• শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ০৬:৪৫ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে ট্রাভেল এজেন্ট জয়িতার গল্প

Red Chilli Saidpur

।। আলমগীর হোসেন ।। জীবন যুদ্ধে জয়ী এক নারীর নাম মুক্তি আকা মাহি (১৯)। জীবনের গল্পটা তার মোটেই সাজানো ছিলনা। সংসারের হাল ও ভাইবোনসহ নিজের লেখাপড়ার জন্য প্রথমে চাকরী করেছেন ট্রাভেল এজেন্টে সামান্য বেতনে। বর্তমানে তিনি গাউসিয়া ইন্টারন্যাশনাল ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক। নীলফামারীর সৈয়দপুরে সবাই তাঁকে জয়িতা বলে চেনেন।
সৈয়দপুর শহরের পুরাতন বাবুপাড়ার বাসিন্দা মুক্তি আকা মাহি। বাবা শাহনেওয়াজ ব্যবসা করে সংসার ও ভাইবোন সকলের লেখাপড়া চালাতেন। সংসারে অভাব-অনটন থাকলেও সুখের অভাব ছিলনা। কিন্ত ২০১২ সালে আকর্ষিকভাবে মাহির পিতা না ফেরার দেশে চলে যান। তখন মাহি উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্রী। ফলে অমানিশার ঘোর অন্ধকার নেমে আসে পরিবারে। চোখে ঝাঁপসা দেখতে থাকেন মাহি। কিন্ত হারবার মেয়ে নয় মাহি। তাই পরিবারের ভরণপোষন এবং ৯ ভাই-বোনের লেখাপড়ার দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে চাকরী খুঁজতে থাকেন মাহি।
২০১২ সালে বাবার মৃত্যুর পর পরই প্রথমে চাকরী নেন বিমানের টিকিট বিক্রির প্রতিষ্ঠান গালিব ইন্টারন্যাশনালে একজন টিকিট বিক্রেতা হিসাবে। মাত্র ৬ হাজার টাকা বেতনে টানা ৪ বছর কাজ করেন সেই প্রতিষ্ঠানে। পাশাপাশি নিজের ও ভাইবোনদের লেখাপড়া চালিয়ে যেতে থাকেন। পরিবারের সদস্য ও লেখাপড়ার খরচ চালাতে গিয়ে সামান্য বেতনে কুলাতে পারছিল না মাহি। বড় দুই ভাই বেকার। ফলে ২০১৬ সালের গোড়ার দিকে মারিয়া এভিয়েশন নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠানে চাকরী নেন একই পদে। এখানে বাড়তি পরিশ্রম করার কারণে কর্তৃপক্ষ সর্বসাকুল্য ১৪ হাজার টাকা প্রদান করেন।
ব্যবসাটি ভালোভাবে শিখে নেওয়ার পর নিজের পাঁয়ে দাঁড়ানোর চেষ্টা মাহি। অবশেষে ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর গাউসিয়া ইন্টারন্যাশনাল ট্যুরসঅ্যান্ড ট্রাভেলস নামে একটি ট্রাভেল এজেন্সী খোলেন তিনি। এ কাজে তাঁকে সহযোগিতা করেন নভো এয়ার লিমিটেডের সৈয়দপুর সিটি অফিসের ইনচার্জ আশরাফুল হক লিপটন। শহরের কেন্দ্রস্থলে ৩ হাজার টাকায় ঘর ভাড়া নিয়ে দিব্যি ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন মুক্তি আকা মাহি। ব্যবসার উপার্জন দিয়ে ভাইবোনদের শহরের নামিদামি ও বনেদী প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করাচ্ছেন তিনি। আর নিজেও পড়ছেন সৈয়দপুর কলেজে। ওই কলেজের ডিগ্রি ৩য় বর্ষের ছাত্রী মাহি।
আচার-আচরণ ও টিকিট হোম ডেলিভারী দেওয়ার কারণে মাহির ব্যবসা ইতোমধ্যে সুনাম অর্জন করেছে বিমানের যাত্রীদের কাছে। ফলে দোকানে দুইজন কর্মচারিও রেখেছেন তিনি। বর্তমানে মাহির মাসিক আয় প্রায় ৪০ হাজার টাকার উপরে। সৈয়দপুরে বিমানবন্দর থাকার কারণে বাংলাদেশ বিমানের একটি, নভো এয়ার ও ইউএস-বাংলার দুইটি করে বিমান নিয়মিত চলাচল করছে। আর পেছনে তাঁকাতে হচ্ছে না মুক্তি আকা মাহিকে। মা তারানাহ’র আশির্বাদের হাত একমাত্র উপার্জনক্ষম মেয়ে মুক্তি আকতার মাহির উপর থাকায় এগিয়ে চলেছেন তিনি।
মাহি এখন সংগ্রামী জীবনের নাম। জিরো থেকে হিরোইন হওয়ার গল্পটা অনেকের কাছে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হতে পারে। লক্ষ্য স্থির করে পরিশ্রম, সততা ও অধ্যাবশায় মুক্তি আকতার মাহি জীবনের এতটা পথ এসেছে। বিমানের নিয়মিত যাত্রীরা তাঁর আচরনে সন্তষ্ট হয়ে তারই ট্রাভেল এজেন্সী থেকে নিয়মিত টিকিট সংগ্রহ করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ