• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০২:২৯ পূর্বাহ্ন |

ভোটের পর বিজয় মিছিলসহ শোডাউন নয়: সিইসি

ঢাকা, ১১ ডিসেম্বর।। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সহিংসতা এড়াতে প্রশাসন, প্রার্থীসহ সবাইকে সজাগ থাকার আহবান জানিয়ে বলেছেন, নির্বাচনী উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে। উত্তাপ যেনো উত্তপ্ত না হয়। সবাইকে সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।

তিনি বলেছেন, নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে নির্বাচনে জয়ী প্রার্থীদের ভোটের পরদিন বিজয় মিছিলসহ কোনো ধরনের শোডাউন করা যাবে না।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটদের ব্রিফিংয়ে মঙ্গলবার তিনি এ কথা বলেন।

সিইসি বলেন, এটা বলার ও বোঝার অপেক্ষা রাখে না যে, নির্বাচনের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে। শুধু আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে যে, উত্তাপের এই পরিবেশ যেনো উত্তপ্ত না হয়। উত্তপ্ত হয়ে নির্বাচনী পরিবেশ যেনো ব্যাহত না হয়, ব্যাঘাত না ঘটে। সে কারণে আমাদের এই আয়োজন। আমাদের প্রস্তুতি।

তিনি বলেন, একটা সময় সাধারণ মানুষ ও বিচারকদের মধ্যে একটা অদৃশ্য কৃত্রিম দেয়াল ছিল। সেটি ক্রমেই সরে যাচ্ছে। নির্বাচনে দায়িত্বপালনের মাধ্যমে সেই দেয়াল আরো শিথিল হবে। মানুষের কাছাকাছি গিয়ে বুঝতে পারবেন তারা কি চায়। নিরপেক্ষভাবে দায়িত্বপালনের ক্ষেত্র আরো প্রশস্ত হবে।

তিনি আরো বলেন, বিচারকদের মানুষের সঙ্গে মিশলে কোনো ক্ষতি নেই। কিন্তু মিক্সড আপ হবেন না। আপনার ব্যক্তিত্ব কতটা শক্তিশালী তার ওপর নির্ভর করে আপনি প্রভাবিত হবেন কি হবেন না। আইন, বিবেক আছে, আপনাদের জ্ঞান, প্রজ্ঞা, ব্যক্তিত্ব প্রয়োগ করে একটি সুন্দর ও সাবলীল নির্বাচন করতে পারবেন।

জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের উদ্দেশ্য করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমাদের কাজ শুধু ৩০ তারিখ। সেদিন ভোট হবে। সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ করা, যেনো কোনো সংঘাত না হয়, ভুল বোঝাবুঝি না হয়। সবাই যেনো নির্বাচনী আচরণ বিধি মেনে চলেন, সেটা বুঝিয়ে দেয়া। এটাই আমাদের উদ্দেশ্য।

তিনি বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা। এর জন্য যতটুকু প্রয়োজন ঠিক ততটুকুই ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন।

নূরুল হুদা বলেন, নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত আশাবাদী, আপনারা যদি মাঠে থাকেন, আপনাদের পদচারণায় এই নির্বাচনের পরিবেশ সুন্দর হবে। মানুষের মধ্যে আস্থার পরিবেশ সৃষ্টি হবে। মানুষ যেন ভোট দিয়ে নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারেন। সে পরিবেশ তৈরি করতে হবে।

তিনি বলেন, একটা জিনিস মনে রাখতে হবে নির্বাচনের পরের দিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নির্বাচনের আগের দিন ও নির্বাচনের দিন যতটা না সংঘাত হয়, তার থেকে বেশি সংঘাত হয় নির্বাচনের পরের দিন। অতিউৎসাহী লোক ও প্রতিহিংসাপরায়ণের কারণে এসব হয়ে থাকে। ভোটের পরের দিন মিছিলের কারণে অনেকের মনে আঘাত লাগে, অনেকে কষ্ট পায়। এতে গণতান্ত্রিক পরিবেশ নষ্ট হয়। আপনারা এ বিষয়টি খেয়াল রাখবেন, সজাগ থাকবেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনী আইনে আছে নির্বাচনের পরের দিন কোনো শোডাউন হবে না। বিষয়টি কঠোরভাবে দেখতে হবে।

সিইসি বলেন, কমিশন অত্যন্ত আশাবাদী সব রাজনৈতিক দল নির্বাচনে থাকবে। হাজার হাজার মানুষ থাকবে। সব রাজনৈতিক দল একটি পজেটিভ অ্যাটিটিউড নিয়ে নির্বাচন শুরু করে দিয়েছে। এতো বড় নির্বাচনে এখন পর্যন্ত কোনো সংঘাতের ঘটনা ঘটেনি। আপনারা যখন মাঠে যাবেন আর কোনো সংঘাত ঘটবে বলেও মনে করি না। আপনারা সফল ও সার্থক নির্বাচন করবেন বলে আমরা আশাবাদী।

নির্বাচনের উৎসব যেন কোনো অবস্থাতেই প্রশ্নের সম্মুখীন না হয়, সেজন্য নির্বাচনের ভোট উৎসবে সবাইকে সামিল করতে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের যথাযথ দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম।

কমিশনার মাহবুব তালুকদার আইনানুগ নির্বাচনের কথা মুখে না বলে কাজে করে দেখানোর আহবান জানিয়েছেন।

কালো টাকা আর পেশি শক্তির প্রভাব খাটানো কোনো প্রার্থীকে সংসদে যাবার সুযোগ না করে দেয়ার জন্য বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটদের নির্দেশও দেন তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ