• মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১১:৫৩ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :

ব্যাটিং বিপর্যয়ে বাংলাদেশ

সিসি নিউজ : দক্ষিণ আফ্রিকার দেওয়া পাহাড়সমান রানের চাপ সামলাতে পারলো না টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা। সৌম্য ও মমিনুলের পর মুশফিকের বিদায়ের পর চাপে পড়ে বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ে নেমে সেই চাপ সামলাতে পারেননি মাহমুদুল্লাহও। বিদায় নেন থিতু হয়ে খেলতে থাকা ইমরুল কায়েসও। আর কোন রান ছাড়াই বিদায় নেন সাব্বির।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ৬৬ রান করেছে মুশফিকবাহিনী। দলীয় ১৩ রানেই  উদ্বোধনী জুটি ভেঙে যায়। ২৬ রানে মাথায় দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে। দলীয় ৩৬ রানে তৃতীয় উইকেট পতন হয়। ৪৯ রানে চতুর্থ উইকেটের পতন হয়।

দুটি বাউন্ডারি মেরেছিলেন। রান হয়েছিল ৯। সৌম্য সরকার তারপরও কাগিসো রাবাদার বল ঠিকমতো বুঝেই উঠতে পারছিলেন না। আর আউটটা হলেন কিভাবে? দল তখন আনলাকি থার্টিন বা অপয়া ১৩ তে। রাবাদার গুড লেন্থ বলটা লেগের নিশানায়।

শর্ট বলে বারবার পেছাতে থাকা সৌম্য অফ স্টাম্পের খবর রাখলেও এবার নিজের লেগ স্টাম্পটা আসলে কোথায় তা ভুলে বসেছিলেন! খেলতে চেয়েছিলেন।

কিন্তু তার ব্যাট আর শরীরকে বোকা বানিয়ে সেই বল বাইরে থেকেই লেগ স্টাম্প উড়িয়ে দিল।

সৌম্য সরকারের দ্রুত আউটের পর প্রতিরোধ গড়তে পারেননি ওয়ানডাউনে নামা মুমিনুল হক। ৭ বল খেলে ব্যক্তিগত ৪ রানে ফিরলেন টেস্ট স্পেশালিস্ট এ ব্যাটসম্যান। ডুয়ানে অলিভিয়েরের করা শরীর বরাবর শর্ট বলটি ছাড়তে দেরি করেছিলেন তিনি। আর তাতেই বল তার গ্লাভসে লেগে উইকেটরক্ষকের হাতে তালুবন্দি হয়।

এর আগে আজ শনিবার পৌনে দুই ঘণ্টার মধ্যে রানের পাহাড়ে উঠে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। বৃষ্টির কারণে খেলা শুরু হয় দেড় ঘণ্টা দেরিতে। আরো দেড় ঘণ্টা পর দক্ষিণ আফ্রিকা যায় লাঞ্চে। ততক্ষণে আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান হাশিম আমলা ও অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসি সেঞ্চুরি করে আরো এগিয়ে গেছেন। দ্বিতীয় দিনের শুরুতে টাইগারদের পেসারদের দেখে শুনে খেলা শুরু করেন আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান আমলা এবং ডু প্লেসিস। ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই দলকে সাড়ে চারশোরানের পুঁজি এনে দেন এই দুই ব্যাটসম্যান।

সেই সঙ্গে নিজের ২৮তম সেঞ্চুরিও তুলে নেন হাশিম আমলা। এই সেঞ্চুরির সুবাদে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সেঞ্চুরি হাঁকানোর তালিকায় গ্রাহাম স্মিথকে ছাড়িয়ে দুই নম্বরে উঠে আসলেন আমলা।

আমলা শতক হাঁকানোর খানিক পরই আরেক অপরাজিত ব্যাটসম্যান প্রোটিয়া দলপতি ফাফ ডু প্লেসিসো তুলে নেন নিজের সপ্তম টেস্ট শতক। ব্যক্তিগত শতক পূরণ করার পাশাপাশি লাঞ্চের আগেই দলকে পাঁচশো রানের পুঁজি এনে দেন ফাফ।

এছাড়াও আমলা এবং নিজের মধ্যে ২০০ রানের জুটিও পূরণ করেনে এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। এরপর আর কোন উইকেট না হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ৫৩০ রান নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে যায় প্রোটিয়ারা। তারপর ১২০ ওভারে ৪ উইকেটে ৫৭৩ রানে ইনিংস ঘোষণা করে প্রোটিয়ারা।

এর আগে দ্বিতীয় দিনের শুরু থেকেই ভারী বর্ষণ অব্যাহত ছিলো। ফলে মাঠ ভেজা থাকায় ব্লুমফন্টেইন টেস্টের দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু হতে বিলম্ব হয়। বৃষ্টি থামার প্রায় দেড় ঘণ্টা পর বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় মাঠে নামে দুই দল।

টেস্টের প্রথম দিন এইডেন মার্করাম এবং ডিন এলগারের জোড়া সেঞ্চুরিতে ৩ উইকেট হারিয়ে ৪২৮ রান সংগ্রহ করেছিলো দক্ষিণ আফ্রিকা। সুতরাং বৃষ্টি বাগড়া না দিলে নিজেদের প্রথম ইনিংসে যে যথারীতি বিশাল স্কোরই গড়তে যাচ্ছে প্রোটিয়ারা তা অনেকটা নিশ্চিত করেই বলা যায়।

তবে দৃশ্যপট হয়তো ভিন্নও হতে পারতো যদি না টসে জিতে টাইগার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ব্যাটিং নিতেন। কিন্তু হয়তো ব্লুমফন্টেইনের বাউন্সি উইকেটের কথা চিন্তা করেই গত টেস্টের মতো এবারো বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মুশি। কিন্তু সেই সিদ্ধান্ত বুমেরাং হয়ে ফিরে আসতে খুব বেশি সময় লাগেনি। প্রথম দিন শেষে প্রোটিয়াদের স্কোর দেখলেই তা স্পষ্ট বোঝা যায়।

আবহাওয়া ভালো হলে রানের পাহাড় আরো বড় করার লক্ষ্য নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করবেন আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান হাশিম আমলা (৮৯) এবং অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস (৬২)।

এর আগে ম্যাচের প্রথম দিন টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার এলগার এবং মার্করামের ব্যাটে উড়ন্ত সূচনা পেয়েছিলো প্রোটিয়ারা। রীতিমত ওয়ানডে স্টাইলে খেলে মাত্র ১২.৫ ওভারেই দলীয় পঞ্চাশ পূরণ করতে সক্ষম হয় দক্ষিণ আফ্রিকা।

এরপর দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরি তুলে নেন ডিন এলগার। এলগারের পর সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন আগের টেস্টে ৯৭ রানে আউট হওয়া মার্করামও। এই দুই ওপেনারের পর এবার সেঞ্চুরির পথে এগিয়ে যাচ্ছেন দারুণ ফর্মে থাকা হাশিম আমলা এবং অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিসও। প্রথম দিন শেষ হওয়ার আগে এই দুই ব্যাটসম্যান ১৪০ রানের জুটি গড়েছেন।

দিন শেষে আমলা ৮৯ এবং ডু প্লেসিস ৬২ রানে অপরাজিত ছিলেন। প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানদের মধ্যে শুধু বড় ইনিংস খেলতে পারেননি টেম্বা বাভুমা। ৭ রান করে শুভাশিস রায়ের বলে লিটন দাসের স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশের পক্ষে সবথেকে সফল বোলার ছিলেন শুভাশিস রায়। ২০ ওভার বোলিং করে ৮৫ রানে ২ উইকেট শিকার করেছেন তিনি। এছাড়াও ১৮ ওভার বোলিং করে ৯১ রানে ১ উইকেট নিয়েছেন রুবেল হোসেন। বাকি সব বোলারই মোটামুটি ব্যর্থ হয়েছেন।

উল্লেখ্য এই ম্যাচে কিছু পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ দল। তাসকিন আহমেদ, মেহেদী হাসান মিরাজ এবং শফিউল ইসলামের পরিবর্তে খেলছেন তাইজুল ইসলাম, শুভাশিস রায় এবং রুবেল হোসেন।

অন্যদিকে বাঁ উরুর মাংশপেশিতে চোটের কারণে এই সিরিজ থেকে ছিটকে পড়তে হয়েছে টাইগারদের ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবালকে। আর তাঁর পরিবর্তে দলে ফিরেছেন সৌম্য সরকার।

বাংলাদেশের পাশাপাশি পরিবর্তন এসেছে দক্ষিণ আফ্রিকার একাদশেও। গত টেস্টে সাইড স্ট্রেইনের ইনজুরিতে পড়া পেস তারকা মরনে মরকেলের পরিবর্তে ব্লুমফন্টেইনে খেলছেন ওয়েন পারনেল।

বাংলাদেশ একাদশ:
সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক এবং উইকেট রক্ষক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস, সাব্বির রহমান, তাইজুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, শুভাশিস রায়, রুবেল হোসেন

দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ:
এইডেন মার্করাম, ডিন এলগার, হাশিম আমলা, ফাফ ডু প্লেসিস (অধিনায়ক), কুইন্টন ডি কক (উইকেট রক্ষক), টেম্বা বাভুমা, কেশব মহারাজ, ডোয়াইন অলিভার, ওয়েন পারনেল, কাগিসো রাবাদা, আন্দাইল ফেহলুকায়ো।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ