• রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১০:১১ অপরাহ্ন |

রোনালদোর জোড়া গোলে রিয়ালের ডর্টমুন্ডদুর্গ জয়

খেলাধুলা ডেস্ক : লা লিগায় দুই ম্যাচে গোলশূন্যতার পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ফিরেই জালের দেখা পেলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। করলেন জোড়া গোল। গোল উদযাপন করলেন গ্যারেথ বেলও। আক্রমণভাগের দুই তারকার নৈপুণ্যে বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের মাঠে প্রথম জয় পেল রিয়াল মাদ্রিদ। মঙ্গলবার রাতে সিগনাল-ইদুনা-পার্কে ‘এইচ’ গ্রুপের ম্যাচটি ৩-১ গোলে জিতেছে জিনেদিন জিদানের দল।

ডর্টমুন্ডের মাঠে বরাবরই কঠিন পরীক্ষায় পড়তে হয় রিয়ালকে। আগে ৬ বার এ মাঠে খেলে রিয়াল প্রতিটিতেই ছিল জয়শূন্য। এবার ডর্টমুন্ড-ধাঁধা মেলাতে যেন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিল জিনেদিন জিদানের দল। ১৮ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে দারুণ দক্ষতায় ডর্টমুন্ডের রক্ষণের ওপর দিয়ে গ্যারেথ বেলকে বল বাড়িয়ে দেন কার্ভাহাল। বাঁ পায়ে চোখধাঁধানো ভলিতে ক্রসটা জালে পাঠিয়ে দলকে এগিয়ে নেন ওয়েলস উইঙ্গার। প্রথমার্ধে বেলের গোলটা ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা বলতে ১৪ মিনিটে গোললাইন থেকে সার্জিও রামোসের বল হাতে লাগা। পেনাল্টি এরিয়াতে হাত দিয়ে ব্লকের অভিযোগে ডর্টমুন্ডের খেলোয়াড়েরা যদিও চেঁচামেচি করেছিলেন, রেফারি তাতে সাড়া দেননি।
প্রথমার্ধের তুলনায় রোমাঞ্চকর ছিল দ্বিতীয়ার্ধ। ম্যাচে যে ৪ গোল হয়েছে, ৩টিই এই সময়ে। রোনালদো-ঝলকও দেখা গেছে দ্বিতীয়ার্ধেই। ৪৯ মিনিটে বেলের বাড়িয়ে দেওয়া বল ডর্টমুন্ডের রাইটব্যাক জেরেমি তোলহান আর গোলকিপার রোমান বুরকিকে হারিয়ে বাঁ পায়ের দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে ব্যবধানটা ২-০ করে ফেলেন পর্তুগিজ উইঙ্গার।
৫৪ মিনিটে কাস্ত্রোর ক্রস জালে জড়িয়ে পিয়েরে-এমেরিক অবামেয়াং গত চ্যাম্পিয়নস লিগে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর সেই ছবিটা ফিরিয়ে আনার স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন স্বাগতিক দর্শকদের। ৫৯ মিনিট পর্যন্ত ২-০ পিছিয়ে থেকেও রিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচটা ড্র করে ফিরেছিল ডর্টমুন্ড। একই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি হয়নি ইদুনা পার্কে। অবামেয়াংয়ের গোলটা যে শুধু পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে তাদের, সেটি বোঝা গেল ৭৯ মিনিটে। যখন সমতায় ফিরতে মরিয়া ডর্টমুন্ড, তখনই রিয়ালের পাল্টা আক্রমণে তছনছ স্বাগতিকদের রক্ষণ। লুকা মডরিচের বাড়িয়ে দেওয়া বল ক্ষিপ্রগতিতে বক্সে ঢুকে ডান পায়ের জোরাল শটে ডর্টমুন্ডের জালে জড়িয়ে ব্যবধান ৩-১ করেই রোনালদোর সেই চিরচেনা উদযাপন!

দো। করলেন জোড়া গোল। গোল উদযাপন করলেন গ্যারেথ বেলও। আক্রমণভাগের দুই তারকার নৈপুণ্যে বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের মাঠে প্রথম জয় পেল রিয়াল মাদ্রিদ। মঙ্গলবার রাতে সিগনাল-ইদুনা-পার্কে ‘এইচ’ গ্রুপের ম্যাচটি ৩-১ গোলে জিতেছে জিনেদিন জিদানের দলটি।

ডর্টমুন্ডের মাঠে বরাবরই কঠিন পরীক্ষায় পড়তে হয় রিয়ালকে। আগে ৬ বার এ মাঠে খেলে রিয়াল প্রতিটিতেই ছিল জয়শূন্য। এবার ডর্টমুন্ড-ধাঁধা মেলাতে যেন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিল জিনেদিন জিদানের দল। ১৮ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে দারুণ দক্ষতায় ডর্টমুন্ডের রক্ষণের ওপর দিয়ে গ্যারেথ বেলকে বল বাড়িয়ে দেন কার্ভাহাল। বাঁ পায়ে চোখধাঁধানো ভলিতে ক্রসটা জালে পাঠিয়ে দলকে এগিয়ে নেন ওয়েলস উইঙ্গার। প্রথমার্ধে বেলের গোলটা ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা বলতে ১৪ মিনিটে গোললাইন থেকে সার্জিও রামোসের বল হাতে লাগা। পেনাল্টি এরিয়াতে হাত দিয়ে ব্লকের অভিযোগে ডর্টমুন্ডের খেলোয়াড়েরা যদিও চেঁচামেচি করেছিলেন, রেফারি তাতে সাড়া দেননি।
প্রথমার্ধের তুলনায় রোমাঞ্চকর ছিল দ্বিতীয়ার্ধ। ম্যাচে যে ৪ গোল হয়েছে, ৩টিই এই সময়ে। রোনালদো-ঝলকও দেখা গেছে দ্বিতীয়ার্ধেই। ৪৯ মিনিটে বেলের বাড়িয়ে দেওয়া বল ডর্টমুন্ডের রাইটব্যাক জেরেমি তোলহান আর গোলকিপার রোমান বুরকিকে হারিয়ে বাঁ পায়ের দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে ব্যবধানটা ২-০ করে ফেলেন পর্তুগিজ উইঙ্গার।
৫৪ মিনিটে কাস্ত্রোর ক্রস জালে জড়িয়ে পিয়েরে-এমেরিক অবামেয়াং গত চ্যাম্পিয়নস লিগে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর সেই ছবিটা ফিরিয়ে আনার স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন স্বাগতিক দর্শকদের। ৫৯ মিনিট পর্যন্ত ২-০ পিছিয়ে থেকেও রিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচটা ড্র করে ফিরেছিল ডর্টমুন্ড। একই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি হয়নি ইদুনা পার্কে। অবামেয়াংয়ের গোলটা যে শুধু পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে তাদের, সেটি বোঝা গেল ৭৯ মিনিটে। যখন সমতায় ফিরতে মরিয়া ডর্টমুন্ড, তখনই রিয়ালের পাল্টা আক্রমণে তছনছ স্বাগতিকদের রক্ষণ। লুকা মডরিচের বাড়িয়ে দেওয়া বল ক্ষিপ্রগতিতে বক্সে ঢুকে ডান পায়ের জোরাল শটে ডর্টমুন্ডের জালে জড়িয়ে ব্যবধান ৩-১ করেই রোনালদোর সেই চিরচেনা উদযাপন!


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ