের দায়িত্বে এবং একই মন্ত্রণালয়ের অপর এক অতিরিক্ত সচিব বাড়তি দায়িত্ব হিসেবে একটি প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকের (উপ-সচিব) দায়িত্বে রয়েছেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) শীর্ষস্থানীয় পদসহ কয়েকটি বড় পদে সাধারণ ক্যাডার কর্মকর্তা পদায়ন পেলেও তারা গ্রেড-১ এর মর্যাদা পান না। সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ড (এসএসবি) গঠন করে এসব কর্মকর্তাকে যথাযথ মর্যাদা দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয় না বলে অভিযোগ রয়েছে।

২০১২ সালের জানুয়ারিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের চলতি দায়িত্ব পেয়েছিলেন প্রফেসর ফাহিমা খাতুন। তিন বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও তাকে স্থায়ী নিয়োগ দেয়া হয়নি। এজন্য এসএসবি’র সভাও আহ্বান করা হয়নি। এ নিয়ে শিক্ষা ক্যাডারে দীর্ঘদিন ধরেই ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সদস্য সচিব ও বিসিএস ২৬ ক্যাডার সমন্বয় কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য আইকে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার বলেন, ‘প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের পদটি শিক্ষা ক্যাডারের শিডিউলভুক্ত পদ। এখানে অন্য ক্যাডার পদায়নের সুযোগ নেই। এরপরও দীর্ঘদিন ধরে পদটি প্রশাসন ক্যাডারের নিয়ন্ত্রণে। এই পদায়নের বিরুদ্ধে আমরা মামলা করেছি।’

তিনি জানান, ‘গত বছর প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের (যুগ্ম সচিব মর্যাদার) পদেও একজন অতিরিক্ত সচিব পদায়ন করা হয়েছে। এর বিরুদ্ধেও আমরা মামলা করব। কারণ এটা শিক্ষা ক্যাডারের পদ।’

এছাড়া বিসিএস (খাদ্য) ক্যাডারের শীর্ষ পদ খাদ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, বিসিএস (সমবায়) ক্যাডারের শীর্ষ পদ পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের মহাপরিচালক, বিসিএস (বন) ক্যাডারের শীর্ষ পদ পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক, বিসিএস (মৎস্য) ক্যাডারের শীর্ষ পদ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের চেয়ারম্যান, বিসিএস (গণপূর্ত) ক্যাডারের শীর্ষ পদ জাতীয় গৃহায়ন করপোরেশনের চেয়ারম্যান ও তিন সদস্য, বিসিএস (পরিসংখ্যান) ক্যাডারের শীর্ষ পদ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মহাপরিচালক, বিসিএস (তথ্য-বেতার) ক্যাডারের পদ বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক ও দুজন উপ-মহাপরিচালক পদে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা পদায়ন রয়েছেন। এসব পদের দায়িত্ব পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট ক্যাডারের কর্মকর্তারা সরকারের ওপর মহলে তদবির করেও কোন প্রতিকার পায় না বলে অভিযোগ রয়েছে।

শীর্ষস্থানীয় পদ আপগ্রেডেশনে বেড়েছে ঝুঁকি

২০১৪ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ৩০টি শীর্ষ পদকে গ্রেড-১ এবং ২০টি পদকে গ্রেড-২তে উন্নীত করে সরকার। প্রশাসনে গ্রেড-১ সচিব এবং গ্রেড-২ অতিরিক্ত সচিব পদমর্যাদার পদ। শীর্ষ পদ আপগ্রেডেশন হলেও অষ্টম বেতন কাঠামোয় সিলেকশন গ্রেড ও টাইমস্কেল বাতিল করায় সাধারণ ক্যাডারের কর্মকর্তাদের শীর্ষ পদে বসার পথ কার্যত বন্ধ হয়ে গেছে।

কারণ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের পদায়ন পান অধ্যাপক, বর্তমানে যার গ্রেড-৪। সিলেকশন গ্রেড পেলে অধ্যাপকরা গ্রেড-৩তে উন্নীত হতে পারেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক পান স্বাস্থ্য ক্যাডারের অধ্যাপক, যার গ্রেড-৩। কিন্তু সিলেকশন গ্রেড বাতিল হওয়ায় স্বাস্থ্য ক্যাডারের অধ্যাপকরা আর গ্রেড-২তে উন্নীত হতে পারবেন না। ফলে শিক্ষা ও চিকিৎসা ক্যাডারের অধ্যাপকদের গ্রেড-১ উন্নীত হওয়ার সুযোগ কার্যত বন্ধ হয়ে গেছে। অন্যান্য ক্যাডারেও প্রায় একই অবস্থা হয়েছে বলে ক্যাডার বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

শীর্ষ পদে বৈষম্য

ক্যাডারের দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে সরকার বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগের আওতাধীন দফতর/সংস্থা/বিধিবদ্ধ সংস্থা/করপোরেশনের শীর্ষ পদের মধ্যে ৩০টি গ্রেড-১ এবং অপর ২০টি গ্রেড-২তে উন্নীত করে। এতে প্রথমদিকে বিভিন্ন ক্যাডারের কর্মকর্তারা খুশি হলেও এর সুফল পায়নি। অষ্টম বেতন কাঠামোয় টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাতিলের কারণে বিভিন্ন ক্যাডারের গ্রেড-১ (সচিব মর্যাদার) ও গ্রেড-২ (অতিরিক্ত সচিব মর্যাদার) পদগুলোই এখন নিজ নিজ ক্যাডারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এই ৫০টি পদ অদূর ভবিষ্যৎতে পুরোপুরি প্রশাসন ক্যাডারের নিয়ন্ত্রণে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন বিসিএস ২৬ ক্যাডারের নেতারা।

যদিও বর্তমানে ৫০টির বেশিরভাগ পদেই প্রশাসন ক্যাডার কর্মকর্তা পদায়িত আছেন। নিজ নিজ ক্যাডারের যেসব কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও দফতরের শীর্ষ পদে আছেন তারা যথাযথ মর্যাদা পাচ্ছে না। চলতি, ভারপ্রাপ্ত বা অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে কর্মরত থাকার সুযোগ পেয়েছেন। পাচ্ছেন না গ্রেড আপগ্রেডেশনের সুযোগ। কিন্তু প্রশাসন ক্যাডারের যেসব কর্মকর্তা ওই ধরনের শীর্ষস্থানীয় পদে পদায়ন পেয়েছেন তারা প্রায় সব ধরনের সুযোগ-সুবিধাই ভোগ করছেন। চড়ছেন একাধিক বিলাসবহুল গাড়িতে। ইচ্ছেমতো নিচ্ছেন আপ্যায়ন ভাতা। এজন্য শীর্ষস্থানীয় সংস্থা বা অধিদফতরের প্রধান পদে দায়িত্বপালন করেও স্বস্তিতেই নেই প্রশাসন ছাড়া অন্যান্য (২৬ ক্যাডার) ক্যাডারের কর্মকর্তারা।

গ্রেড-১ এ উন্নীত পদগুলো হলো অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সদস্যের চারটি পদ (আয়কর এবং শুল্ক ও আবগারি চারটি, প্রত্যেক ক্যাডার থেকে দুটি করে); ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) চেয়ারম্যান; কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক; বিএসটিআই’র মহাপরিচালক, এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর মহাপরিচালক, ডাক বিভাগের মহাপরিচালক; তথ্য অধিদফতরের প্রধান তথ্য অফিসার; বন অধিদফতরের প্রধান বন সংরক্ষক। গণপূর্ত অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী; মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক; প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক; মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক; সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী; রেলওয়ের মহাপরিচালক; হিসাব মহানিয়ন্ত্রক (সিজিএ); ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতরের মহাপরিচালক; পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক, কম্পট্রোলার জেনারেল অব ডিফেন্স ফাইন্যান্সের মহাপরিচালক; পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমির মহাপরিচালক; রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান; খাদ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক; পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান; স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক; প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক; মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক; আনসার ও ভিডিপি অধিদফতরের মহাপরিচালক; কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক; স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী এবং জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী।

গ্রেড-২ পদে উন্নীত পদগুলো হলো রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান; সমবায় অধিদফতরের নিবন্ধক ও মহাপরিচালক; কারা অধিদফতরের মহাপরিদর্শক (প্রিজন); মুদ্রণ, লেখসামগ্রী, ফরম ও প্রকাশনা অধিদফতরের মহাপরিচালক; পেটেন্ট ডিজাইন ও ট্রেড মার্কস অধিদফতরের রেজিস্ট্রার; শিল্প কারিগরি সহায়ক কেন্দ্রের (বিটাক) মহাপরিচালক; জীবন বীমা করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক; সরকারি যানবাহন অধিদফতরের পরিবহন কমিশনার; মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের চেয়ারম্যান; বনশিল্প উন্নয়ন করপোরেশনের চেয়ারম্যান, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদফতরের মহাপরিচালক; বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান; যুব উন্নয়ন অধিদফতরের মহাপরিচালক; সমাজসেবা অধিদফতরের মহাপরিচালক; মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের মহাপরিচালক, হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক; পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতর ও গণযোগাযোগ অধিদফতর এবং পরিবার-পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালকের পদ।

উৎস: সংবাদ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ