CC News

ছাত্রাবস্থায় উপার্জনক্ষম হওয়ার সহজ কিছু উপায়

 
 
 ।। খুরশিদ জামান কাকন ।।
আমরা পড়াশোনা করছি। উজ্জ্বল ভবিষ্যতের পথে হাটছি। এই সময়টাতে আমরা অন্য কিছু নিয়ে ভাবতে চাই না। পড়াশোনার বাইরে কিছু করতে চাই না। পরিবার থেকেও তেমন কিছু করার চাপ থাকেনা। তাই অনার্স পড়ুয়া আমাদের অনেকেই এখনো পুরোপুরিভাবে পরিবারের উপর নির্ভরশীল। আমরা অনেকেই এখনো দুই টাকা উপার্জনের মুখ দেখতে পারিনি।
অথচ পৃথিবীর উন্নত বিভিন্ন দেশসমূহে সন্তানের বয়স ১৮ হওয়া মাত্রই সন্তানের সকল দায়দায়িত্ব তার নিজের। পড়াশোনা সহ যাবতীয় ব্যয়ভার নিজেকেই বহন করতে হয়। এজন্য সেসব দেশসমূহে শিক্ষার্থীরা পড়াশোনার পাশাপাশি নানামুখী কাজে যুক্ত থাকে। ছোট-বড় বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে অাত্বনির্ভরতা অর্জন করে থাকে। এক্ষেত্রে তারা লজ্জিত বা আত্মসম্মান হারানোর ভয়ে ভীত নয়। বরং নিজের উপার্জিত টাকায় অন্যরকম একটা তৃপ্তি খুজে পায়।
আমাদের দেশে পড়াশোনা শেষ হতে হতে যৌবনের অর্ধেক সময় শেষ। এরপর ভালো একটি চাকরি খুঁজতে খুঁজতে জুতো ক্ষয় হতে থাকে। তারপরও সবার ভাগ্যে চাকরি নামক সোনার হরিন ধরা দেয়না। যার চাচা-মামার জোর আছে, কুড়ি কুড়ি টাকা আছে চাকরি যেনো তারই প্রাপ্য। তাই কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে পৌছাতে কিছুটা সময় লেগে যায়। মাঝখানের পথটায় অনেককেই বেকার থাকতে হয়। ব্যর্থতার সার্টিফিকেট ঝুলিয়ে চরম হতাশায় ভুগতে হয়। এজন্য ছাত্রাবস্থা থেকে কিছু করা উচিৎ। পড়াশোনার পাশাপাশি অন্যান্য বিষয়েও পারদর্শিতা অর্জন করা উচিৎ। আর তাই আপনি পড়াশোনার পাশাপাশি নিম্নোক্ত কাজ সমূহে দক্ষ হয়ে উপার্জনের পথ খুজে নিতে পারেন:
১। টিউশনি : ছাত্রাবস্থায় পড়াশোনার পাশাপাশি সবচেয়ে উত্তম ও সম্মানের পেশা হলো টিউশনি। আপনি টিউশনি করিয়ে উপার্জনক্ষম হতে পারেন। নিজের ব্যয় নিজেই বহন করতে পারেন।
২। পার্টটাইম জব : যাদের টিউশনি ভালো লাগেনা। তারা পার্টটাইম জব করে উপার্জনের মুখ দেখতে পারেন। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় চোখ রাখলে অনেক পার্টটাইম জবের সার্কুলার খুঁজে পাবেন।
৩।  আউটসোর্সিং : পড়াশোনার পাশাপাশি অনলাইনে আউটসোর্সিংয়ের কাজ করে ছাত্রাবস্থায় আত্বনির্ভরতা অর্জন করতে পারেন। এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে পড়াশোনার যেনো ক্ষতি নাহয়।
৪। ইউটিউবিং : বর্তমানে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের তরুণরাও আগ্রহী হয়ে উঠছে ইউটিউবিংয়ে। আপনিও ইউটিউবে চ্যানেল খুলে নিজের বিচক্ষণ ক্ষমতা ও দক্ষতা কাজে লাগিয়ে  স্বাভলম্বি হতে পারেন। তবে এটা অনেক ধৈর্যের কাজ। একদিনে সফলতা পাওয়া সম্ভব না।
৫। রাইডার হিসেবে নিযুক্ত : বাইক চালানো আমাদের অনেকেরই নেশা। আর এই নেশাটাকেই এবার পড়াশোনার পাশাপাশি পেশা হিসেবে বেছে নিতে পারেন। ঢাকায় বর্তমানে বাইক সার্ভিস বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আপনার যদি বাইক থাকে। তাহলে আপনিও পাঠাও, উবারে রাইডার হিসেবে যুক্ত হয়ে বেশ ভালো আয় করতে পারেন।
৬। গ্রাফিক্স : আপনি গ্রাফিক্সের কাজ শিখে বিভিন্ন ডিজাইনের কাজ করে মোটামুটি ভালো একটা ইনকাম করতে পারেন। আর এই কাজটা বেশ নিরাপদ ও ঝুকি বিহীন। কারণ, প্রযুক্তির এই যুগে গ্রাফিক্স ডিজাইনের চাহিদা ব্যাপক। তাই আয় নিয়ে ভাবতে হবে না।
৭। সৃজনশীলতা : আপনি লেখতে ভালোবাসেন। নিয়মিত লেখালেখি করেন। তাহলে বিভিন্ন পত্রিকায় লেখালেখির চেষ্টা করতে পারেন। আপনার প্রকাশিত লেখার বিনিময়ে পত্রিকা থেকে পেতে পারেন সম্মানী। পড়াশোনার পাশাপাশি এটাও আপনার আয়ের উৎস হতে পারে।
৮। দক্ষতা কাজে লাগান : ধরুন আপনি খুব ভালো গিটার বাজাতে পারেন অথবা ভালো ছবি আঁকতে পারেন তাহলে আপনি পরিচিত মহলে গিটার বাজানো শিখিয়ে অথবা ছবি আকা শিখিয়ে ইনকাম করতে পারেন।
৯। ফটোগ্রাফি : ছবি তোলা যদি আপনার শখ হয়ে থাকে তাহলে পড়াশোনার পাশাপাশি আপনি ফটোগ্রাফি করতে পারেন। অনলাইনে ছবি বিক্রি করে আয় করার অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে। আপনার তোলা ছবির স্বত্ব বিক্রি করে এক্ষেত্রে ভালো আয় করতে পারেন।
১০। মার্কেটিং : পড়াশোনার পাশাপাশি অনলাইন অথবা অফলাইনে মার্কেটিংয়ের কাজ করে আপনি মোটামুটি ভালো একটা ইনকাম করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে কোম্পানির নাম এবং প্রোডাক্টয়ের মান ভালো হওয়া বঞ্চনীয়।
পড়াশোনার পাশাপাশি আয়ের অনেক উৎস আছে। সেজন্য আপনাকে দক্ষতা অর্জন করতে হবে, সেইসাথে ধৈর্যবান হতে হবে। তাহলেই আপনি পেতে পারেন সফলতা। তবে যাই করেন সবসময় পড়াশোনা ঠিক রাখবেন। কারণ, পড়াশোনার বিকল্প নেই। আপনার পড়াশোনায় আপনার উজ্জ্বল ভবিষ্যতের পথ প্রসার করবে।
Print Friendly, PDF & Email