জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কর্মসূচির খসড়া তৈরি

 
 

সিসি ডেস্ক, ১৩ অক্টোবর: নানা জল্পনা-কল্পনার পর অবশেষে বৈঠক করেছেন ‘জাতীয়’ ঐক্য প্রক্রিয়ার নেতারা। শুক্রবার বিকালে রাজধানীর উত্তরায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রবের বাসায় বৈঠকে বসেন বিএনপি, বিকল্পধারা, জেএসডি ও নাগরিক ঐক্যের নেতারা।

তিন ঘণ্টার বৈঠক শেষে সন্ধ্যায় নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠকে অভিন্ন দাবি ও লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। একটি খসড়াও করা হয়েছে। আজ (শনিবার) তা চূড়ান্ত হবে  এবং প্রকাশ করা হতে পারে। তবে, বৈঠকের ব্যাপারে আর কিছু জানাতে চাননি তিনি।

গণফোরামের মহাসচিব মোস্তফা মহসিন মন্টুও গণমাধ্যম কর্মীদের একই কথা জানান। তিনি বলেন, ‘আজকে আমাদের বৈঠকে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। এ বিষয়ে আগামীকাল (শনিবার) সাংবাদিকদের ব্রিফিং করা হবে।’

শুক্রবারের এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও মওদুদ আহমদ, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, বিকল্পধারার যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা ওমর ফারুক, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, শহীদুল্লাহ কায়সার, জাহিদুর রহমান, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তবে এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না এই ঐক্য প্রক্রিয়ার প্রধান দুই রূপকার ড. কামাল হোসেন ও বদরুদ্দোজা চৌধুরী।

এদিকে বৈঠক চলাকালে আ স ম আব্দুর রবের বাসভবনের বাইরে ঝটিকা মিছিল করেন কয়েকজন অজ্ঞাত লোক। মিছিলে ‘একাত্তরের দালালেরা বাড়াবাড়ি করিস না, ‘বাড়াবাড়ি করিস না-পিঠের চামড়া থাকবে না’; ‘জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু’; ‘অ্যাকশন, অ্যাকশন-ডাইরেক্ট অ্যাকশন’ ইত্যাদি স্লোগান দেয় তারা। তবে কারা তা জানা যায়নি।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় এ বৈঠকটি হওয়ার কথা থাকলেও পরে তা বাতিল করা হয়। এর আগে ৭ ও ৮ অক্টোবর এই দলগুলোর নেতারা খন্দকার মোশাররফ ও আ স ম রবের বাসায় দুটি বৈঠক করেন।

সরকারবিরোধী দলগুলো নিয়ে সম্প্রতি একটি ঐক্য প্রক্রিয়া শুরু করেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। বিএনপিসহ সরকারবিরোধী দলগুলো তার সঙ্গে রয়েছে। গত ১৫ সেপ্টেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছে এই ঐক্য প্রক্রিয়া। পরে তারা নাগরিক সমাবেশও করেছে। তাদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের স্বার্থে সংসদ ভেঙে দেয়া, ইভিএম ব্যবহার না করা, আগামী নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন ইত্যাদি।

Print Friendly, PDF & Email