বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের বাজে দৃষ্টান্ত!

 
 

খেলাধুলা ডেস্ক।। ম্যাচের পর সাধারণত আম্পায়ারিং নিয়ে কথা বলতে চান না খেলোয়াড়রা। কারণ বললেই আইসিসির দণ্ডাদেশের খড়্গ ঘাড়ে নেমে আসার ঝুঁকি! কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে একের পর এক প্রশ্নবিদ্ধ সিদ্ধান্তই দিচ্ছেন বাংলাদেশের আম্পায়াররা। ফলে ভবিষ্যতে আন্তর্জাতিক ম্যাচে তাঁদের দায়িত্ব পাওয়া নিয়ে যেমন সংশয় জাগছে, তেমনি ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে দেশের ক্রিকেটেরও।

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রশ্নবিদ্ধ আম্পায়ারিং নিয়ে অনেক দিন ধরেই সরব গণমাধ্যম। বিশেষ কিছু দলকে সুবিধা পাইয়ে দিতে অনেক আম্পায়ারই ইচ্ছা করে ভুল সিদ্ধান্ত দেন, কিংবা করেন প্রশ্নবিদ্ধ আচরণ; এসব তো ওপেন সিক্রেট। আম্পায়ারস ডিসিশন রিভিউ পদ্ধতি বা ডিআরএস চলে আসায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ভুল সিদ্ধান্ত দিয়ে পার পেয়ে যাওয়ার সুযোগ সামান্যই। তাইতো সামনে চলে আসছে গাজী সোহেল, তানভীর আহমেদদের ভুলগুলো। টি-টোয়েন্টিতে আন্তর্জাতিক প্যানেলের অন্তর্ভুক্ত দেশীয় আম্পায়ারদের ম্যাচ চালানোর দায়িত্ব দেওয়াটাই নিয়ম। এই ম্যাচে মাঠে দায়িত্বে থাকা তানভীর আহমেদ দিয়েছেন প্রশ্নবিদ্ধ কিছু সিদ্ধান্ত। যে কারণে প্রায় ১০ মিনিট বন্ধ ছিল মাঠের খেলা। ওশানে থমাসের করা ইনিংসের চতুর্থ ওভারটাতেই যত কাণ্ড! প্রথমে ‘নো বল’ ডেকেছেন পঞ্চম  বলে, যে বলটায় চার মেরেছিলেন লিটন দাশ। রিপ্লেতে দেখা যায়, ডেলিভারির সময় দাগের ভেতর পায়ের খানিকটা অংশ ছিল থমাসের। এখানেই শেষ নয়, লিটন মিড অফে ক্যাচ তুলে দেওয়ার বলটাতেও ‘নো’ ডেকেছিলেন তানভীর। রিপ্লেতে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল, দাগ পার করেনি থমাসের পা।  এই ঘটনায় সৃষ্টি হয় উত্তেজনাকর মুহূর্ত। আম্পায়ারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রিভিউ নেন কার্লোস ব্রাথওয়েট। এমন পরিস্থিতিতে নেমে আসেন ম্যাচ রেফারি জেফ ক্রো। গোল হয়ে দাঁড়িয়ে অনেক আলাপ আলোচনার পর আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মেনে খেলায় ফেরে ক্যারিবীয়রা। জীবন পান লিটন দাশ। তবে তাতে বাংলাদেশের আম্পায়ারদের ভাবমূর্তির যে মরণ!

শুধু এই ম্যাচেই নয়, বাংলাদেশের আরেক আম্পায়ার গাজী সোহেলও প্রশ্নবিদ্ধ সব সিদ্ধান্ত দিয়েছেন দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে। যে সুযোগে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে একই ম্যাচে চল্লিশোর্ধ ইনিংস ও ৫ উইকেট শিকারের কৃতিত্ব সাকিব আল হাসানের। অথচ সাকিবের রান যখন ২১, তখন সাকিবের ব্যাটে লেগে বল গিয়েছিল উইকেটরক্ষকের হাতে। শাই হোপও বুঝতে পারেননি, বোঝেননি গাজী সোহেলও। অথচ টিভি রিপ্লেতে স্নিকোমিটারে দেখা গেছে বল ব্যাটে লাগার প্রমাণ। নিয়মিতই শিমরন হেটমায়ারকে আউট করেন মেহেদী হাসান মিরাজ, সে কারণেই হয়তো মিরাজের বল ইনসাইড এজ হওয়ার পরও লেগ বিফোর উইকেটের আবেদনে সাড়া দিয়ে দিয়েছিলেন গাজী সোহেল। পরে রিভিউ নিয়ে বেঁচেছেন হেটমায়ার। তার আগে প্রথম ওভারেই আবু হায়দারের বলে ইনসাইড এজ থাকার পরও এভিন লুইসকে লেগ বিফোর উইকেটের সিদ্ধান্ত জানিয়েছিলেন সোহেল, যেটা পরে রিভিউতে পরিবর্তিত হয়।

আম্পায়ারিংকে নিরপেক্ষ ও সংশয়হীন করার জন্য অনেক পদক্ষেপই নিয়েছে আইসিসি। প্রযুক্তির কল্যাণে এখন ভুল করে পার পেয়ে যাওয়া কঠিন। সেখানে তানভীর, সোহেলরা এমন দৃষ্টিকটু ভুল করছেন, যা প্রশ্ন তুলছে ঘরোয়া ক্রিকেটের আম্পায়ারিংয়ের মান নিয়েও। এরাই তো ম্যাচ চালান ঘরোয়া ক্রিকেটে। সেখানে যে আর ডিআরএস নেই!

কালেরকন্ঠ

Print Friendly, PDF & Email