Logo

সৈয়দপুরে স্কুলের ছাদে দৃষ্টিনন্দন বাগান

আলমগীর হোসেন, সিসি নিউজ: স্কুলের ছাদে ফল, ফুল ও সবজির বাগান করা সম্ভব সেটা প্রমাণ করেছে সৈয়দপুর শহরের বাঁশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (সপ্রাবি)। এই স্কুলের ছাদে সারি সারি টবে বেড়ে উঠা গাছের ডালে ঝাঁকে ঝাঁকে নানা প্রজাতির ফুল, ফল আর সবজি।
এই স্কুলের ছাদের বাগান যেমন দর্শনার্থীদের মনোরঞ্জন করেছে, তেমন শোভিত বাগান দেখতে ভিড়ও জমাচ্ছে উৎসাহী মানুষ। বিশেষ করে ছাদের বাগান দেখে সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র অধ্যক্ষ মোঃ আমজাদ হোসেন সরকার পৌর পরিষদের ফান্ড থেকে মাস্টার রোলে বাগান পরিচর্যা ও স্কুলের ঝাড়ুদার হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন।
স্কুলে প্রবেশ করতেই চোখে পড়ল ‘আমাদের আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন’ দেয়ালে লেখাটি। তার পাশেই শহীদ মিনার। সৈয়দপুর পৌরসভার ১৪নং ওয়ার্ডের শহীদ আব্দুল কুদ্দুস লেনে ১৯৫৮ সালে বাঁশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। স্কুলে ৩শ ৫০জন শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে ১১জন শিক্ষক-শিক্ষিকা। ছাত্র-ছাত্রীর মেধা বিকশিত করার লক্ষ্যে তাদের লেখনির মাধ্যমে দেয়ালিকার আত্মপ্রকাশ ঘটে। প্রতিমাসে অভিভাবক সমাবেশ তো আছেই, আছে তথ্য প্রযুক্তির যুগে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে ক্লাসরুম।

ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতি জোবায়দুর রহমান শাহীন ২০১৫ সালে শ্রেষ্ঠ বিদ্যুৎসাহী সমাজকর্মী, ২০১৬ সালে রংপুর বিভাগের শ্রেষ্ঠ ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হিসেবে স্বীকৃতি পান। তার সুপরিকল্পিত প্লানে স্কুলের ছাদকে ফেলে না রেখে ব্যবহার করেছেন বাগান হিসেবে।
২০১৬ সালের ৮ অক্টোবর স্কুলের ছাদে বাগানের কার্যক্রম শুরু হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক শিক্ষার মহাপরিচালক ড. আবু হেনা মোস্তফা জামাল (এনডিসি), পাক্ষিক আনন্দ আলোর সম্পাদক রেজানুর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র অধ্যক্ষ মোঃ আমজাদ হোসেন সরকার, প্রাথমিক শিক্ষার অতিরিক্ত সচিব নজরুল ইসলাম খান, প্রাথমিক শিক্ষা রংপুর বিভাগের উপ-পরিচালক মাহবুব এলাহী। তারা এ কার্যক্রম দেখে আবির্ভূত হন।
বিশেষ করে নিজের বিদ্যালয়ের ছাদের বাগানে আম, মালটা’র মতো ফল পেয়ে শিশুরাও সীমাহীন আনন্দে ভাসছে। আছে দুটি দ্বিতল ভবন। একটি ভবনের ছাদে ফল, ফুল আর ওষধি বৃক্ষের বাগান। আর একটি ভবনের ছাদে করা হয়েছে সবজির বাগান।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফেরদৌসী আক্তার জাহান বলেন, গত বছরে ছাদে বাগানের কাজ শুরু করা হয়। বর্তমানে বাগানের গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে আম, কাগজি লেবু, কমলা, মালটা, আমড়া, আম্রপলী আম, কাগজি পেয়ারা, বাউকুল, ডালিম, সবেদা জাম, আঙ্গুর এবং লিচু। সবজি বাগানের ক্ষেতে মরিচ, বোম্বে মরিচ আর চায়না বেগুন চাষ করা হয়।
ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতি জোবায়দুর রহমান শাহীন বলেন, বাগান করার ফলে বদলে গেছে স্কুলের দৃষ্টিনন্দন এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ। আমাদের স্কুলে বিভিন্ন ধরণের ফুলেরও গাছ রয়েছে। শিউলী, চন্দ্র মল্লিকা, কলাবতী, গোলাপ ও দোলনচাঁপা অন্যতম। স্কুলটিকে দেশের অন্যতম স্কুলে রূপান্তরে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।
এ বিষয়ে কথা হয় সৈয়দপুর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ হোমায়রা মন্ডলের সাথে। তিনি বলেন, ফল আমাদের ঐতিহ্যের অবিচ্ছেদ্য অংশ। ফল গাছ মানুষের খাদ্যের যোগান দেয়, পুষ্টির অভাব মেটায়। বিদ্যালয়ের ছাদে এমন বাগান অবশ্যই শিশুদের জন্য অনুকরণীয় একটি বিষয়। তারা বাস্তব জীবনে এর সুফল পাবে।