CC News

তারেক রহমানের সঙ্গে আইএসআই’র বৈঠক!

 
 

সিসি ডেস্ক, ০৭ ডিসেম্বর।। লন্ডনে তারেকের সঙ্গে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এর বৈঠকের খবর দিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে ভারতের সংবাদমাধ্যম ‘টাইমস অব আসাম’ বলছে, আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে বাংলাদেশে জামায়াত নিয়ন্ত্রিত সরকার প্রতিষ্ঠায় তৎপর পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা। এদিকে, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশকে অস্থিতিশীল করতে জামায়াত-বিএনপির এমন তৎপরতা রুখতে নির্বাচন নির্বাচন কমিশনকে কঠোর হওয়ার তাগিদ দিয়েছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা।

আগামী জাতীয় নির্বাচন ঘিরে জামায়াত-বিএনপির তৎপরতা নিয়ে বৃহস্পতিবার একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতের আসামের সংবাদমাধ্যম টাইমস অব আসাম।প্রতিবেদনে জামায়াত নিয়ন্ত্রিত সরকার প্রতিষ্ঠায় পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা-আইএসআই তৎপর বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া বিএনপি-জামায়াত জোটকে সমর্থন দিতে মার্কিন সিনেট ও কংগ্রেসেও আইএসআই নিয়মিত যোগাযোগ করছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশকে অস্থিতিশীল করতে জামায়াত-বিএনপির এমন তৎপরতা রুখতে নির্বাচন কমিশনকে কঠোর হতে হবে। নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আলী সিকদার বলেন, নির্বাচন কমিশনকে অত্যন্ত শক্তিশালীভাবে এটা মনিটর করতে হবে। আন্তর্জাতিক কোনো সংস্থা কিংবা গোয়েন্দা সংস্থার যেভাবে তৎপরতার খবর বের হচ্ছে, এ ধরনের তৎপরতা তারা চালাতে পারে না। এজন্য নির্বাচন কমিশনের কাজ হবে এ ধরনের তৎপরতা যাতে তারা চালাতে না পারে সেজন্য আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

লন্ডনে বিএনপি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও লন্ডনে অবস্থানরত জামায়াত নেতা আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে আইএসআই’র বৈঠকের কথাও উল্লেখ করেছে টাইমস অব আসাম। নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা মনে করেন, জামায়াত বিএনপি ক্ষমতায় এলে জঙ্গিবাদের উত্থান হবে। যা আঞ্চলিক নিরাপত্তার জন্যও হুমকি।

মোহাম্মদ আলী সিকদার বলেন, ‘জামায়াত বিএনপি যে অবস্থায় আছে, এই নির্বাচনে যদি আবারও তারা ক্ষমতায় আসে। তবে পাকিস্তানের গোয়েন্দা বাহিনী আবারও সেই তৎপরতা শুরু করবে। তারা ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলোকে অস্ত্রসহ সব ধরনের সমর্থন দেয়া শুরু করবে। এছাড়া বাংলাদেশের জঙ্গি সংগঠনগুলোকে তারা অর্থ ও অন্যান্য সমর্থন দেবে।’ নির্বাচনকে ঘিরে জামায়াত-বিএনপির তৎপরতার বিষয়ে জনগণকে সচেতন হওয়ারও আহ্বান জানান এই নিরাপত্তা বিশ্লেষক।

Print Friendly, PDF & Email