• শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৪:১৩ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে পুলিশের বিরুদ্ধে আসামী পক্ষের ডাকাতি নাটক!

সিসি নিউজ, ৯ জুন: সৈয়দপুরে আসামী ধরতে আসা পুলিশ দলের উপস্থিতি টের পেয়ে নিজের বাড়ি-ঘর, আসবাবপত্র ভাঙ্চুর ও এলাকাবাসীকে প্রভাবিত করে ডাকাতির নাটক সাজিয়েছে আসামীপক্ষ। শুক্রবার মধ্যরাতে নীলফামারীর সৈয়দপুরে কামারপুকুর ইউনিয়নের টইল্লাপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। আসামীপক্ষ এখনও পলাতক রয়েছে।
সূত্র জানায়, ৪ বছর আগে ওই ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের টইল্লাপাড়ার মোঃ আশরাফ আলীর মেয়ে রুহানীয়া আক্তার রুমির সাথে একই উপজেলার নতুন বাবুপাড়ার বাসিন্দা মৃত. আব্দুর রহমানের পুত্র আবু হাসান মাহমুদের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে আড়াই বছর বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। গত ২৯ মে রুমি বাপের বাড়িতে বেড়াতে গেলে আবু হাসান মাহমুদ বড় ভাই আনিসুর রহমান মিলনকে সাথে নিয়ে বউ-বাচ্চা আনার জন্য শ্বশুড় বাড়িতে যান। কিন্তু শ্বশুড়বাড়ির লোকজন তাদেরকে ঘরে আটকে বেধড়ক মারধর ও অমানুষিক নির্যাতন চালায়। এক পর্যায়ে সৈয়দপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাদেরকে উদ্ধার করে। এর ঘটনার জের ধরে আবু হাসান মাহমুদ বাদী হয়ে আশরাফ আলীর ছেলে আসামী মোক্তার হোসেন (৩২), মোঃ মানিক (৩৪), মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদ (৩৮), মোঃ রশিদুল ইসলাম (৪২) ও জামাতা ডাঃ এনামুল হকসহ অজ্ঞাতনামা ৬-৭ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে শুক্রবার রাত ১টায় সৈয়দপুর থানা পুলিশ আসামীদের ধরতে আশরাফ আলীর বাড়িতে অভিযান চালায়। পুলিশী অভিযান টের পেয়ে আসামীপক্ষ ডাকাত ডাকাত চিৎকার দিয়ে এলাকাবাসীকে জড়ো করে। এক পর্যায়ে এলাকাবাসী আসামীদের ধরতে বাঁধার সৃষ্টি করে। পরিস্থিতি অবনতির আশংকায় পুলিশ ফেরত আসে। পরে আসামীপক্ষ নিজের বাড়ি-ঘরের দরজা-জানালা, আসবাবপত্র ভাংচুর চালিয়ে ঘটনাটিকে ডাকাতি নাটক সাজিয়ে অপ্রচার চালায়। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম লোকমান আসামীপক্ষসহ এলাকাবাসীকে পুলিশের বিরুদ্ধে ক্ষেপে তুলেছেন বলে একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।
সৈয়দপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ শাহজাহান পাশা বলেন, গত ২৯ মে টইল্লাপাড়ার আশরাফ আলীর বাড়ি থেকে আবু হাসান মাহমুদ ও তার বড় ভাই মিলনকে আহত অবস্থায় আমরা উদ্ধার করি। ওই ঘটনায় অভিযোগ করা হলে শুক্রবার রাতে পুলিশ অভিযানে গেলে আসামীপক্ষ বাঁধা দেয়।
সৈয়দপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল বলেন, আসামীপক্ষ পুলিশী কাজে বাঁধা দিয়েছে এবং ওই ঘটনাকে ডাকাতি হিসেবে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে শুনেছি। মূলতঃ আসামীপক্ষ নিজেদের বাঁচাতে এসব করছেন বলে আমার ধারণা।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ