CC News

নির্বাচনী মাঠে ১৫০০ ম্যাজিস্ট্রেট

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৭ নভেম্বর।। একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনী অপরাধের বিচার, লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে দেড় হাজার জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে দায়িত্ব দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ভোটের আগের দিন, ভোটের দিন ও ভোটের পরের দুই দিন মোট চার দিন মাঠে থাকবেন ৬৪০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট। এ ছাড়া নির্বাচন-পূর্ব অনিয়ম প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে ২৪৪ জন যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ এবং সহকারী জজদের নিয়ে ১২২টি ‘ইলেকটোরাল ইনকোয়ারি কমিটি’ গঠন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে আচরণবিধি প্রতিপালনে ছয় শতাধিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে রয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

ইসির কর্মকর্তারা জানান, এ নির্বাচনে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৬৪০ জন, ১২২টি নির্বাচনী তদন্ত কমিটিতে ২৪৪ জন ও ছয় শতাধিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সব মিলিয়ে প্রায় দেড় হাজার ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। নির্বাচনী অপরাধ আমলে নিতে এবং সংক্ষিপ্ত বিচারের জন্য মাঠে থাকবেন ৬৪০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট।

৩০০টি নির্বাচনী এলাকার প্রতিটিতে দুজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আগামী ২৯ ডিসেম্বর মাঠে নামবেন। তাঁরা ১ জানুয়ারি পর্যন্ত চার দিন বিচারকাজ চালাবেন। একাধিক উপজেলা বা উপজেলার অংশ নিয়ে গঠিত নির্বাচনী এলাকার ক্ষেত্রে প্রতিটি উপজেলা বা উপজেলার অংশবিশেষের জন্য একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হবে।

নির্বাচন-পূর্ব অনিয়ম প্রতিরোধ, প্রার্থীদের আচরণবিধি ভঙ্গ তদারকি এবং ক্ষমতার অপব্যবহার নিয়ন্ত্রণে ইলেকটোরাল ইনকোয়ারি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ৩০০ সংসদীয় আসনের জন্য ১২২টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে; সেখানে একটি কমিটির জন্য দুজন সদস্য অর্থাত্ ২৪৪ জন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হচ্ছে। গতকাল সোমবার এসব কমিটি গঠনের চিঠি পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এ ছাড়া আচরণবিধিমালা প্রতিপালন দেখভালে ছয় শতাধিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে নেমেছেন। ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী, প্রতিটি উপজেলায় একজন, সিটি করপোরেশন এলাকায় ভৌগোলিকভাবে পাশাপাশি অবস্থিত প্রতি তিন-চারটি ওয়ার্ডের জন্য একজন, সিটির বাইরে জেলা সদরে প্রতি পৌর এলাকায় এক থেকে দুজন করে এবং পার্বত্য এলাকায় ভৌগোলিকভাবে পাশাপাশি অবস্থিত তিন-চারটি উপজেলার জন্য একজন করে নিয়োগ দিতে জেলা প্রশাসকদের বলা হয়েছে। ইতিমধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা মাঠে নেমেছেন। তবে তাঁদের কার্যক্রম এখনো দৃশ্যমান হয়নি।

ইসির কর্মকর্তারা জানান, আগামী ১০ ডিসেম্বর ৩০০ সংসদীয় আসনের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেবে ইসি। একই সঙ্গে ওই দিন থেকে প্রার্থীদের প্রচারণা শুরু হয়ে যাবে। কর্মকর্তারা আরো জানান, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হওয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে সংঘাতের আশঙ্কা রয়েছে। আচরণবিধি প্রতিপালন ও ভোটের পরিবেশ বজায় রাখতে ম্যাজিস্ট্রেটদের ইতিমধ্যেই দিকনির্দেশনা দিয়েছে ইসি।

Print Friendly, PDF & Email