• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১২:১৩ পূর্বাহ্ন |

বীরগঞ্জে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে শিক্ষককে গণধোলাই

গণধোলাইবীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের বীরগঞ্জে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে দিনাজপুর সরকারী ডিগ্রী কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক আশিষ কুমার সরকারকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার সন্ধা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত উত্তপ্ত ছিলো বীরগঞ্জ। এ সময় উত্তেজিত জনতা অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের দাবীতে দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়ক প্রায় ৩ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। পরে রাত সাড়ে ১০টায় বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.আলম হোসেন, ওসি জাহাঙ্গীর আলম অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষক আশিষ কুমার সরকারকে আটকের পর পরিস্থিতি শান্ত হয়। পুলিশ হ্যান্ডকাফ পরিয়ে  শিক্ষক আশিষ কুমারকে থানায় নিয়ে আসে।
এ ঘটনায় বীরগঞ্জ সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেণী’র ছাত্রী তানিসা তিথি’র মা বিলকিস বেগম বাদী হয়ে শিক্ষক প্রভাষক আশিষ কুমার সরকারের বিরুদ্ধে থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে বীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানিয়েছেন। পরিস্থিতি সামাল দিতে দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মিজানুর রহমান বীরগঞ্জ থানায় অবস্থান করছেন।
ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, দিনাজপুর সরকারী ডিগ্রী কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক আশিষ কুমার সরকারের তত্ত্বাবধানে একটি কোচিং সেন্টার রয়েছে বীরগঞ্জ উপজেলার সেতাবগঞ্জ রোড়ে। প্রতিদিনের মতো আজও কয়েকজন শিক্ষার্থী সন্ধ্যায় কোচিং এ ক্লাস করতে যায়। কোচিং চলাকালীন সময় প্রচন্ড গরমে ঠান্ডা পেপসি খাওয়ানোর কথা শিক্ষার্থীদের জানায় শিক্ষক আশিষ কুমার সরকার। এ সময় তার ঘরের ভেতরের ফ্রিজার থেকে ঠান্ডা পেপসি আনার জন্য শিক্ষার্থী তানিসা তিথিকে আদেশ করেন। তিথি ফ্রিজারের কাছে যেতেই আশিষ কুমার সরকার পেছন দিক থেকে তিথিকে চেপে ধরে এলোপাথারী ভাবে গালে, ঠোটে, মুখে চুমু খেতে থাকেন। তিথি’র চিৎকারে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা ঘরে প্রবেশ করে ঘটনা অবলোকন করে। এ সময় বাইরে অপেক্ষামান অভিভাবকরাই ঘটনাটি জানতে পারে। তারা অবরুদ্ধ করে ফেলেন শিক্ষক আশিষ কুমারকে। এ সময় গণধোলাই দেয়া হয় তাকে। শিক্ষক আশিষ পরিস্থিতি ভয়াবহ বুঝতে পেরে পালিয়ে পার্শ্বের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এ সময় উত্তেজিত জনতা অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের দাবীতে দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়ক প্রায় ৩ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। পরে রাত সাড়ে ১০টায় বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আলম হোসেন, ওসি জাহাঙ্গীর আলম অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষক আশিষ কুমার সরকারকে আটকের পর পরিস্থিতি শান্ত হয়। পুলিশ হ্যান্ডকাফ পরিয়ে  শিক্ষক আশিষ কুমারকে থানায় নিয়ে আসে।
রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিলো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ